প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] রাজধানীতে তালাকপ্রাপ্ত স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী খুন, আদাবরে শিশুর গলাকাটা লাশ উদ্ধার

সুজন কৈরী : [৩] রাজধানীর রায়েরবাজারে শুক্রবার সকালে মেকআপ রোড এলাকার এক বাসায় তালাকপ্রাপ্ত স্বামী মো. সোহাগের (২৯) ছুরিকাঘাতে ঝর্ণা আক্তার (২৬) নামে এক নারী খুন হয়েছেন। ঘটনার পর সোহাগ পলাতক রয়েছেন। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

[৩] এছাড়া আদাবরে শুক্রবার দুপুরে চার মাস বয়সী এক শিশুর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

[৪] ঝর্ণা আক্তার খুনের ঘটনায় মোহাম্মদপুর থানার ওসি আবদুল লতিফ জানান, একমাস আগে ওই দম্পতির সংসার ভেঙে যায়। তাদের ঘরে ১১ বছর ও ৪ বছর বয়সের দুটি কন্যা সন্তান রয়েছে। তালেকের পর ঝর্ণা তার মা, নানী ও তার দুই সন্তাকে নিয়ে মেকআপ রোডে এক বাড়ির নিচতলায় ভাড়া থাকতেন। সোহাগ পেশায় সবজি বিক্রেতা। তালাকের পর সোহাগ অন্য জায়গায় চলে যায়। শুক্রবার সকালে ঝর্নার বাসায় গেলে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে রান্নাঘর থেকে শিল এনে ঝর্নার মাথায় আঘাত করে ও এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে। ঘটনাস্থলেই ঝর্নার মৃত্যু হয়। হত্যায় ব্যবহৃত ছুরিটি ফেলে দিয়ে সোহাগ পালিয়ে যায়। সোহাগের দেশের বাড়ি মাদারীপুরের শিবচরে। আর ঝর্ণার বাড়ি বরিশালের মুলাদীতে। এ ঘটনায় ঝর্ণার পরিবারের পক্ষ থেকে সোহাগকে প্রধান আসামী করে হত্যা মামলা হয়েছে। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

[৫] এদিকে আদাবর থানার ওসি কাজী শাহিদুজ্জামান জানান, আদাবর বাজারের পানির পাম্প সংলগ্ন এক বাড়ি থেকে সাদিয়া নামের চার মাস বয়সী এক শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শিশুটির বাবা শাহজাহান পেশায় শ্রমিক। দুপুর ১২টার দিকে সাদিয়ার বাবা শাজাহান কাজে বেরিয়ে যান। আর মা শিশুটিকে রুমে রেখে দুই তিন ঘর পরে অবস্থিত রান্নাঘরে গিয়ে রান্নার কাজ করছিলেন। ঘরে ফিরে সন্তানকে বিছানায় শোয়া অবস্থায় গলাকাটা দেখাতে পান। পরে পুলিশের খবর দেয়া হয়।

[৬] তবে কী কারণে এ ঘটনা ঘটেছে তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি উল্লেখ করে ওসি জানান, মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। সম্ভাব্য সকল কারণ মাথায় রেখে তদন্ত চলছে। আশা করছি খুব শিগগির ঘাতক গ্রেপ্তার হবে। সম্পাদনা : খালিদ আহমেদ

সর্বাধিক পঠিত