প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ধানের শীষের বিজয় হলে খালেদা জিয়ার মুক্তির পথ তরান্বিত হবে, বললেন এমাজউদ্দীন

শাহানুজ্জামান টিটু: ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালকে নিয়ে বৃহস্পতিবার গণসংযোগ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ও বুদ্ধিজীবী অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ। তিনি জনগণের কাছে তাবিথের জন্য ধানের শীষে ভোট চান। এ সময় ধানের শীষের প্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেন, ‘নির্বাচনের আর মাত্র ৮ দিন আছে। আগামী ৮ দিন খুবই গুরুত্বপূর্ণ সময়। আমাদের কঠিন পরিশ্রম করতে হবে, সতর্ক থাকতে হবে।’

বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) পৌনে ১২টায় রায়েরবাজার প্রেমতলা এলাকা থেকে গণসংযোগ শুরুর আগে সেখানকার নির্বাচনী ক্যাম্পে সংক্ষিপ্ত পথসভায় তারা এ কথা বলেন। এ সময় তাবিথ জানান, ঢাকা উত্তর সিটির ৫৪টি ওয়ার্ডে প্রায় ৩২৫ কিলোমিটারের বেশি পথ হেঁটে গণসংযোগে ব্যাপক সাড়া পেয়েছেন। তিনি বলেন, ১ ফেব্রুয়ারি পরিবর্তনের দিন। ওইদিন জনগণ পরিবর্তনের পক্ষে ভোট দিতে প্রস্তুত।

তাবিথ আউয়াল, বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর ও ধানের শীষের সমর্থকদের ওপর উপর্যুপরি হামলার ঘটনায় গণসংযোগকালে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে ভোটারদের মাঝে।হামলার ঘটনায় তাবিথ আউয়াল, কেন্দ্রীয় নেতা, কাউন্সিলরসহ শতাধিক আহত হয়েছেন। বিনা উস্কানি ও শান্তিপূর্ণ গণসংযোগে এ সব হামলায় শুধু ভোটারদের মাঝেই নয় দেশের সুশীল সমাজ ও সচেতন মানুষ এমনকি দেশের বাইরেও ব্যাপক নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। এ নিয়ে নির্বাচন কমিশনের ওপর ভোটার ও প্রার্থীদের আস্থা আরো কমে গেছে বলে মন্তব্য করেন তারা।

রায়ের বাজারের পথসভায় তাবিথ আউয়াল আরো বলেন, সরকার দলীয় সন্ত্রাসীরা পরিকল্পিতভাবে বারবার হামলার চেষ্টা চালাচ্ছে। তিনি ভোটের মাধ্যমে এসব সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের জবাব দেয়ার জন্য ঢাকাবাসীর প্রতি আহবান জানান।

ধানের শীষের এই প্রার্থী বলেন, জনগণ স্বতস্ফুর্তভাবে বিএনপির পক্ষে আছে। প্রচারণায় সময় জনগণের কাছে গিয়েছি। গণসংযোগে ব্যাপক গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। আমাদের প্রতিপক্ষরা গণজোয়ার দেখে হামলা করছে। এতে দলীয় নেতাকর্মীসহ কাউন্সিলর প্রার্থীও আহত হয়েছেন।

নির্বাচন কমিশনের উদ্দেশ্যে বিএনপির এই মেয়র প্রার্থী বলেন, নির্বাচনী শৃঙ্খলা বজায় রাখতে নির্বাচন কমিশন পদক্ষেপ নিবেন। আমরা নির্বাচন কমিশনের আশ্বাস নয়, দৃশ্যমান পদক্ষেপ দেখতে চাই।

প্রচারণায় অংশ নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. এমাজউদ্দীন বলেন, ‘ধানের শীষ খালেদা জিয়া, তারেক রহমান ও জনগণের প্রতীক। আপনারা তাবিথ আউয়ালকে ভোট দিয়ে জয় যুক্ত করুন।’ তরুণ প্রজন্মের প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এখন তোমাদের সময়। তোমরা তোমাদের যোগ্য নেতাকে বেছে নিবে। তাবিথ ধানের শীষের যোগ্য প্রার্থী।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা যে জন্য দেশ স্বাধীন করেছি তা এখন হারিয়ে গেছে। কথা বলার অধিকার নেই। স্বাধীনভাবে চলাচলের অধিকার নেই। কথা বলার অধিকার আদায় করতে হবে। আর অধিকার আদায় করতে হলে আমার সন্তানতুল্য তাবিথ আউয়াল আমাদের যে দায়িত্ব নিতে চাচ্ছে তা পালনে তার জন্য ভোটারদেরকে সুযোগ দিতে হবে। এসময় তিনি আরো বলেন, ধানের শীষ বিজয় হলে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির পথ তরান্বিত হবে।’

এমাজউদ্দীন আহমদ বলেন, ‘আমরা তাবিথ আউয়ালের বিজয়কে দেখতে চাই খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং দেশে গণতন্ত্রহীনতার যুদ্ধাচারের অব্যাহতি হিসেবে। দেশের বর্তমান অবস্থা সুখকর নয়। আমরা কথা বলার স্বাধীনতা হারিয়েছি, আইনের শাসন হারিয়েছি, নারী নির্যাতন, নিপীড়ন সব রেকর্ড ভঙ্গ করেছে এই সরকার। এমন পরিস্থিতি হয়েছে যে, ভাবতেই লজ্জা হয়।’

তিনি বলেন, ‘এখনো আমাদের সন্দেহ আছে, অনেক ষড়যন্ত্র হবে, অন্যায় হতে পারে। আপনারা যদি সাবধান থাকেন, তাহলে আমাদের বিশ্বাস যেভাবে এগোচ্ছে আমরা এই পথ অতিক্রম করতে পারব।’

প্রচারণা আরও অংশ নিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, হাবিবুর রহমান হাবিব, আবুল খায়ের ভূইয়া, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মাদ রহমাতুল্লাহ, নিপুন রায় চৌধুরী, ৩৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মাসুম খান রাজেশ, ৩২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী আব্দুল মতিন, ঢাকা মহানগর উত্তর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম মিল্টনসহ বিএনপি ও তার অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। এছাড়াও সংরক্ষিত নারী আসনে (৩১, ৩৩, ৩৪নং ওয়ার্ডে) বিএনপির সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী এডভোকেট রুনা লায়লা (চশমা প্রতীক) প্রচারে ছিলেন।

এর আগে মোহাম্মদপুর টাউন হলের সামনে পথসভায় তাবিথ বলেন, ‘সরকার ও নির্বাচন কমিশন তাদের বিপক্ষে পদক্ষেপ নিতে পারে। বিশেষ করে ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে বিমুখ করার চেষ্টা করতে পারে। আমরা যেন ঐক্যবদ্ধ থেকে মনোবল শক্ত রেখে ভোটকেন্দ্রে যাই।’

এরপর তাবিথ আউয়াল মোহাম্মদপুর জাফরাবাদ, পশ্চিম ধানমন্ডি, শংকর, ধানমন্ডির কচিকাচা কণ্ঠ, শেরেবাংলা রোড, শংকর পাঠশালা গলি, মধু বাজার, আবুল হাসেম খান, সাদেক খান সড়ক, মেরীস্টেপ, কাটাসুর, মোহাম্মাদপুর বাসস্টান্ড এলাকায় প্রচারণা চালান।

পরে তাবিথ আউয়াল মহাখালী জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিটের গেইটে গণসংযোগ করেছেন। এসময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, বিএনপি নেতা মফিকুল হাসান তৃপ্তি, খন্দকার আবু আশফাক, আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ প্রচারণায় অংশ নেন। সেখান থেকে সাততলা বস্তি, আইপিএইচ এলাকা, গাউসুল আজম মসজিদ ও ওয়ারলেস গেইট পর্যন্ত প্রচারণা চালান তারা।

এ সময় তাবিথ আউয়াল বলেন, আমরা বিশ্বাস করি, মানুষ পরিবর্তন চায়। ১ তারিখ পরিবর্তনের দিন। আশা করি মানুষ ধানের শীষে ভোট দিয়ে তাদের ভাগ্য পরিবর্তন করবেন।

এসময় তিনি ২০ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপি মনোনীত কাউন্সিলর প্রার্থী মিজানুর রহমান বাচ্চুকে ব্যাডমিন্টন মার্কা ও সংরক্ষিত বিএনপির নারী কাউন্সিলর প্রার্থী পেয়ারা মোস্তফাকে গ্লাস মার্কা এবং নিজের মার্কা ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করার আহ্বান জানান।

আগামীকালের কর্মসূচি: সকাল ১০ টায় খালেদা জিয়ার কনিষ্ঠপুত্র আরাফাত রহমান কোকোর পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বনানী করবস্থানে প্রয়াতের কবর জিয়ারত করবেন তাবিথ আউয়াল। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র আনিসুল হকের কবরও তিনি জিয়ারত করবেন। বেলা ১১ টায় ২১ নং ওয়ার্ডে মধ্য বাড্ডা লুৎফন টাওয়ারের সামনে পথসভা দিয়ে গণসংযোগ কর্মসূচি শুরু। ২২ নং ওয়ার্ডে বনশ্রী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করবেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত