প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কুলাউড়ার চা বাগানে অনুষ্ঠিত হলো ঐতিহ্যবাহী কুস্তি খেলা

স্বপন দেব : [২] বৃষ্টির মধ্যে আর্কষনীয় খেলা দেখতে জড়ো হয়েছে দর্শক। আনন্দ উৎসব উপভোগ করতে এসেছেন তারা। মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার হিংগাজিয়া চা বাগানে অনুষ্ঠিত হয়েছে দিনব্যাপী কুস্তি খেলা।

[৩] শুক্রবার দুপুরে শতাধিক দর্শকের উপস্থিতিতে উৎসবের উদ্বোধন করেন বাগানের পন্ডিত বিপ্লব উপধ্যায়। সুর্য অস্তাচলে যাওয়ার আগ পর্যন্ত চলে এ খেলা।

[৪] আয়োজকরা জানান , ভারতের উত্তর প্রদেশ, বিহার রাজ্যে যারা বসবাস করতো তাদেরকে ব্রিটিশরা চা বাগানে কর্মের সংস্থান, আর্থিক স্বচ্ছলা ও উন্নত ভবিষতের আশা দেখিয়ে বাংলাদেশে নিয়ে আসে। ভাগ্যের পরিবর্তন না হলেও তারা তাদের ঐতিহ্যকে ধরে রাখার জন্য শত বছর ধরে এই কুস্তি উৎসব পালন করে আসছে।

[৫] প্রতি বছর শ্রাবণ মাসে নাগপঞ্চমীতে কুস্তি উৎসব হয়। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও এই কুস্তি উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। এইদিনটিকে ঘিরে সারাদিন বাগান এলাকার সবার ঘরে ভালো রান্না হয়ে থাকে, খাওয়া-দাওয়া করে কুস্তি দেখার জন্য তারা সমবেত হয় মাঠে। এই কুস্তিকে জয় পাবার জন্য মাস খানেক আগ থেকেই নিজের শারিরীক কসরতের মাধ্যমে শরীরকে খেলার উপযোগী করে তুলেন করেন কুস্তিগীররা।

[৬] খেলায় অংশগ্রহণকারী শ্রাবন পাশি জানান, সিলেটে চাকরি করেন তিনি । এই দিনটার জন্য অফিস থেকে ছুটি নিয়ে উৎসবে সামিল হয়েছেন। পরিবার বন্ধুদেরকে নিয়ে আজকের দিনটি তার ভালোই কেটেছে। এ উৎসবে কুস্তি ছাড়াও লং জাম্প, হাই জাম্প সহ ভার উত্তোলন খেলাও অনুষ্ঠিত হয়।

[৭] দর্শকরা আজগর আলী জানান , এই লড়াই ছাপিয়ে বন্ধুত্ব ছড়ায় এই কুস্তি খেলায়। সর্বনিম্ন ১০ বছর থেকে ৫০ বছর বয়সের মধ্যে বিভিন্ন কেটাগরিতে ভাগ করে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়ে থাকে এই খেলায়।

[৮] পরাজিত এক কুস্তিগীর বলেন, শত শত দর্শকের ভিড়ে নিজের হার দেখা অনেক খারাপ লাগে। তিনি আরও বলেন মর্দাঙ্গি দেখানো পুরো বছরে একবারই সুযোগ পাওয়া যায়। সেইটাতে সবাই বিজয়ী হতে চায়। এই কুস্তিতে যে জয়ী হয় সে আগামী ১ বছরের জন্য সবচেয়ে শক্তিশালী নির্বাচিত হয়ে থাকে।
[৯] বিজয়ী কুস্তিগীর শ্রীকান্ত প্রজাপতি বলেন, আজকের দিনটার জন্য অনেক দিন ধরে অপেক্ষা করছিলাম। আজ আমার বয়সীদের মধ্যে জয়ী হয়ে ভালো লাগছে। এই খেলায় বয়স ভিক্তিতে জয়ী নির্বাচন করা হয়ে থাকে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত