প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মাদারীপুরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে পুলিশসহ আহত ৩৮, আটক ৯

মাদারীপুর প্রতিনিধি: [২] এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার বাজিতপুর ইউনিয়নের মাচ্চর গ্রামে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় পুলিশের এক এএসআইসহ কমপক্ষে ৩৮ জন আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৯ জনকে আটক করেছে।

[৩] শনিবার (১৭ অক্টোবর) রাত ৯টার দিকে রাজৈর উপজেলার বাজিতপুর ইউনিয়নের মাছচর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

[৪] আহত পুলিশরা হলেন- এএসআই এনায়েত হোসেন, কনস্টেবল আবুল খায়ের, বিপ্লব হোসেন, আবু সফুর। বাকি আহতরা হলেন- ফজলে খালাসীর ছেলে নান্নু খালাসী (৩৫), শাহজালাল খালাসীর ছেলে তুষার খালাসী (২১), আয়নাল খালাসীর ছেলে স্বপন খালাসী (১৮), শাহজাহান খালাসীর ছেলে সাজ্জাদ খালাসী (১৫) ও শান্ত খালাসী (১৫), কালাম খানের ছেলে সালাম খান (৩৫), হাবিব খানের স্ত্রী নাসিরুন বেগম (৫৫), মোরশেদ খানের ছেলে রশিদ খান (৪৫), ইদ্রিস খানের ছেলে সিরাজ খান, একতার খানের ছেলে অনিক খান (২০), কালাম খানের ছেলে শাহাদাৎ খান (৩২), মৃত মুজিবুর রহমানের ছেলে মনিরুজ্জামান (৩২), মনিরুজ্জামানের ছেলে কামরুজ্জামান (৪২), সিদ্দিক ঢালীর ছেলে বাবুল ঢালী (২৮), মোনজেদ খানের ছেলে আসাদ খান (২৯), শাহ আলম খানের স্ত্রী রাবেয়া বেগম (৩০), সামাদ মাতুব্বরের ছেলে কামরুল মাতুব্বর (৩০), লোকমান শেখের স্ত্রী ঝর্ণা বেগম (৩২), সবুজ খানের স্ত্রী সাবিনা বেগম (২৩)।

তাদের অধিকাংশের বাড়ি রাজৈর উপজেলার বাজিতপুর ইউনিয়নে।

[৫] আহতদের রাজৈর, মাদারীপুর ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৪ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ১১ রাউন্ড ফাকা গুলিবর্ষণ করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

[৬] পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আধিপত্য নিয়ে মাছচর গ্রামের সান্টু খালাসী সঙ্গে একই গ্রামের সুমন শেখের সাথে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জেরে শনিবার সন্ধ্যায় সুমন শেখের লোকজন সান্টু খালাসীর সমর্থকদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। পরে উভয়পক্ষ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ফাঁকা গুলি নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ।

[৭] এ সময় চার পুলিশসহ উভয়পক্ষের অন্তত ৩৮ জন আহত হয়। তাদেরকে উদ্ধার করে রাজৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদেরকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

[৮] রাজৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শেখ সাদী জানান, খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় পুলিশের এএসআইসহ চার পুলিশ সদস্য আহত হয়। এছাড়া উভয়পক্ষের আরো বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে।

[৯] মাদারীপুর পুলিশ সুপার মোঃ মাহবুব হাসান বলেন, দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ১১ রাউন্ড শর্টগানের গুলি বর্ষণ করে। পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে। দুই পক্ষের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে রাজৈর থানার এক এএসআইসহ ৪ পুলিশ সদস্য আহত হওয়ার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে ৮৫ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা সহস্রাধিক ব্যক্তিকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের

[১০] এ ঘটনায় রাজৈর থানা পুলিশের এসআই আব্দুল মান্নান বাদী হয়ে ৮৫ ব্যক্তিকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এছাড়া ৯’শ থেকে এক হাজার জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। আটক ৯জনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ওই এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ। সম্পাদনা: হ্যাপি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত