শিরোনাম

প্রকাশিত : ১৪ মে, ২০২৪, ১২:৪৭ দুপুর
আপডেট : ১৪ মে, ২০২৪, ০৫:২১ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

নিউরোলজি ও নিউরো সার্জারি বিষয়ক হাসপাতাল নির্মাণে ২৩১ কোটি টাকা ব্যয়

শাহীন খন্দকার: [১] রাজধানীর আগারগাঁও বিশ্বের উন্নত হাসপাতালের আদলে গড়ে তোলা হাসপাতালটি চালু হয়, ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে। সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে নির্মিত এই হাসপাতালের প্রকল্প গ্রহণ করা হয় ২০০৩ সালে। তবে দীর্ঘদিন পরিকল্পনায় আটকে থাকার পর ২০০৯ সালে শুরু হয়, হাসপাতাল নির্মাণ কার্যক্রম পুনরায়। হাসপাতালে ঢুকতেই বামদিকে নির্মাণাধীন নতুণ আরেকটি ভবনও নির্মাণ হচ্ছে।

[২] দেশের বৃহত্তম এই নিউরোলজি ও নিউরো সার্জারিবিষয়ক পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসা সেবার হাসপাতালটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ২শ ৩১ কোটি টাকা। চিকিৎসার পাশাপাশি প্রতিবছর নিউরোলজি ও নিউরো সার্জারি বিষয়ক উচ্চতর ডিগ্রিধারী বিশেষজ্ঞ তৈরিতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে এই প্রতিষ্ঠানটি। হাসপাতালের একাধিক সুত্রে জানা গেছে এই তথ্য। 

[৩] নতুন ৫০০ শয্যাবিশিষ্ট ভবনটিও হতে চলেছে এই হাসপাতালের অংশ। মূল ভবনের সিঁড়ির বাম পাশে টিকিট কাউন্টার। পাশেই ফার্মেসি। সেখান থেকে দেওয়া হচ্ছে, সরকারি বিনামূল্যের ওষুধসহ অত্যাধুনিক সেবা। কাউন্টারে এসে রোগীদের যেন হয়রানি শিকার না হতে হয়, সে জন্য আছে বিশাল বোর্ডে সরকারি ওষুধের তালিকা। 

[৪] এছাড়াও ইমার্জেন্সিতে আসা রোগীদের জন্য স্ট্রেচার ও হাঁটাচলা করতে না পারা, রোগীদের জন্য রাখা আছে পর্যাপ্ত হুইল চেয়ার। হাসপাতালের লবি থেকে হাতের বামে ইমার্জেন্সি ও ডানে বহিঃবিভাগ। এক কথায় হাসপাতালটি সাজানো গোছানো ও সুন্দর।

[৫] পরিচ্ছন্ন পরিবেশে,উন্নত মেশিনারিজ আর কর্মকর্তা-কর্মচারিদের সেবামূলক আচরণে এক অনন্য উদাহরণ সৃষ্টি করেছে, রাজধানীর আগারগাঁওয়ের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস ও হাসপাতাল। সরকারি বিশেষায়িত এই হাসপাতালে কম খরচে উন্নত চিকিৎসা সেবা পাওয়ায় খুশি সেবা নিতে আসা রোগী ও তার স্বজনেরাও।

[৬] প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা হয় কুমিল্লার দেবীদ্বারের ফুলজান বেবীর তিনি জানান, দেশেই এখন অত্যাধুনিক সেবা। তার মেয়ে আয়শা (১৬) কে নিয়ে অনেকে ভারতে যেতে বলেছেন, কিন্ত অর্থাভাবে যেতে পারি নাই। প্রতিবেশীর পরামর্শে ঢাকার আগারগাঁও এই হাসপাতালের ঠিকানা দিলে চলে আসি এবং এখানকার চিকিৎসকদের চিকিৎসায় এবং ঔষধে আয়শাকে নিয়ে আজ বাড়ি ফিরে যাচ্ছি সুস্থ করে।

[৭] তিনি আরও বলেন, হাসপাতাল সিসি ক্যামেরায় সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণে থাকায় নেই দালালের উৎপাত। ওয়ার্ড বয়, স্ট্রেচার বয় ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারিদের ব্যবহারেও আছে সেবা দেওয়ার মানসিকতা। কম খরচে এমন উন্নত স্বাস্থ্যসেবা দিতে পারায় মাত্র ১০ বছরের মধ্যেই সুনাম কুড়িয়েছে দেশ জুড়ে এই ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস হাসপাতাল।

[৮] হাসপাতালের সুত্র জানিয়েছে, শয্যা সংখ্যার অপ্রতুলতায় ফিরিয়ে দিতে হচ্ছে অনেকরোগী। তবে আশার কথা হলো, পাশেই ৪শ ৫০ শয্যা থেকে ৯শ ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণের কাজ এখন অনেকটাই দৃশ্যমান। পুরোপুরি কাজ শেষ হলে সে আক্ষেপ অনেকটাই আশা করছেন সবাই। ইতিমধ্যেই মুল হাসপাতালে চালু হয়েছে, অত্যাধুনিক ১০০ শয্যা বিশিষ্ট স্ট্রোক ইউনিট। জানা যায়, অত্যাধুনিক এই স্ট্রোক ইউনিটে স্ট্রোক হওয়ার চার থেকে ছয় ঘণ্টার মধ্যে রোগীকে নিয়ে আসতে পারলে লাঘব করা যাবে পঙ্গুত্বসহ নানা শারীরিক সমস্যা।

[৯] এছাড়া ও রয়েছে মাথাব্যথা, এপিলেপসি, মুভমেন্ট ডিসঅর্ডার ক্লিনিক। নিউরোলোজি, নিউরোসার্জারি, পেডিয়াট্রিক নিউরোলজি, পেডিয়াট্রিক নিউরোসার্জারি, নিউরোফিজিওলজি, নিউরোইন্টারভেনশন, নিউরোরিহাবিলিটেশন, নিউরোরেডিওলজি, নিউরোপ্যাথোলজি, ট্রান্সফিউশন মেডিসিন, ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিট এবং মেডিসিনসহ আরও বেশ কিছু বিভাগ। আছে অপারেশন থিয়েটার, ক্যাথ ল্যাব, ল্যাবরেটরি সার্ভিস ও আইসিইউর মতো জরুরি প্রয়োজনীয় সেবা দেওয়ার ব্যবস্থাও। সম্পাদনা: রাশিদ 

এসকে/আর/এইচএ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়