শিরোনাম
◈ আশা করছি কারফিউ দিয়ে এই সমস্যার সমাধান করতে পারবো: আইনমন্ত্রী ◈ সরকারের কাছে 'আট দফা দাবি' কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ◈ শুক্রবারের সহিংসতায় ঢাকায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩২ জনে ◈ এটা অবশ্যই কারফিউ, এটা নিয়ম অনুযায়ীই হবে এবং সেটা শুট অ্যাট সাইট হবে: ওবায়দুল কাদের ◈ কারফিউ’র পরিপত্র জারি ◈ কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা কোটা আন্দোলনকারীদের ◈ ওবায়দুল কাদের কারফিউ জারি প্রসঙ্গে যা বললেন ◈ সারা দেশে কারফিউ জারি, সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত ◈ নরসিংদীর কারাগারে হামলার পর বের হয়ে গেছে কয়েকশ কয়েদি ◈ বাংলাদেশে সহিংসতা ও মৃত্যুর ঘটনায় জাতিসংঘের উদ্বেগ

প্রকাশিত : ২০ নভেম্বর, ২০২৩, ০৯:০০ রাত
আপডেট : ২০ নভেম্বর, ২০২৩, ০৯:০০ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

আগেই বুঝেছিলাম, অস্ট্রেলিয়া জিতবে

ইমতিয়াজ মাহমুদ, ফেসবুক থেকে: টস হওয়ারও আগে আমি কি করে বুঝতে পারলাম যে পুরুষ ক্রিকেট বিশ্বকাপে এইবার অস্ট্রেলিয়া জিতবে? এটা খুব জটিল কোন হিসাব নয়। শক্তির বিচারে অস্ট্রেলিয়া ও ভারত প্রায় সমশক্তির দুইটি দল। আপনি যদি একজন একজন করে খেলোয়াড় ধরে তুলনা করেন তাইলে দেখবেন যে শক্তির বিচারে এরা কাছাকাছি। ভারতের সুবিধা ছিল হোম গ্রাউন্ড, নিজেদের দর্শক, চেনা পিচ ইত্যাদি। অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়রা এমনিতেই ভারতে অনেক ম্যাচ খেলে, তার উপর ওরা প্রায় সবাই আইপিএল খেলে, ভারতের পিচ ওদের অপরিচিত নয়। 

যে জায়গাটায় অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা ভারতের চেয়ে অগ্রগামী, সেটা হচ্ছে প্রফেশনালিজম। আবেগ উচ্ছ্বাস এইসব তো আর মুছে ফেলা যায়না, অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়দেরও নিশ্চয় ব্যক্তিগত আবেগ ইত্যাদি থাকবে। তবে পেশাদারিত্বের সুবিধা হচ্ছে আপনার আবেগ ইত্যাদি আপনার কাজকে ভণ্ডুল করবে না। ফুটবলের জার্মান দল আর ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়া দলের এই বিষয়ে অনেক মিল। এইটা একটা কারণ- পেশাদারিত্ব- যে জন্যে মনে হয়েছে যে আজ অস্ট্রেলিয়া জিতবে। শক্তির বিচার বা অন্য যেসব কারণে অস্ট্রেলিয়া জিতবে বলে অনুমান করেছি সেগুলি আগের ম্যাচেও তো প্রযোজ্য ছিল, সেখানে হেরে টেরে গেল কেন?

এইটাই কথা। আগে ম্যাচগুলিতে হারার কারণে মাঠে ওদের মনোযোগ থাকবে সর্বোচ্চ মাত্রার- যেটা আপনারা অস্ট্রেলিয়ার ফিল্ডিংএর সময় দেখেছেন। আর অস্ট্রেলিয়া জিতবে ভাবার আরেকটা কারণ হচ্ছে বুনো অনুমান এবং সম্ভাব্যতা বা প্রোবাবিলিটি। একটা বিশ্বকাপে পরপর দশটা ম্যাচ জিতে গেছে ভারত একটাও হারেনি, একাদশ ম্যাচটি ফাইনাল, তাইলে হারজিতের অনুমান করতে গেলে আপনি কি অনুমান করবেন? আপনাকে যদি জিজ্ঞাসা করা হয় ভারত কি এই পুরো টুর্নামেন্টে একটা খেলায়ও হারবে না? আপনি কি বলবেন? আমি হলে বলতাম যে না, একটা দুইটা ম্যাচে তো হারতেই পারে। সেই একটা দুইটা ম্যাচই ছিল ফাইনালটা। 

এইবার ভারতের পরাজয়ে বাংলাদেশের অসংখ্য মানুষের উল্লাস ও আনন্দের কারণটা বলবো? বলেই ফেলি। সাম্প্রদায়িকতা। অন্য যেসব কারণ লোকে বলে ইতং বিতং করে সেগুলি হচ্ছে বাজে কথা। মূল কারণ সাম্প্রদায়িকতা। ভারতের সংখ্যাগুরু মানুষ হিন্দু, আর আমাদের এখানে ছোটবেলা থেকেই সাম্প্রদায়িকতা শেখানো হয়। ফলে আমাদের দেশের বিপুলসংখ্যক মানুষ চেতনায় একটা অন্তর্নিহিত ভারতবিদ্বেষ পোষণ করে। মুখে নানারকম কারণ বলে বটে, কিন্তু মুল কারণ ঐটাই, হিন্দু বিদ্বেষ। এটার প্রকাশ রাজনীতিতেও হয়। লোকে ভারত বেড়াতে যেতে পছন্দ করে, শপিং করতে পছন্দ করে, চিকিৎসায় আস্থা পায়- সবই ঠিক আছে। কিন্তু সবশেষে সাম্প্রদায়িকতাও পোষণ করে মনে।

এইসবই আরকি। আমরা তো কাপ জেতার কন্টেন্ডার ছিলাম না, শুধু আর দুই তিনটা খেলায় জিততে পারলেই আনন্দের সীমা থাকতো না। পাকিস্তান ও ভারতের বিরুদ্ধে জিতব আশা করেছিলাম, সেগুলি তো হলোই না উল্টো ডাচদের কাছে হেরে গিয়ে বেইজ্জতির হয়ে গেলাম। যাউকগা, টুর্নামেন্ট শেষ, এইসব আলোচনা আপাতত বাদ। অস্ট্রেলিয়া ও ভারতকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা চ্যাম্পিয়ন রানার্স আপ হওয়ার জন্যে।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়