প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] চট্টগ্রামে র‍্যাবের পৃথক দুটি অভিযানে ইয়াবা, ফেনসিডিল, গাঁজাসহ আটক ৪

রাজু চৌধুরী : [২] চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া থানা ও ফেনী জেলার পরশুরাম থানা এলাকায় পৃথক দুটি অভিযান পরিচালনা করে ৭,৭৯৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ১৪৬ বোতল ফেন্সিডিল এবং ৯.৮ কেজি গাঁজা উদ্ধারসহ ০৪ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‍্যাব-৭,

[৩] রোববার (১৩ ডিসেম্বর) র‍্যাব-৭, চট্টগ্রাম (মিডিয়া) সহকারী পরিচালক, সহকারী পুলিশ সুপার মাহমুদুল হাসান মামুন জানান, শনিবার ১২ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া থানা ও ফেনী জেলার পরশুরাম থানা এলাকায় পরিচালিত এই পৃথক অভিযানে আনুমানিক ৪৩ লক্ষ ৩৭ হাজার ৫০০ টাকা মূল্যের ৭,৭৯৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ১৪৬ বোতল ফেন্সিডিল এবং ৯.৮ কেজি গাঁজা উদ্ধারসহ ০৪ জন মাদক ব্যবসায়ী’কে আটক করে।

[৪] তিনি জানান গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারে যে, মাদক ব্যবসায়ী সিএনজি যোগে ইয়াকুব দন্ডি হতে চট্টগ্রামের দিকে আসার পথে শনিবার ১২ ডিসেম্বর পটিয়া থানাধীন বরোলিয়া ইউনিয়নের বুধপুরা বাজারস্থ কর্ত্তালা দি ডায়মন্ড টার্চ কে, বি, এস হাই স্কুল রোড মেসার্স মাহে নূর সন্জয়ী স্টোর এন্ড কুলিং কর্ণার এর সামনে একটি বিশেষ চেকপোস্ট স্থাপন করে গাড়ি তল্লাশি করে। ড্রাইভারসহ ১। মোঃ বেলাল (৩২), পিতা- আব্দুস সালাম, মাতা- নুর বেগম, সাং- জঙ্গল খাইন, ইয়াকুব দন্ডী, থানা- পটিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম, ২। মোঃ সুমন (২২), পিতা- আবু তাহের, মাতা- মাছুমা বেগম, সাং- চাকতাই ড্রাম ফ্যাক্টরী, টিকা বিল্ডিং এর ২য় তলা, থানা- বাকলিয়া ৩। মোঃ নজরুল ইসলাম (২৮), পিতা- মৃত হারুন অর রশিদ, মাতা- নুর বেগম, সাং- আসিয়া মির্জাপাড়া (পাচামিয়া মাঝি বাড়ি), থানা- পটিয়াকে আটক করে।

[৫] পরবর্তীতে আটককৃত আসামিদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে তাদের দেখানো ও শনাক্তমতে নিজ ৭,৭৯৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারসহ উক্ত সিএনজিটি জব্দ করা হয়। অপর একটি গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ফেনী জেলার পরশুরাম থানাধীন সুবার বাজার মধুগ্রাম এলাকার গ্রামীনফোন কামাল টেলিকম এর সামনে মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য অবস্থান করাকালীন।

[৬] র‍্যাব-৭ সদস্যরা ধাওয়া করে আসামি ছলিম (৩৬), পিতা- মৃত তাজুল ইসলাম, সাং- মধুগ্রাম, পোষ্ট- সুবার বাজার, থানা- পরশুরাম, জেলা- ফেনী’কে আটক করে। এইসময় দুইটি বস্তা তল্লাশি করে ১৪৬ বোতল ফেন্সিডিল এবং ৯.৮ কেজি গাঁজা উদ্ধারসহ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

[৭] আসামিদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তারা দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন সীমান্তবর্তী এলাকা হতে মাদকদ্রব্য সংগ্রহ করে পরবর্তীতে উক্ত মাদকদ্রব্য বিভিন্ন অভিনব কৌশলে চট্টগ্রাম ও ফেনী জেলাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিক্রয় করে আসছে বলে স্বীকার করেছে বলে জানান এএসপি মাহমুদুুুল হাসান । গ্রেপ্তারকৃত আসামি এবং উদ্ধারকৃত মালামাল পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তে ফেনী জেলার ফেনী পরশুরাম থানা ও চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত