প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

হাসান শান্তনু: হেলাল হাফিজ কি সত্যিই বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কবিতা লেখেননি?

হাসান শান্তনু: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে ‘কবিতা না লেখায়’ কিংবদন্তি কবি হেলাল হাফিজ আওয়ামী লীগের সরকারের আমলে রাষ্ট্রীয় পুরস্কার পাচ্ছেন না এটা কারো কারো ধারণা। এমন ইঙ্গিতে কেউ কেউ ফেসবুকে স্ট্যাটাসও দিয়েছেন। পাঠকনন্দিত এ কবি জিয়াউর রহমানকে নিয়ে কবিতা না লেখায় বিএনপির সরকারের সময়ও অবহেলিত থাকেন। একসময়ের ‘সমাজতন্ত্রী’ কবি আল মাহমুদ নব্বইয়ের দশকের শুরুতে বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে নিয়ে কবিতা লিখে সরকারি যে সুযোগ-সুবিধা পেয়েছিলেন, হেলাল হাফিজের কবিতা পয়সাবাজির এমন পথে কখনো পা বাড়ায়নি। হেলাল হাফিজের কবিতার সংখ্যা হাতেগোনা। এ তুলনায় প্রয়াত শামসুর রাহমানের কবিতার সংখ্যা অজস্র। শামসুর রাহমান বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে একক, দীর্ঘ কোনো কবিতা লেখেননি, যা ‘দুঃখজনক’ বলে পাঠকদেরও অভিযোগ।

কবি হিসেবে তাকে আওয়ামী লীগের সরকার মূল্যায়িত করেছে। সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র নির্মাণের লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর সরকার বাকশাল গঠন করলে তার প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলা একাডেমির পুরস্কার প্রত্যাখানের ঘোষণা দেওয়া একমাত্র কবি জসীমউদদীন। মেয়ের জামাতা, পরে জাতীয় পার্টি ও বিএনপির নেতা মওদুদ আহমদের পরামর্শে কবি ‘প্রত্যাখ্যানের’ ঘোষণা দিলেও পুরস্কার হিসেবে পাওয়া সরকারি টাকা ফেরত দেননি। তাকে আওয়ামী লীগ কখনোই অবমূল্যায়ন করেনি। একাত্তরে যুদ্ধাপরাধের দায়ে ফাঁসি কার্যকর হওয়া সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী বিএনপি-জামায়াতের জোট সরকারের আমলে জসীমউদদীনের ‘কবর’ কবিতা সম্পর্কে উদ্ভট ব্যঙ্গ করলে আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের বেশ কয়েক নেতা তার প্রতিবাদ করেছিলেন। সত্য হচ্ছে হেলাল হাফিজ বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অসাধারণ কবিতা লিখেছেন, যা তার প্রথম কবিতার বই ‘যে জলে আগুন জ্বলে’তে আছে। ‘নাম ভ‚মিকায়’ শিরোনামের ওই কবিতায় তিনি বলেছেন, বঙ্গবন্ধু বাংলার ‘মানুষের ব্যাকরণ/ জীবনের পুষ্পিত বিজ্ঞান/… সভ্যতার শুভ্রতার মৌল উপাদান’।

তিনি লেখেন- ‘গাভিন ক্ষেতের ঘ্রাণ, জলের কসম, কাক/ পলিমাটি চেনা মানে আমাকেই চেনা। আমাকে চেনো না?/ আমি তোমাদের ডাক নাম, উজাড় যমুনা’। সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে এ কবিতা লেখা হলেও কোথাও তার নাম উচ্চারণ হয়নি। দলবাজ আমলা, যারা কবিতা বোঝেন না, অথচ রাষ্ট্রীয় পুরস্কার দেওয়ার জন্য তালিকা সাজান তাদের বোঝার মতো সহজ করে লিখতে হবে, হেলাল হাফিজের মতো কবিরা কোনোকালে এমন শর্ত মেনে চলেন না। তিনিই একমাত্র কবি, যিনি জলেও আগুন জ্বালাতে পারেন! শুধু বাংলা নয়, পৃথিবীর প্রায় সব রাষ্ট্রের সাহিত্যে এমন কবি বিরল। জন্মদিনে তাকে পাঠকমনের নমিত অভিবাদন। ৭ অক্টোবর ছিলো কবি হেলাল হাফিজের জন্মদিন।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত