প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সোলায়মান শুখন: ফেসবুকে মন্তব্য আপনার পরিবারেরও পরিচয় বহন করে

সোলায়মান শুখন: স্কুল পাস না করা ছেলেটাও মাস্টার্সের শেষ বর্ষের বড় ভাইকে আর আপুকে নিয়ে ফেসবুকে মতামত দিয়ে দিচ্ছে কিছু না বুঝেই। জীবনে যে গান গায়নি বা গানের সারেগামার স ও বুঝে না সেও কিনা ২০ বছর ধরে গানের জগতে কাজ করা বরেণ্য শিল্পীর কাজ নিয়ে অশালীন মতামত দিয়ে ফেসবুকে ভিডিও আপ করে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার বারোটা বাজাচ্ছে। এখনো যে মানুষটি কোনো কর্পোরেট জবেই ঢুকেনি, সেও ১৫ বছর ধরে ৯ টা ৫ টা অফিস করে জীবন তেজপাতা করে ফেলা কাউকে নিয়ে ক্যারিয়ার সামারি ভিডিও বানিয়ে “আমি খুব বুঝি” ট্যাগ লাইনের স্ট্যাটাস পোস্ট করে দিচ্ছে। রাজনীতির ধারের কাছেও ছিলেন না যিনি আর মিছিল দেখলেই গলির ভেতর ঢুকে “চাচা আপন প্রাণ বাঁচা” ডিএনএর মানুষটাও ইচ্ছা মতো বিশেষজ্ঞ মতামত দিয়ে ব্যক্তিগত আক্রমণে ভরা লিখা ভাইরাল করে দিচ্ছেন ওয়ালে ওয়ালে।

পরিবার থেকে বছরের পর বছর দূরে থেকে মরুভূমির নির্মম রোদ মাথায় নিয়ে কাজ করতে কতটা কষ্ট হয় সেটা না বুঝেই অনেকে প্রবাসীদের নিয়ে কটুক্তি করে ফেলছেন শুধুমাত্র এয়ারপোর্টে তাদের একটু শোরগোল দেখে। সবাই নিজেকে বিজ্ঞ প্রমাণের চেষ্টায় কয়েক টাকার এমবি কিনে ফেসবুকে হাতি ঘোড়া মেরে ফেলছেন। নিজের গাড়িটা উল্টা পথে এনে হরদম রাস্তা আটকে দেয়া মানুষটাও সুযোগ পেলেই ঘর্মাক্ত ট্রাফিক পুলিশ “শুধু টাকা খায়” নামের ট্রল শেয়ার করে দিচ্ছেন বীরের মতো।

নিজে উচ্চ শিক্ষার সর্বোচ্চ শিখরে পৌঁছেও যিনি একবারের জন্যেও ঢাকার বাইরের কোনো জেলা, উপজেলায় বা গ্রামের ছেলেমেয়েদের সাথে অভিজ্ঞতা শেয়ার করার চেষ্টা করেননি তিনিও কড়া ইংরেজিতে দেশ থেকে কয়েক হাজার মাইল দূরে বসে “সব শেষ হয়ে গেলোরে” টাইপের বাণী দিয়ে যাচ্ছেন,যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে অনেক লাইক আশা করছেন।

ঢাকার ৩০ % রিক্সাওয়ালা জন্ডিসে আক্রন্ত হয়েও দিনরাত কিভাবে মানুষ হয়েও মানুষকে টেনে নিয়ে যাচ্ছেন সেটা না বুঝেই আমরা “তুই একটা

রিক্সাওয়ালা” নামের মিম শেয়ার করে খুব মজা নিচ্ছি। জোস্ হয়েছে দোস্ত, বলে আবার অনেকে সেখানে কমেন্টও করছে অট্টহাসির ইমোজি দিয়ে।

‘সবাই আলেসান্দ্রো ডেল পণ্ডিতো’

অপমান সংস্কৃতি একটা বিষাক্ত মাদকের মত। খুব সহজ আর নোংরা ধরনের আনন্দদায়ক। বয়সে আর অভিজ্ঞতায় বড় কাউকে নিয়ে, কোন বিষয়ে নিয়ে মতামত দিতেও একটা যোগ্যতা লাগে ,যোগ্যতা ছাড়া মত প্রকাশ হলো মত প্রকাশের স্বাধীনতার সরাসরি অপব্যবহার।

সবাই রাষ্ট্রপতি না যে সব বিষয়ে মতামত থাকতেই হবে বা দিতেই হবে।

বয়স হতে দাও , অভিজ্ঞতা আসতে দাও জীবনে , অপমান নয় উৎসাহ হউক আমাদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারের প্রথম উদ্দেশ্য ।

সূত্র : ফেসবুক থেকে নেয়া

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত