প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] পাটকল শ্রমিকদের বকেয়া পরিশোধে ২১২ কোটি টাকা বরাদ্দ অর্থ মন্ত্রনালয়ের

মাহামুদুল পরশ: [২] রোববার এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) বন্ধ মিলগুলোর ২১ হাজার ৫৫২ জন বদলি শ্রমিকের বকেয়া পাওনা পরিশোধের জন্য ২১২ কোটি আট লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ডেইলিস্টার

[৩] বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যাংকের মাধ্যমে শ্রমিকদের একাউন্টে চলে যাবে। অর্থ মন্ত্রণালয় ‘পরিচালন ঋণ’ বা ‘অপারেশন লোন’ হিসেবে এ অর্থ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। তবে বরাদ্দের অর্থ ২০২১-২২ অর্থবছরের বিজেএমসির অধীন ১৮টি মিলের ২১ হাজার ৫৫২ জন বদলি শ্রমিকের বকেয়া পাওনা পরিশোধ ছাড়া অন্য কোনো খাতে ব্যয় করা যাবে না বলেও শর্ত হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। সময় নিউজ

[৪] এছাড়া আরও কয়েকটি উল্লেখযোগ্য শর্ত হচ্ছে, বদলি শ্রমিকদের বকেয়া পরিশোধের ক্ষেত্রে প্রত্যেক শ্রমিকের মিল থেকে দেওয়া টোকেন ও ইউনিক আইডি নম্বর, এনআইডি ও ব্যাংক হিসাব থাকতে হবে। আবশ্যিকভাবে এনআইডি যাচাই করে ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে বদলি শ্রমিকদের বকেয়া পাওনা পরিশোধ করতে হবে। প্রথমআলো

[৫] কোনোভাবেই এনআইডি এবং ব্যাংক হিসাব ছাড়া বদলি শ্রমিকদের বকেয়া পাওনা পরিশোধ করা যাবে না। বদলি শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধকালে মিল কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের বকেয়া পাওনার বিষয়টি সরকারি বিধি-বিধানের আলোকে পুনরায় যাচাই-বাছাই করে নিশ্চিত হয়ে পরিশোধ করবে। বকেয়া পাওনা পরিশোধকালে পাওনার বিষয়ে কোনো অসঙ্গতি চোখে পড়লে বিজেএমসি বা মিল কর্তৃপক্ষ অবিলম্বে তা সংশোধনের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। জাগো নিউজ

[৬] বরাদ্দ দেওয়া অর্থ ব্যয়ে সরকারের বিদ্যমান বিধি-বিধান অনুসরণ করতে হবে। বিধি বহির্ভূতভাবে কোনো অর্থ পরিশোধ করা হলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা দায়ী থাকবেন। বরাদ্দকৃত অর্থের জন্য অর্থ বিভাগের সঙ্গে বিজেএমসিকে একটি ঋণচুক্তি সম্পাদন করতে হবে বলে উল্যেখ করা হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

[৭] বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, বিজেএমসির বন্ধ মিলগুলো ভাড়াভিত্তিক বা ইজারা (লিজ) পদ্ধতিতে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় চালু আছে। বেসকারি ব্যবস্থাপনায় আবারও চালু করা মিলে অবসায়নকৃত শ্রমিকেরা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কাজের সুযোগ পাবেন। একইসঙ্গে এসব মিলে কর্মক্ষম ও দক্ষ শ্রমিকদের নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে এবং সব শ্রমিককেই পর্যায়ক্রমে পুনর্বাসন করা হবে।

সর্বাধিক পঠিত