শিরোনাম
◈ সাংবাদিকরা চাষাবাদ করছেন কি না, দেখার দায়িত্ব পেলেন শাইখ সিরাজ ◈ মালদ্বীপে আবার জাহাজ পাঠাল চীন  ◈ কারামুক্ত বিএনপি নেতা আলালের স্বাস্থ্যের খোঁজ নিলেন মঈন খান ◈ গাজায় যুদ্ধ নয়, গণহত্যা চলছে: প্রধানমন্ত্রী ◈ শুক্রবার বিশ্বে বাতাস দূষণের তালিকায় ঢাকা ছিল সপ্তম ◈ মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে নির্বাচন  নিয়ে কেউ প্রশ্ন করেনি: প্রধানমন্ত্রী ◈ লোহিত সাগরে হামলায় ব্যবহার করা হবে সাবমেরিন অস্ত্র: হুথি নেতা  ◈ ২১ বলে সেঞ্চুরি করে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন আসজাদ ◈ যারা সরকার উৎখাত করতে চায়, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি তাদেরই কারসাজি: প্রধানমন্ত্রী ◈ খতনা করাতে গিয়ে শিশুর মৃত্যু: ৩ চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বিএমডিসিকে নির্দেশ

প্রকাশিত : ২৭ মার্চ, ২০২৩, ০৬:৫৩ বিকাল
আপডেট : ২৭ মার্চ, ২০২৩, ০৬:৫৩ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

তরমুজের বাম্পার ফলন

কৃষকের হাসি কেড়ে নিচ্ছে দালালরা

তরমুজের বাম্পার ফলন

ফরহাদ হোসেন, ভোলা: জেলায় আবহাওয়া ও মাটি অনুকূল থাকায় চলতি বছরে বিপুল তরমুজ উৎপাদন হয়েছে। তবে কৃষকের মুখের হাসি কেড়ে নিচ্ছে স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী দালালরা। তাদের প্রতিটি তরমুজের বিপরীতে দিতে হচ্ছে ৭ থেকে ১০ টাকা। আর এদের কারণে সরাসরি বেপারীদের কাছে বিক্রি কিংবা মোকামে তরমুজ পাঠাতে পারছেন না কৃষকরা।

ভোলা তরমুজ চাষের জন্য বেশ উপযোগী। যে কারণে গত বছর বেশ ভালো ফলন আর দাম পেয়েছেন কৃষকরা। গত বছর  লাভবান হয়ে কৃষকরা চলতি বছর আরও বেশি জমিতে তরমুজের চাষাবাদ করেছেন। গত বছরের চেয়ে এবার সাত হাজার হেক্টর বেশি জমিতে তরমুজের চাষাবাদ হয়েছে। চলতি মৌসুমে জেলার সাত উপজেলায় ১৮ হাজার ৩৮৩ হেক্টর জমিতে তরমুজের আবাদ হয়েছে। হেক্টরপ্রতি তরমুজ উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫২ টন করে। আর মোট তরমুজ উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা হাতে নেওয়া হয়েছে ৯ লাখ ৪৮ হাজার ৩৭৬ টন।

বর্তমানে কৃষকদের মুখে হাসি থাকার কথা থাকলেও প্রভাবশালী দালালের কারণে রয়েছে চরম ক্ষোভ। একটি তরমুজের পেছনে ৭০ থেকে ৮০ টাকা খরচ থাকলেও মাঠে বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১১০ টাকা দরে। আর স্থানীয় প্রভাবশালী দালালদের দিতে হচ্ছে ৭ থেকে ১০ টাকা করে। নিজের ফসল নিজে বিক্রি কিংবা গাড়িতে তুলে দিতে পারছেন না কৃষকরা। সবই দালালদের মাধ্যমেই দিতে হচ্ছে বলে প্রতারণার পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন অসহায় কৃষকরা।

চরফ্যাশন উপজেলার চরকলমী ইউনিয়নের একাধিক তরমুজের ক্ষেতে গেলে একই ধরনের সমস্যার কথা বলেন তরমুজ চাষিরা।

চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে চাষী মো. রফিকুল ইসলাম, মো. বেল্লাল হোসেন ও মো. শরীফ বলেন, ‘রোদে পুড়ে চাষাবাদ করি। লোন আর ধার-দেনা করে ফসলাদি ফলাই একটু আয় করবে বলে। অথচ স্থানীয় নেতা আর প্রভাবশালী ব্যক্তি যারা দালালী করে এদের জন্য পারছি না। আমার ফল আমি ক্ষেত থেকে কেটে মাথায় করে ট্রাকে পৌছে দিব এবং ২/৪ টাকা লাভবান হব।

অথচ তা পারছি না,কারণ এসব দালালকে দিতে হবে। আমার তরমুজ আমি দাম দিতে পারি না, এরা এসে দাম ধরে বিক্রি করছে। লেবার তারা দিবে। আমাদের উপর জুলুম করছে এই স্থানীয় নেতা ফেতারা। চাষাবাদ করি আমরা আর এরা এসে ফাও টাকা নিয়ে যায়। আমাদের তরমুজ সরাসরি বেপারির কাছে আমরা বিক্রি করব এবং ক্ষেতেই টাকা যাতে পাই ‘এ জন্য আমরা প্রশাসনের কাছে সহযোগিতা কামনা করছি।’

এদিকে তরমুজের ক্ষেতে কৃষকদের সঙ্গে কথা বলা দেখে ছুটে আসেন স্থানীয় প্রভাবশালী (দালাল) চর কলমী ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার মো. আবুল বাশার বাচ্চু এবং একই ইউনিয়নের যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন।

তাঁদের সঙ্গে কথা বললে তাঁরা বলেন, ‘কৃষকরা সরাসরি বিক্রি করছে না। গাড়ির চালক কিংবা বেপারিরা কৃষকদের বিশ্বাস করছে না বলেই আমরা সহযোগিতা করছি। তাতে আমরাও লাভবান হচ্ছি। ক্ষেত থেকে আমাদের লোক দিয়ে ট্রলার কিংবা ট্রাকে তুলে দিচ্ছি। তাতে তরমুজ প্রতি সাত-আট টাকা দিচ্ছে আমাদের।’

দালালরা অসহায় মানুষদের প্রতারণা করে কৃষকদের কাছ থেকে লোড-আনলোডের নামেও টাকা আদায় করছে বলে স্বীকার করে নিলেন স্থানীয় এই দালালরা।

অপরদিকে বাম্পার ফলনের কথা জানিয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ এফ এম শাহাবুদ্দিন বলেন, ‘তরমুজের ক্ষেতে পোকার আক্রমণ হয়েছে, তবে এ জন্য কৃষকদের আমরা প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকি। এ ছাড়া সাড়ে নয় লাখ মেট্রিক টন তরমুজ উৎপাদন হয়েছে জেলায়।’

তবে পরিবহণ ব্যবস্থা এবং প্রতারণা না হলে কৃষকরা আরও লাভবান হবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। সম্পাদনা: ইস্রাফিল ফকির 

প্রতিনিধি/আইএফ

 


ফরহাদ হোসেন, ভোলার: জেলায় আবহাওয়া ও মাটি অনুকূল থাকায় চলতি বছরে বিপুল তরমুজ উৎপাদন হয়েছে। তবে কৃষকের মুখের হাসি কেড়ে নিচ্ছে স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী দালালরা। তাদের প্রতিটি তরমুজের বিপরীতে দিতে হচ্ছে ৭ থেকে ১০ টাকা। এদের কারণে সরাসরি বেপারীদের কাছে বিক্রি কিংবা মোকামে তরমুজ পাঠাতে পারছেন না কৃষকরা।

ভোলা তরমুজ চাষের জন্য বেশ উপযোগী। যে কারণে গত বছর বেশ ভালো ফলন আর দাম পেয়েছেন কৃষকরা। গত বছর  লাভবান হয়ে কৃষকরা চলতি বছর আরও বেশি জমিতে তরমুজের চাষাবাদ করেছেন। গত বছরের চেয়ে এবার সাত হাজার হেক্টর বেশি জমিতে তরমুজের চাষাবাদ হয়েছে।

চলতি মৌসুমে জেলার সাত উপজেলায় ১৮ হাজার ৩৮৩ হেক্টর জমিতে তরমুজের আবাদ হয়েছে। হেক্টরপ্রতি তরমুজ উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫২ টন করে। আর মোট তরমুজ উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা হাতে নেওয়া হয়েছে ৯ লাখ ৪৮ হাজার ৩৭৬ টন।

বর্তমানে কৃষকদের মুখে হাসি থাকার কথা থাকলেও প্রভাবশালী দালালের কারণে রয়েছে চরম ক্ষোভ। একটি তরমুজের পেছনে ৭০ থেকে ৮০ টাকা খরচ থাকলেও মাঠে বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১১০ টাকা দরে। আর স্থানীয় প্রভাবশালী দালালদের দিতে হচ্ছে ৭ থেকে ১০ টাকা করে। নিজের ফসল নিজে বিক্রি কিংবা গাড়িতে তুলে দিতে পারছেন না কৃষকরা। সবই দালালদের মাধ্যমেই দিতে হচ্ছে বলে প্রতারণার পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন অসহায় কৃষকরা।

চরফ্যাশন উপজেলার চরকলমী ইউনিয়নের একাধিক তরমুজের ক্ষেতে গেলে একই ধরনের সমস্যার কথা বলেন তরমুজ চাষিরা। চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে চাষী মো. রফিকুল ইসলাম, মো. বেল্লাল হোসেন ও মো. শরীফ বলেন, ‘রোদে পুড়ে চাষাবাদ করি। লোন আর ধার-দেনা করে ফসলাদি ফলাই একটু আয় করবে বলে।

অথচ স্থানীয় নেতা আর প্রভাবশালী ব্যক্তি যারা দালালী করে এদের জন্য পারছি না। আমার ফল আমি ক্ষেত থেকে কেটে মাথায় করে ট্রাকে পৌছে দিব এবং ২/৪ টাকা লাভবান হব। অথচ তা পারছি না,কারণ এসব দালালকে দিতে হবে।

আমার তরমুজ আমি দাম দিতে পারি না, এরা এসে দাম ধরে বিক্রি করছে। লেবার তারা দিবে। আমাদের উপর জুলুম করছে এই স্থানীয় নেতা ফেতারা। চাষাবাদ করি আমরা আর এরা এসে ফাও টাকা নিয়ে যায়। আমাদের তরমুজ সরাসরি বেপারির কাছে আমরা বিক্রি করব এবং ক্ষেতেই টাকা যাতে পাই ‘এ জন্য আমরা প্রশাসনের কাছে সহযোগিতা কামনা করছি।’

এদিকে তরমুজের ক্ষেতে কৃষকদের সঙ্গে কথা বলা দেখে ছুটে আসেন স্থানীয় প্রভাবশালী (দালাল) চর কলমী ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার মো. আবুল বাশার বাচ্চু এবং একই ইউনিয়নের যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন।

তাদের সঙ্গে কথা বললে তারা বলেন, ‘কৃষকরা সরাসরি বিক্রি করছে না। গাড়ির চালক কিংবা বেপারিরা কৃষকদের বিশ্বাস করছে না বলেই আমরা সহযোগিতা করছি। তাতে আমরাও লাভবান হচ্ছি। ক্ষেত থেকে আমাদের লোক দিয়ে ট্রলার কিংবা ট্রাকে তুলে দিচ্ছি। তাতে তরমুজ প্রতি সাত-আট টাকা দিচ্ছে আমাদের।’

দালালরা অসহায় মানুষদের প্রতারণা করে কৃষকদের কাছ থেকে লোড-আনলোডের নামেও টাকা আদায় করছে বলে স্বীকার করে নিলেন স্থানীয় এই দালালরা।

অপরদিকে বাম্পার ফলনের কথা জানিয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ এফ এম শাহাবুদ্দিন বলেন, ‘তরমুজের ক্ষেতে পোকার আক্রমণ হয়েছে, তবে এ জন্য কৃষকদের আমরা প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকি। এ ছাড়া সাড়ে নয় লাখ মেট্রিক টন তরমুজ উৎপাদন হয়েছে জেলায়।’

তবে পরিবহণ ব্যবস্থা এবং প্রতারণা না হলে কৃষকরা আরও লাভবান হবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। সম্পাদনা: ইস্রাফিল ফকির 

প্রতিনিধি/আইএফ/জেএ

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়