প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] জনসেবায় ৫১টি মন্ত্রণালয় এবং দপ্তরের মধ্যে বর্ষসেরা নির্বাচিত হয়েছে প্রযুক্তি বিভাগ

  • শরীফ শাওন: [২] বিভাগটি ২০১৯-২০ সালের ৭৬টি কর্মকাণ্ডের মধ্যে ৭২টি শতভাগ অর্জন করে ৯৪.৭৫ পয়েন্ট নিয়ে প্রথমবারের মতো প্রথম স্থান অধিকার করেছে।

[৩] তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব জিয়াউল আলম আরও বলেন, নিজেদের অ্যসেসমেন্ট অনুযায়ী ২০১৪-১৫ সালে আমাদের অবস্থান ছিলো ৩৯তম। ধারাবাহিক ২০১৮-১৯ অর্থবছর পর্যন্ত এই অবস্থান ছিলো যথাক্রমে ৩২, ৩৬, ৪৩ এবং ৫ম তম।

[৪] প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেন, প্রযুক্তি বিভাগের ১০ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই আমরা এ সফলতা পেয়েছি। যে কোন স্বিকৃতি আনন্দের, সেরা হবার স্বিকৃতি অনেক গর্বের। জনসেবা অনলাইন করার মধ্য দিয়ে কাজের সচ্ছতা ও দুুর্নীতি রোধ সম্ভব। প্রতিটি ডিজিটালাইজেশনের পরিকল্পনার পরিমাপ হিসেবে টিসিভি (সময়, খরচ, হয়রানি) ব্যবহার করি। সকলকে ইনলাইন থেকে অনলাইন সেবায় আনার মাধ্যমে খরচ, সময় ও হয়রানি কমানো হবে।

[৫] রোববার সফলতা উদযাপন অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, সফলতার বড় অনুঘটক হিসেবে কাজ করেছে ইগো থেকে বেরিয়ে কাজের পরিবেশ তৈরি করা।

[৬] প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন সেবার ডিজাইনগুলোকে অন্তর্ভূক্তিমূলক করতে হবে। এছাড়াও তিন শ্রেণির জনগণকে টার্গেট করে কর্মপরিকল্পনা তৈরি করতে হয়। প্রথমত, ২০০০ সালের পর যাদের জন্ম, যারা জন্ম থেকেই ইন্টারনেট ও ডিভাইস নিয়ে বেড়ে উঠেছে, তারা সরকারি দপ্তর নয়, বরয় সব সুবিধা হাতের মুঠোয় চায়। দ্বিতীয়ত ২০০০ সালের আগে যাদের জন্ম, যারা দীর্ঘ সময় পর হলেও প্রযুক্তির সঙ্গে যোগ দিয়েছে। তৃতীয়ত এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো তারা যারা ডিজিটালি আনকানেক্টেড। তাদের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের সাথে অ্যাডপ্ট করা।

[৭] ২০২১ সালে ডিজিটাল উপকল্প পুরণের বছর হিসেবে আমরা এবছরই ইন্টার অ্যাপ্রুভাল ডিজিটাল ট্রাঞ্জেকশন প্লাটফর্ম উপহার দিতে চাই। যা আর্থিক খাতে স্বচ্ছ লেনদেনের বৈপ্লবিক অগ্রগতি সাধন করে সকল অনিয়ম ও দুর্নীতি দুর্ণাম রোধে সহায়ক হবে।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত