প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আমতলী উপজেলার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই শহীদ মিনার!

জিয়া উদ্দিন সিদ্দিকী: রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের ৬৯ বছর ও দেশ স্বাধীন হওয়ার ৫০ বছরেও বরগুনার আমতলী উপজেলার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এখনো নির্মিত হয়নি শহীদ মিনার। ফলে ভাষার জন্য যাঁরা জীবন দিয়েছেন তাঁদের প্রতি যথাযথ শ্রদ্ধা জানাতে পারছে না শিক্ষক- শিক্ষার্থীরা।

অস্থায়ীভাবে কলাগাছ ও বাঁশ দিয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ করে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে থাকেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। উপজেলায় হাতে গোনা কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মিত হলেও সেগুলোর কোনো যত্ন নেওয়া হয় না।

উপজেলা মাধ্যমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানাগেছে, আমতলী উপজেলায় ১৫২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১৩টি নিন্ম মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২১টি দাখিল মাদ্রাসা, ১টি আলিম মাদ্রাসা, ৪টি ফাজিল মাদ্রাসা ও ৫টি কলেজ রয়েছে। এরমধ্যে ১১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২টি কলেজ, ৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয় শহীদ মিনার রয়েছে। উপজেলার কোনো মাদ্রাসায় শহীদ মিনার নেই।

সরেজমিনে উপজেলার বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা জানায়, তাদের বিদ্যালয়ে স্থায়ীভাবে শহীদ মিনার নির্মিত না হওয়ায় ভাষা আন্দোলনে নিহত শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সমস্যা হচ্ছে। বিদ্যালয়ে অস্থায়ীভাবে কলাগাছ ও বাঁশ দিয়ে নির্মিত শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে হয়। তারা সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কাছে তাদের বিদ্যালয়ে স্থায়ীভাবে শহীদ মিনার নির্মাণের জোর দাবি জানিয়েছেন। এছাড়া এই উপজেলার ২১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্থায়ীভাবে শহীদ মিনার নির্মিত হলেও সেগুলোর কোনো যত্ন নেওয়া হয় না বলে জানায় শিক্ষার্থী ও স্থানীয়রা।

বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ শাহজালাল বলেন, যেসব বিদ্যালয়ে স্থায়ীভাবে শহীদ মিনার নির্মিত হয়েছে সেসব শহীদ মিনার সারা বছরই অযত্ন ও অবহেলায় পড়ে থাকে। সারা বছরই এগুলোর যত্ন নেওয়া উচিত।

আমতলী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ মজিবুর রহমান বলেন, উপজেলায় ৮টি বিদ্যালয়ে স্থায়ীভাবে শহীদ মিনার নির্মিত হলেও বাকি বিদ্যালয়গুলোতে এখনো শহীদ মিনার নির্মিত হয়নি।

আমতলী উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মতিয়ার রহমান বলেন, ভাবতেই অভাগ লাগে দেশ স্বাধীন হওয়ার ৫০ বছরেও উপজেলার একটি মাদ্রাসায় ভাষা শহীদদের সম্মানে স্থায়ীভাবে শহীদ মিনার নির্মিত হয়নি। তিনি আরো বলেন, প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মানের উদ্যোগ নেয়া হবে।

আমতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, ভাষা শহীদদের প্রতি যথাযথ শ্রদ্ধা- সম্মান, নতুন প্রজন্মের কাছে তাঁদের পরিচিত করতে প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ করা প্রয়োজন। পর্যায়ক্রমে প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

 

সর্বাধিক পঠিত