প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] লিভারপুলকে ২-১ গোলে হারিয়ে ইউরোপার স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখল আর্সেনাল

 

[২]ঘরের মাঠ এমিরেটস স্টেডিয়ামে প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন লিভারপুলকে টেনে মাটিতে নামাল আর্সেনাল। চ্যাম্পিয়নদের ২-১ গোলের ব্যবধানে পরাজয়ের স্বাদ দিয়েছে গানাররা। এই জয়ে ইউরোপা লিগের জায়গার সম্ভবনা টিকিয়ে রাখল আর্সেনাল। লিভারপুল এই হারের মাধ্যমে প্রিমিয়ার লিগে ১০০ পয়েন্ট অর্জনের রেকর্ডটাও হাতছাড়া করল।

[৩]লিভারপুলের শিরোপা নিশ্চিত হয়েছে আগেই, অন্যদিকে অন্ততপক্ষে ইউরোপা লিগে খেলার জন্য লিভারপুলের বিপক্ষে জয়ের বিকল্প ছিল না আর্সেনালের। অল রেডদের জন্য প্রিমিয়ার লিগের বাকি ম্যাচগুলো নিয়মরক্ষার হলেও জয়ের ধারাতেই থাকতে চেয়েছিলেন ইয়্যুর্গেন ক্লপ। আর সেই সঙ্গে প্রিমিয়ার লিগের রেকর্ড গড়া ১০০ পয়েন্ট অর্জনও করতে চেয়েছিল অল রেডরা। অন্যদিকে ইউরোপা লিগে জায়গা করে নিতে এই ম্যাচে জয়ছাড়া অন্য কিছুই ভাবছিল না আর্সেনাল।

[৪]বুধবার (১৫ জুলাই) বাংলাদেশ সময় রাত একটা ১৫ মিনিটে ঘরের মাঠ এমিরেটস স্টেডিয়ামে লিগ চ্যাম্পিয়ন লিভারপুলকে আতিথ্য দেয় আর্সেনাল। লিভারপুলের লিগ নিশ্চিত হলেও নিজেদের জয়ের ধারা ধরে রাখতে দুর্দান্ত পারফর্ম করে চলেছে ইয়্যুর্গেন ক্লপের শিষ্যরা। আর্সেনালের বিপক্ষে মাঠ নামার আগে নিজেদের শেষ ম্যাচে বার্নলির বিপক্ষে অ্যানফিল্ডে ড্র করছিল লিভারপুল আর নিজেদের শেষ ম্যাচে স্পার্সের কাছে হেরেছিল আর্সেনাল।

[৫]লন্ডন ডার্বিতে ঠিক যে ব্যবধানে হেরেছিল আর্সেনাল, লিগ চ্যাম্পিয়নদের ঠিক একই ব্যবধানে হারের স্বাদ উপহার দিল তারা। ঘরের মাঠে ম্যাচের প্রথম দিকেই পিছিয়ে পড়ে গানাররা। ম্যাচের ২০ মিনিটে অ্যান্ড্রিউ রবার্টসনের অ্যাসিস্ট থেকে গোল করে অলরেডদের এগিয়ে নেন সাদিও মানে। এটি চলতি মৌসুমে মানের ১৮তম গোল।

[৬]তবে এদিন যেন ভুলের পসরা সাজিয়ে বসেছিল লিভারপুলের রক্ষণভাগ। ম্যাচের ৩২ মিনিটে ভার্জিল ভ্যান ডাইকের শিশুসুলভ ভুলে লিভারপুলের ডি বক্সে বল পেয়ে যান আলেক্সান্ডার লাকাজেথ। আর গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকারকে একা পেয়ে গোল করতে একদমই ভুল করেননি এই ফ্রেঞ্চ স্ট্রাইকার। লাকাজেথের গোলে ১-১ গোলের সমতায় ফেরে আর্সেনাল।

[৭]ভ্যান ডাইককে আর্সেনাল ফরোয়ার্ড নেলসন তাড়া করলে বল ব্যাক পাস দিয়ে দেন তিনি। তবে ভুল করে বসেন সেখানেই, খেয়াল করেনি যে তার ঠিক পাশেই ডি বক্সের ঠিক বাইরে ওত পেতে আছেন লাকাজেথ। ভ্যান ডাইকের ভুল ব্যাক পাসের সুযোগ নিয়ে বল লুফে নেয় লাকাজেথ আর অ্যালিসনকে কাটিয়ে বল পাঠিয়ে দেন জালে। আর আর্সেনালকে ফেরান সমতায়।

[৮]সমতায় ফেরার ঠিক মিনিট ১২ পরের কথা। আবারও লিভারপুলের রক্ষণের ভুলে বল পেয়ে যায় আর্সেনালের ফরোয়ার্ড রেইস নেলসন। এবার অ্যালিসনকে বোকা বানিয়ে গোল করে ঘরের আর্সেনালকে ম্যাচে প্রথমবারের মতো লিড এনেও দেন। ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক অ্যালিসন ডি বক্সের ভেতর বল পেয়ে সামনের দিকে দাঁড়ানো ডিফেন্ডারকে উদ্দেশ্য করে বল বাড়িয়ে দেন, তবে তা ঠিক ডিফেন্ডার পর্যন্ত পৌঁছতে পারেনি। অ্যালিসনের বাজে ক্লিয়ারেন্সের কারণে ডি বক্সের বাইরে বল পেয়ে যান নেলসন। আর সেখান থেকে একক প্রচেষ্টায় গোল করে দলকে এগিয়ে নেন।

[৯]প্রথমার্ধেই জমজমাট হাই ভোল্টেজ এই ম্যাচটি। প্রথমার্ধেই তিন গোলের দেখা মেলে। আর ৪৫ মিনিট শেষে এমিরেটসে আর্সেনাল এগিয়ে ২-১ গোলের ব্যবধানে। তবে দিতীয়ার্ধে যে গানারদের জন্য কঠিন কিছু অপেক্ষা করছে তা বুঝতে পারছিলেন মিকেল আর্তেতা। তাই তো দলকে সেভাবেই নির্দেশনা দিয়ে দিয়েছিলেন।

[১০]দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই গোল পরিশোধের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে অল রেডরা। আর ম্যাচের ৫৪ মিনিটে সুযোগও আসে মোহাম্মদ সালাহর কাছে, সুযোগ পেয়ে আর্সেনাল ডিফেন্ডার ডেভিড লুইজকে কাটিয়ে বলও মেরেছিলেন গোল বরাবর। তবে আর্সেনাল গোলরক্ষক মার্টিনেজের দৃঢ়তায় তা আর জাল স্পর্শ করতে পারেনি। এরপর ম্যাচের ৭০ মিনিটে আরও একটি সুযোগ পেয়ে যায় অল রেডরা।

[১১]আর্সেনালের ডি বক্সে দুর্দান্ত এক ক্রস থেকে বল পেয়ে যান সালাহ। সজোরে মাথা ছোঁয়াতে পারলেই গোলের প্রবল সম্ভবনা, তবে না সালাহর হেডে জোর খুঁজে পাওয়া গেল না। দুর্বল হেডারে বল লুফে নিলেন গানারদের গোলরক্ষক মার্টিনেজ আর সেই সঙ্গে আবারও গোল বঞ্চিত লিভারপুল। সময় তখন গড়িয়ে যাচ্ছে, আর্সেনাল তাদের রক্ষণভাগকে আরও দৃঢ় করছে। কোনোভাবেই গোল হজম করা চলবে না। তবে লিভাপুলের আক্রমণভাগও নাছড় বান্দা। যে করেই হোক গোল আদায় করতেই হবে।

[১২]তবে এদিনটি ছিল না সালাহ-মানেদের। ম্যাচের ৮৬ আর ৮৯ মিনিটে সালাহ এবং মানের দুর্দান্ত প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলে সব আশায় যেন শেষ হয়ে যায় লিভারপুলের। ৯০ মিনিটে অবশ্য উল্টো আর্সেনাল আরও এক গোল করে বসছিল তবে অবমেয়ংয়ের বাড়ানো বল শট নিতে গিয়ে একটু বেশিই জোর দিয়ে ফেলেছিলেন উইলক। তাই তো আর গোলের দেখা পাওয়া হয়নি আর্সেনালের। তাতে অবশ্য আক্ষেপ নেই গানার শিবিরে। লিভারপুলকে ২-১ গোলের ব্যবধানে হারিয়ে পূর্ন তিন পয়েন্ট নিয়েই মাঠ ছেড়েছে আর্তেতার দল।

[১৩]এই জয়ে ইউরোপা লিগে জায়গা করে নেওয়ার পথেই রয়েছে আর্সেনাল। লিগ টেবিলে ৩৬ ম্যাচ শেষে ৫৩ পয়েন্ট নিয়ে গানারদের অবস্থান ৯’এ। নিজেদের বাকি দুই ম্যাচে জয় আর শেফিল্ড ইউনাইটেড তাদের বাকি তিন ম্যাচের দুটিতে হারলেই আর্সেনালের ইউরোপা লিগে খেলা নিশ্চিত হয়ে যাবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত