প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] হোসেনপুরে ভাঙ্গা ব্রীজ সংস্কার হয়নি ৭ বছরেও, বাড়ছে সীমাহীন জনদুর্ভোগ!

আশরাফ আহমেদ: [২] কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলায় নামাজিনারী গ্রামে যাতায়তের রাস্তার খালের উপর নির্মিত ব্রীজটি দীর্ঘ সাত বছর ধরে ভেঙা রয়েছে। উপজেলার হাজিপুর বাজার হয়ে বিভিন্ন এলাকার সড়কে সঙ্গে সংযোগ ব্রীজটি খালের উপর ১৯৯৭ সালে নির্মাণ করা হয়। গত ২০১৪ সালে প্রচন্ড বৃষ্টির পানির চাপে ব্রীজের এক পাশের মাটি সরে যায়। দীর্ঘ ৭ বছর হয়ে গেলেও এখনও সংস্কার করা হয়নি। ফলে যানবাহন ও স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রী সহ বিভিন্ন পেশাজীবী মানুষ রয়েছেন চরম ভোগান্তিতে। তাই বর্ষা মৌসুমের আগেই দ্রুত সংস্কারের জন্য ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট জোরালো দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী স্থানীয়রা।


[৩] সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার জিনারী ইউনিয়নের নামা জিনারী, হলিমা টেকাপাড়াসহ কয়েকটি গ্রামের মানুষের যাতায়াতের জন্য গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার খালের উপর ব্রীজটি অবস্থিত। স্থানীয় জনগণের উদ্যোগে বর্ষা মৌসুমে যাতায়াতের সুবিধার জন্য সাঁকো নির্মাণ করা হলেও দীর্ঘ তিন বছর ধরে সে সাঁকোটিও নেই। সামান্য বৃষ্টি হওয়া মাত্রই বন্যা পরিস্থিতি দেখা দেয়। ফলে এই এলাকার শত শত মানুষ পানি বন্ধী হয়ে পড়েন। জীবন জীবিকার তাগিদে এখানকার মানুষ হাজিপুর বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াত করতে হলে বিকল্প হিসাবে ৩ কিলোমিটার রাস্তা পাড়ি দিয়ে গাবরগাও হয়ে হাজিপুর বাজার যেতে হয়। ফলে সংস্কারের অভাবে অন্তত ৫ শতাধিক গ্রামবাসী চরম বিড়ম্বনার মধ্যে রয়েছেন। ওইসব এলাকায় উৎপাদিত কৃষিজ ফসল ,শাকসবজি দেশের বিভিন্ন স্থানে রপ্তানি হয় কিন্তু বর্তমানে ব্রীজটি ভেঙে যাওয়ায় পরিবহন সমস্যায় উৎপাদিত ফসল ক্ষেতেই নষ্ট হচ্ছে। ফলে আর্থিকভাবে দারুনভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ওইসব এলাকার বাসিন্দারা।

[৪] নামা জিনারী বাসিন্দা আবুল কালাম বলেন, আমাদের ব্যবসাসহ ভিবিন্ন কাজে প্রতিদিনই হাজিপুর বাজারসহ উপজেলায় যেতে হয়। এতে নানা দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। লোকমান হাকিম পানের বরাজ নিয়ে প্রতিদিন ভ্যান চালিয়ে হাজিপুর বাজারে যান। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ব্রিজটি সংস্কার না হওয়ায় ব্যবসায় অনেক ক্ষতি হচ্ছে। অটোরিকশা চালক লাল মিয়া বলেন, ব্রিজটি ৬ বছর ধরে পড়ে আছে। দ্রুত সংস্কার করা জরুরি।

[৫] গত মার্চ মাসে সরেজমিনে এই ব্রীজটি পরিদর্শন করেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সোহেল ও সাবেক উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ মহীউদ্দিন। কিন্তু অধ্যবধি সংস্করনের আলোর মুখ দেখেনি।

[৬] উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানে মোহাম্মদ সোহেল জানান, ব্রীজটি পরিদশর্ন করেছি। পানিঊন্নয়ন বোর্ডের সহযোগীতার অভাবে বিলম্ব হচ্ছে। তবে অতি দ্রুত ব্রীজটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

[৭] উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ জেড এম জাহিদুর রহমান জানান, ব্রীজটি পরিদর্শনে গিয়ে দ্রুত সংস্কারের ব্যবস্থা করব। সম্পাদনা: হ্যাপি

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত