প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শেখ রাশেদুল বারী ইকবাল: কঠিন রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিকে এককালীন ৫০ হাজার টাকা দেবে সাহায্য সমাজকল্যাণ অধিদপ্তর

ফেসবুক থেকে: আপনার মা-বাবা, পরিবার কিংবা আত্মীয়-স্বজনের কেউ যদি ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে থাকেন, কিডনী সমস্যায় ডায়ালাইসিস নিতে হচ্ছে অথবা লিভার সিরোসিস রোগে ভুগছেন। তাদের টাকার জন্য চিকিৎসা করতে পারছেন না, কিছু টাকা পেলে চিকিৎসা করাতে পারবেন-
উপরে যেসব রোগের কথা বলেছি সেসব রোগীদের চিকিৎসার জন্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যাণ অধিদপ্তর থেকে সরকারিভাবে এককালীন ৫০ হাজার টাকা সাহায্য পেতে পারেন।

★ কারা এই সহায়তা পাবেন
১) ক্যান্সার আক্রান্ত রোগী
২) কিডনী রোগে আক্রান্ত
৩) লিভার সিরোসিস

★ সহায়তা পেতে কিভাবে আবেদন করতে হবে, বিস্তারিত বলে দিচ্ছি।
পোস্টের নিচের অংশে দেওয়া লিংকে গিয়ে একটি PDF ফাইল দেওয়া আছে সেটা ডাউনলোড করবেন এবং নিচের নির্দেশিকা মেনে নির্ভুলভাবে পূরন করবেন।
তারপর PDF ফাইলটি ওপেন করে ৬ টি পৃষ্ঠা দেখতে পারবেন। প্রথমেই সেখানের ১ম পৃষ্ঠার দিক নির্দেশনাগুলো ভালোভাবে পড়ে নিবেন। তারপর বাকি ৫ টা পৃষ্ঠা ডাউনলোড করে প্রিন্ট করে নিবেন।
তারপর রোগীর নাম, ঠিকানা, বয়স, জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার ও অন্যান্য সকল তথ্য পূরণের পর, পরিশিষ্ট-২ (ক) পৃষ্ঠাটি ডাক্তার পূরন করবে।
ধরুন আপনি কিডনী রোগী, আপনি একজন যে কিডনী বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছে চিকিৎসাধীন আছে অথবা আপনার রোগ বিষয়ে অবগত ডাক্তার দ্বারা আপনি পরিশিষ্ট-২ (ক) পেইজটি পূরন করবেন। সেখানে ডাক্তার আপনার নাম, আপনার রোগের ধরন লিখে দিয়ে নিজের একটি সীল দিয়ে দিবে, ডাক্তারকে অবশ্যই এই সহায়তার বিষয়ে আগে বিস্তারিত জানিয়ে নিবেন।
তারপর পরিশিষ্ট-২ (খ) ফরমটিতে লিখে দিবেন যে আপনি পূর্বে কিডনি, লিভার, ক্যান্সার রোগের জন্য সরকার থেকে কোন সহায়তা নেননি।

★ PDF ফাইলের ১ম পৃষ্ঠার নির্দেশনা দেখে দেখে ফরমটি সঠিকভাবে পূরন করার পর সেটাকে ১ম গ্যাজেটেড কর্মকর্তার সত্যায়িত সীল নিয়ে সেটা জমা দিবেন আপনার জেলা অথবা উপজেলা সমাজকল্যাণ অফিসে।

★ অবশ্যই মনে রাখবেন, রোগীর নিজ নামে ব্যাংক একাউন্ট থাকতে হবে, রোগী নিজ নাম বাদে অন্যকারো একাউন্ট থেকে এই সহায়তার টাকা তোলা যাবে না।
যথাযথভাবে জমা দেয়ার সকল প্রক্রিয়া শেষে টাকা পেতে আনুমানিক ৩-৪ মাসের মত সময় লাগতে পারে।

*বিদ্রঃ অনলাইনে আবেদন না করে, পিডিএফ ডাউনলোড করে ফরম পূরণ করে নিজ জেলা বা উপজেলায় আবেদন পত্র জমা দিলে বেশি দ্রুত রেসপন্স পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
ছবি : ব্যাংক চেকটি এক ভাই তার মায়ের চিকিৎসা সহায়তার জন্য আবেদন করে পেয়েছিলেন। উনার পেতে সময় লেগেছিল আনুমানিক ৪ মাস।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত