প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নতুন বছরে সংকল্প বাস্তবায়নের ৫উপায়

মাজহারুল ইসলাম : যুক্তরাষ্ট্রের স্ক্যানট্রন বিশ্ববিদ্যালয়ের করা এক গবেষণায় দেখা যায়, মাত্র ৮ শতাংশ মানুষ নতুন বছরে নেয়া সংকল্প বাস্তবায়ন করতে পারেন। আর ৯২ শতাংশ মানুষ নতুন বছরে নেয়া সংকল্প বাস্তবায়ন করতে ব্যর্থ হন।

অথচ আমারা অনেকেই নতুন বছরে নিজেকে বদলানোর সংকল্প করি। সুস্বাস্থ্য অর্জনের বা পয়সা অপচয় কমানোর সংকল্প করি। কিংবা নতুন কোনও অভ্যাস অর্জন বা কোনও বদভ্যাস বর্জনের চেষ্টা করি। সেইসব সংকল্প অর্জনের জন্য আমাদের প্রয়োজন মোটিভেশন বা নিজের মধ্যে উদ্দীপনা সৃষ্টি করা। বিবিসি বাংলা গতকাল এক প্রতিবেদনে সংকল্প বাস্তবায়নের জন্য ৫টি উপায়ের কথা জানিয়েছে।

এর প্রথমটি হচ্ছে, ধীরে শুরু করা। এমন সংকল্প নেয়া যা বাস্তবে মেনে চলা সম্ভব। তাহলেই সাফল্যের সম্ভাবনা বাড়বে। গবেষক মিস ওয়েনস্টেইন বলছেন, বাস্তব জীবনে পরিবর্তন আসে ধীরে। আর মনোবিজ্ঞানী র্যাচেল ওয়েনস্টেইন বলেছেন, নতুন বছরে আমি নতুন মানুষ হয়ে উঠবো, এমন ভাবনার ভিত্তিটাই গরল।

দ্বিতীয়টি হলো, পরিষ্কার বা স্বচ্ছ লক্ষ্য। আমরা অনেক সময় লক্ষ্য স্থির করার আগে ভাবি না যে, তা ঠিক কীভাবে অর্জন করা যাবে। খুঁটিনাটি পরিকল্পনা খুবই জরুরী। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নিল লিভি বলছেন, জিমে যাবো, এমন সংকল্প করার চেয়ে, মঙ্গলবার বিকালে এবং শনিবার সকালে আমি জিমে যাবো, এমন পরিকল্পনা করলে সাফল্যের সম্ভাবনা বাড়বে।

তৃতীয় উপায়টি হচ্ছে, সমর্থন তৈরি। নিজের সংকল্পের কথা অন্যদের জানানো। সংকল্প বাস্তবায়নে অন্য কাউকে যুক্ত করলে তা অনেক বেশি উদ্বুদ্ধ করবে। ব্রিটেনের ওয়ারইক বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শনের অধ্যাপক ড. জন মাইকেল বলেছেন, সংকল্প সফল হলে অন্যের মঙ্গল হতে পারে আর ব্যর্থ হলে অন্যের ক্ষতি হতে পারে, এমন পরিস্থিতি মানুষকে বিশেষভাবে উদ্বুদ্ধ করে।

চতুর্থ উপায় হলো, ব্যর্থতাকে পেছনে ফেলতে হবে। প্রতিদিনের জীবনে অল্প কিছু পরিবর্তন আনার চেষ্টা করতে হবে। লক্ষ্য অর্জন কঠিন মনে হলে ঠান্ডা মাথায় পরিস্থিতিকে বিশ্লেষণ করতে হবে। কোন কৌশল কার্যকর, কোনটি কাজে লাগছে না, তা বিশ্লেষণ করে বাস্তবমুখী পথ নিতে হবে। জীবনযাপনে সামান্য অদল-বদল অনেক সাফল্য বয়ে আনতে পারে।

পঞ্চম উপায়টি হলো, সংকল্পকে দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্যে রূপ দেয়া। সবচেয়ে ভালো এবং কার্যকরী সংকল্প সেগুলো, যেগুলো দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্যের অংশ। মনোবিজ্ঞানী ড. অ্যান সুইনবোর্ন বলছেন, যারা মনের জোরের ওপর নির্ভর করেন, তাদের ব্যর্থতার সম্ভাবনা বেশি। আর তাই এমন সংকল্প নিতে হবে, যাতে নিজ আগ্রহ রয়েছে। সংকল্প বাস্তবায়নের জন্যে খুঁটিনাটি পরিকল্পনা নিতে হবে। ঝামেলা হলে অন্যের সাহায্য বা পরামর্শ নিতে হবে। সম্পাদনা : তৌহিদ এলাহী

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত