প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যশোরের ঝিকরগাছায় চুরি ও বোমা হামলার মামলায় সিআইডির চার্জশীট

জাহিদুল কবির: যশোরের ঝিকরগাছার জয়কৃষ্ণপুর গ্রামের কেফায়েত হোসেনের বাড়ির ১৫ লাখ টাকার মালামাল চুরি ও বোমা হামলার ঘটনায় জড়িত কাউকে সনাক্ত করা যায়নি। দীর্ঘ তদন্ত শেষে ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে প্রমাণিত না হওয়ায় বিভিন্ন সময়ে আটক তিনজনের অব্যাহতি চেয়ে আদালতে চুড়ান্ত রিপোর্ট জমা দিয়েছে সিআইডি পুলিশ। মামলার তদন্ত শেষে আদালতে এ চার্জশিট জমা দিয়েছন ৬ষ্ঠ তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির পরিদর্শক নজরুল ইসলাম।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, ২০১৭ সালের ২০ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাতে কেফায়েত হোসেন খোকনের স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে রাতে ঘুমিয়ে পড়েন। গভীর রাতে একদল চোর বাড়ির নিচ তলার গেটের গ্রীল ভেঙ্গে ঘরের মধ্যে পবেশ করে। প্রথেমে চোরেরা খোকনের স্ত্রীকে জিম্মি ও পরে বাড়ির সকলকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নগদ টাকা, ৩৩ ভরি ১৪ আনা সোনার গহনাসহ ১৫ লাখ ২০ হাজার টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে যায়। এরপর চোরেরা খোকনের ভাই মহসীনের বাড়িতে ঢুকে টাকা, গহনাসহ ১ লাখ ৫৭ হাজার টাকার মালামাল চুরি করে।

এরমধ্যে চুরির বিষয়টি জানাজানি হলে মসজিদের মাইকে প্রচার করা হয়। গ্রামবাসী চোরদের ধাওয়া করলে বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে কেফায়েত হোসেন খোকনের স্ত্রী মাজেদা বেগম বাদী হয়ে অপরিচিত ব্যক্তিদের আসামি করে ঝিকরগাছা থানা চুরি মামলা করেন। মামলাটি প্রথমে থানা পুলিশ পরে সিআইডি পুলিশ তদন্তের দায়িত্ব পায়। তদন্তকালে চুরির সাথে জড়িত সন্দেহে বিভিন্ন সময়ে তিনজনকে আটক করা হয়। এরা হলো যশোর সদরের ডুমদিয়া গ্রামের সজীব হোসেন, চান্দুটিয়ার আবু বক্কার বাকা ও ঝিকরগাছার নওয়াপাড়ার হারুন অর রশীদ। আটক তিনজনের কাছ থেকে চুরি হওয়ায় কোন মালামাল উদ্ধার বা চুরির সাথে জড়িত এমন কোন সাক্ষ্য প্রমাণ না পাওয়ায় তাদের অব্যহতির আবেদন করে আদালতে এ চুড়ান্ত রিপোর্ট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত