শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৪ নভেম্বর, ২০২২, ১২:৫৫ রাত
আপডেট : ২৪ নভেম্বর, ২০২২, ১১:১৩ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

বাঁশখালীর পুকুরিয়া পরিষদের সচিবের উপর ইউপি সদস্যের হামলার অভিযোগ

ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজ থেকে নেওয়া

বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি: চট্টগ্রামের বাঁশখালী পুকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোহাম্মদ জাকের আহমেদকে পরিষদ কার্যালয়ে দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় একই পরিষদের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আমজাদ হোসেনের হাতে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।  বুধবার দুপুরে পুকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। 

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুধবার রাত ৯টায় রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঘটনার শিকার পরিষদের সচিব মোহাম্মদ জাকের আহমেদ ৫ জন ইউপি সদস্যকে আসামী করে থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে। অপরদিকে পরিষদের ৮জন সদস্য পুকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের  চেয়ারম্যান মো: আসহাব উদ্দিন ও সচিব মোহাম্মদ জাকের আহমদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ এনে ঘটনার পর পরই অভিযোগ দাখিল করেছে।

প্রদত্ত অভিযোগ তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সচিব মোহাম্মদ জাকের আহমদ বুধবার দুপুরে পরিষদের কাজ করা কালীন চেয়ারম্যান অনুপস্থিত ছিলেন । এ সময় ইউপি সদস্যরা পরিষদের বিভিন্ন কাজের তথ্য ও জানতে চাইলে তা নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে পরিষদের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আমজাদ হোসেন সচিবের উপর চড়াও হয় । যা পরিষদের সিসি ক্যামরাতে ধরা পড়ে । পড়ে সে ঘটনায় খবর পেয়ে  চেয়ারম্যান পরিষদে পুলিশ প্রেরন করেন পরে সচিবকে এনে প্রাথমিক চিকিৎসা করিয়ে  উপস্থিত হয়ে বুধবার রাত ৯টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঘটনার শিকার পরিষদের সচিব মোহাম্মদ জাকের আহমেদ ৫ জন ইউপি সদস্যকে আসামী করে থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে। এ ঘটনা পর পরিষদের ৮জন সদস্য  আমজাদ হোসেন, মো: এমদাদ উল্লাহ,মো: ইউনুছ, হাবিবুর রহমান মিয়া, মামুনুর রশিদ, মো:মনির উদ্দীন,ফরিদ আহমদ, মো: ফারুকুজ্জামান  বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদুজ্জামান চৌধুরী বরাবরে অভিযোগ করে পুকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের  চেয়ারম্যান মো: আসহাব উদ্দিন ও সচিব মোহাম্মদ জাকের আহমদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ ও স্বেচ্ছাচারিতার বিচার দাবী করে অভিযোগ করেন এবং বিচার দাবী করেন।

ঘটনার ব্যাপারে পুকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোহাম্মদ জাকের আহমেদ বলেন, আমার চাকুরি জীবনের ৩১ বছরের মধ্যে ২ বছর বাদে বাকি ২৯ বছর পুকুরিয়া পরিষদে চাকরি করছি। কেউ আমাকে এভাবে নাজেহাল লাঞ্চিত করেনি । আমি এর সুষ্ট বিচার ও নিরাপত্তা চাই।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য আমজাদ হোসেন বলেন, পরিষদের সচিব ও আমাদের মধ্যে যে সমস্যা হয়েছে তা আমরা সমাধান করেছি, চেয়ারম্যান এসে সে ঘটনাকে ভিন্নখাতে নিয়ে যাচ্ছে তাদের নানা অপকর্মের যাতে কোন বিচার করার সুযোগ না পায়।

পুকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের  চেয়ারম্যান মো: আসহাব উদ্দিন বলেন , আজ উপজেলা উন্নয়ন সভা থাকায় আমি পরিষদে ছিলাম না। সচিবের উপর হামলার খবর পেয়ে মিটিং এর শেষে সচিবকে এনে চিকিৎসা করে আইনগত ব্যবস্থা নিতে সহযোগিতা করছি বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ঘটনার ব্যাপারে অভিহিত হয়েছি,সচিব ও ইউপি সদস্যদের পক্ষ থেকে পৃথক অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধীকে শাস্তি নিশ্চিতের ব্যবস্থা করব বলে তিনি জানান।

এদিকে এদিকে বুধবার রাতে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: কামাল উদ্দিন বলেন, ঘটনার পর পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন । অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান। পুকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোহাম্মদ জাকের আহমেদ এর উপর হামলার ঘটনায় বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ সচিব সমিতি বাঁশখালী শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নোভেল ভট্রাচার্য,সম্পাদক হারুনুর রশিদ চৌধুরী এ ঘটনার নিন্দা ও অপরাধীর শাস্তি নিশ্চিত করার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন ।

প্রতিনিধি/এমএএস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়