শিরোনাম
◈ আজ স্বল্প দূরত্বের কিছু যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল করবে: রেলওয়ে ◈ নাশকতাকারীদের ছাড় না দিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে জ্যেষ্ঠ সাংবাদিকদের দাবি ◈ কোটা আন্দোলনের তিন সমন্বয়কের সন্ধান মিলেছে ◈ জনমনে স্বস্তি ফিরে এলেই কারফিউ প্রত্যাহার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ যে কোন সহিংস ঘটনার নিন্দা করে যুক্তরাষ্ট্র: ম্যাথু মিলার ◈ দুষ্কৃতিদের বিষয়ে তথ্য দিয়ে সহযোগিতার অনুরোধ পুলিশের ◈ ঢাকার বাইরের কারফিউ পরিস্থিতি ◈ দুষ্কৃতকারীরা যেখানেই থাকুক তাদের আইনের আওতায় আনা হবে: আইজিপি ◈ ১৮ থেকে ২০ জুলাই তিন দিনে ৯৯৯-এ সোয়া লাখ ফোন কল ◈ কতজন শিক্ষার্থী মারা গেছেন, জানতে সময় লাগবে: শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিত : ১১ জুলাই, ২০২৪, ০৪:২৭ দুপুর
আপডেট : ১১ জুলাই, ২০২৪, ০৪:২৭ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

তেল, পারমাণবিক শক্তি ও টেকসই বাণিজ্য: পুতিন-মোদি শীর্ষ বৈঠকের মূল ফলাফল

রাশিদুল ইসলাম: [২] দ্বিপাক্ষিক আলোচনার পর, মস্কো ও নয়া দিল্লি অর্থনৈতিক সম্পর্ককে আরও জোরদার এবং ইউরেশীয় ভূ-রাজনৈতিক ল্যান্ডস্কেপকে নতুন আকার দিতে পারে এমন প্রকল্পগুলিকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। আরটি

[২] ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে ২২ তম বার্ষিক দ্বিপাক্ষিক সম্মেলনের জন্য ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মস্কোতে দুদিনের সফরের ফলে শক্তি এবং প্রতিরক্ষা সহযোগিতা, বাণিজ্য, স্থান এবং সংযোগের মতো ক্ষেত্রগুলিকে কভার করে একটি যৌথ বিবৃতি দেওয়া হয়েছে।

[৩] মস্কো ও নয়াদিল্লি নয়টি পৃথক চুক্তি স্বাক্ষর করেছে, এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে আন্তঃসীমান্ত বিনিয়োগের প্রচার, ২০২৯ সাল পর্যন্ত রুশ দূরপ্রাচ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, জলবায়ু পরিবর্তন এবং কম কার্বন উন্নয়নে সহযোগিতা।

[৪] রাশিয়া এবং ভারত ২০৩০ সালের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যে ১০০ বিলিয়ন ডলারে বৃদ্ধি করতে সম্মত হয়েছে। পূর্বে এ লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২০২৫ সালের মধ্যে ৩০ বিলিয়ন ডলার। ২০২৩ সালে, দেশদুটির মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ৬৫ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে, যা তেল ক্রয়ের বৃদ্ধির কারণে চালিত হয়েছে। অথচ রাশিয়ায় ভারতীয় রপ্তানি ৫ বিলিয়নেরও কম ছিল। 

[৫] প্রেসিডেন্ট পুতিনের শীর্ষ অর্থনৈতিক উপদেষ্টা মাকসিম ওরশকিন বলেন, টেকসই বাণিজ্য ও বিনিয়োগ নিশ্চিত করার জন্য নিরাপদ অবকাঠামো দুই দেশের জন্য ‘একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়’। 

[৬] ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বিনয় মোহন কোয়াত্রার মতে, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের জন্য ১০০ বিলিয়ন ডলারের লক্ষ্যমাত্রা হল ‘প্রথমত, বৃহত্তর অর্থনৈতিক সম্পর্কের জন্য উচ্চাকাঙ্খায় দুই নেতার অভিব্যক্তি। বাণিজ্যিক বৈচিত্র বৃদ্ধির জন্যে অত্যন্ত স্পষ্ট নির্দেশনা।

[৭] উভয় দেশ কয়লার সরবরাহ বৃদ্ধি এবং রাশিয়া থেকে ভারতে অ্যানথ্রাসাইট কয়লা রপ্তানির সুযোগ অন্বেষণ করতে সম্মত হয়েছে। কোয়াত্রা উল্লেখ করেন যে রাশিয়া থেকে ভারতের তেল আমদানি কেবল দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য নয়, ভারতের শক্তি সুরক্ষার ক্ষেত্রে এটি একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

[৮] রাশিয়া এখন পর্যন্ত একমাত্র বিদেশী দেশ যা ভারতে পারমাণবিক শক্তি উৎপাদন ক্ষমতা তৈরিতে জড়িত। ভারতের দক্ষিণাঞ্চলে ৬০০০ মেগাওয়াট কুদানকুলাম এনপিপি নির্মাণে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে। 

[৯] মস্কো এবং নয়াদিল্লি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উপাদানগুলির স্থানীয়করণ এবং যৌথ উৎপাদনের পাশাপাশি তৃতীয় দেশে অপারেটিং প্রকল্পগুলি নিয়েও আলোচনা করেছে। ভারত ইতিমধ্যে বাংলাদেশে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের জন্য রোসাটমের প্রকল্পে অংশ নিচ্ছে।

[১০] মস্কোর অ্যাটম প্যাভিলিয়ন সফরের সময়, দুই নেতা পারমাণবিক শক্তি চালিত বরফ ভাঙার এবং ভাসমান পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র সহ বিভিন্ন পারমাণবিক শক্তি প্রযুক্তি এবং প্রকল্পের বিশদ বিবরণ দেখেন। রোসাটমের মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচেভ মোদিকে জানান, ভারতকে ছোট পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র সরবরাহ করতে পারে তার দেশ। 

[১১] যৌথ বিবৃতিতে ভারতের প্রতিরক্ষা স্বয়ংসম্পূর্ণতার জন্য রুশ অংশীদারিত্বটি নিশ্চিত করতে যৌথ সামরিক সহযোগিতা কার্যক্রমের গতি বজায় রাখার কথা বলা হয়েছে। এছাড়া দুই দেশ চেন্নাই-ভ্লাদিভোস্টক (ইস্টার্ন মেরিটাইম) করিডোর এবং ইরান হয়ে আন্তর্জাতিক উত্তর-দক্ষিণ পরিবহন করিডোর বাস্তবায়নের ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়