শিরোনাম
◈ নেতাকর্মীরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যান নিরাপদ মনে করছেন না: রিজভী ◈ চাহিদা মেটাতে তেল-গ্যাস আমদানি করতে পারবে বেসরকারি খাত: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী ◈ মৌলিক গবেষণায় বিশ্ব হার্ট ফেডারেশনের সহযোগিতা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী ◈ রাজশাহীর সমাবেশের উত্তাল ঢেউ ঢাকায় পৌঁছাতে হবে: মিনু ◈ তিন দিনে বিএনপির ৭৭৬ নেতা-কর্মী গ্রেপ্তার করা হয়েছে : রিজভী  ◈ ২২ কোটি টাকার ইনজেকশন পাওয়া রাইয়ান এখন অনেকটা সুস্থ  ◈ হুমকি, ধামকি দিয়ে সরকারের পতন ঘটানো যাবে না: কাদের ◈ জুনের মধ্যে ডিজেলচালিত বিদুৎকেন্দ্রগুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে: প্রতিমন্ত্রী ◈ ঢাবিতে গাড়িচাপায় নারীর মৃত্যু, পরিবারের মামলা ◈ প্রধানমন্ত্রীর জনসভাকে ঘিরে উৎসবমুখর চট্টগ্রাম

প্রকাশিত : ২০ জুন, ২০২১, ০৪:৫১ সকাল
আপডেট : ২০ জুন, ২০২১, ০৪:৫১ সকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

নওগাঁর আম্রপালি আম গেলো ইংল্যান্ডে

নিউজ ডেস্ক: গত বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) প্রায় এক টন আম্রপালি রপ্তানি করা হয়।

নওগাঁ জেলার সাপাহার, পোরশা, নিয়ামতপুর ও পত্নীতলার আংশিক এলাকা আম্রপালির জন্য বিখ্যাত। এ জাতের আমগুলো অত্যন্ত সুস্বাদু ও সুমিষ্ট। ‘বরেন্দ্র অ্যাগ্রো পার্ক’-এর মালিক সোহেল রানা তার নিজস্ব বাগান থেকে বিশেষ প্রক্রিয়ায় বিদেশে আমগুলো রপ্তানি করেন। ২০১৫ সালে পত্নীতলার দিবর ইউনিয়নের রূপগ্রাম গ্রামের খাড়িপাড়া এলাকায় পৈতৃক ১২ বিঘা জমির ওপর গড়ে তোলেন সমন্বিত কৃষি খামার। নাম দেন ‘রূপগ্রাম অ্যাগ্রো ফার্ম’।

এরপর আর পেছনে তাকাতে হয়নি। মেধা ও পরিশ্রমে তিনি এখন ১৪০ বিঘা জমিতে পৃথক দুটি সমন্বিত কৃষি খামার গড়ে তুলেছেন। সাপাহার গোডাউন পাড়ায় আড়াই বছর বয়সী প্রায় দেড় হাজার আম্রপালি গাছ রয়েছে। এ বাগান থেকে এ বছর প্রায় ৪০ টনের মতো আম পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। গাছের বয়স কম হওয়ায় আমগুলো জলদি পাকবে। গাছের বয়স বেশি হলে আম পাকতে দেরি হয়। সোহেল রানা জানান, বিদেশে আম রপ্তানির জন্য আমগুলোর বিশেষ পরিচর্যা করা হয়েছে। চাষের সময় সুষম ও জৈব সার, নিয়মিত কীটনাশক এবং ছত্রাকনাশকের ব্যবহার নিশ্চিত করেছেন। যাতে রোগবালাই মুক্ত থাকে। তবে আম পাড়ার ১৫ দিন আগে গাছে সব ধরনের স্প্রে বন্ধ করতে হয়।

এতে কীটনাশকের কেমিক্যাল মানুষের শরীরে আর কোনো ক্ষতি করতে পারে না। সাধারণ চাষিরা কয়েক দিন আগে কীটনাশক স্প্রে করে বাজারে নিয়ে যান আম। কিন্তু বিদেশে যেসব আম রপ্তানি করা হবে সেগুলো ঢাকায় যাচাই-বাছাই করা হয়। এরপর সব ঠিক থাকলে বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। এ বছর প্রায় ১০ টন আম রপ্তানি করার ইচ্ছা আছে। আগামী সপ্তাহে আরও এক টন বরাদ্দ আসতে পারে। রপ্তানিকারকের কাছে প্রায় ৪ হাজার টাকা মণ দরে আম বিক্রি করেছি। এ অঞ্চলের বেশির ভাগ আমই বেশ সুস্বাদু। আমরা জানতাম না কীভাবে আম বিদেশে রপ্তানি করার উপযোগী করতে হয়। বিভিন্ন প্রশিক্ষণ নেওয়ার মাধ্যমে তা জানতে পেরেছি। সুইডেন ও ফিনল্যান্ডসহ বিভিন্ন দেশ থেকে আমের জন্য অর্ডার পাচ্ছি। স্থানীয় বাজারে দাম কম পেলেও দেশের বাইরে ভালো দাম পাওয়া যাবে আমের। এতে আমরা লাভবান হব।

সূত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়