প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সুড়ঙ্গ শেষের আলোতে পৌঁছাতে দাঁতে দাঁত চেপে সময় পার করতে হবে : ড. জাফর ইকবাল

রায়হান রাজীব : [২] শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এ অধ্যাপক বলেন, এবারের করোনাভাইরাস দুর্যোগে একটা বিষয় বেশ বিচিত্র। এই বিষয়ে যারা সত্যিকারের বিশেষজ্ঞ তারা খুব বেশি মুখ খুলছেন না। কিছু একটা জিজ্ঞেস করলেই তারা বলছেন, এই ভাইরাসটি এতই নতুন যে কেউ এটা সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানে না, আমরাও তাই নিশ্চিতভাবে কিছু বলতে পারছি না। এই সুযোগে ছোট বিশেষজ্ঞ কিংবা গুগোল বিশেষজ্ঞরা মাঠে নেমে পড়েছেন, তারা সবসময়েই সবাইকে জ্ঞান দিয়ে যাচ্ছেন। তাদের জ্ঞানের ভারে পুরো পৃথিবীই মোটামুটি ভারাক্রান্ত।

[৩] এটা সম্পর্কে জানে না বলে মানুষের মনে অযৌক্তিক আতঙ্ক অনেক বেশি। শুধু তাই নয়, যারা পুরো বিষয়টা সম্পর্কে না জেনে শুধু খণ্ডখণ্ড ভাবে জানেন, তারা বিষয়টাও খণ্ডখণ্ডভাবে বিশ্লেষণ করছেন। যারা অর্থনীতিবিদ তারা শুধু অর্থনীতির দিকটা দেখছেন, যারা ব্যবসায়ী তারা শুধু নিজের ব্যবসার কথা চিন্তা করছেন, শ্রমিকদের ভালো-মন্দ নিয়ে তাদের বিশেষ মাথাব্যথা নেই। যারা সমাজ বিজ্ঞানী তারা সমাজের কী অবস্থা সেটা নিয়ে চিন্তা ভাবনা করছেন, মনোবিজ্ঞানীরা মানসিক স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করছেন, শিক্ষাবিদেরা ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া নিয়ে ভাবনা এবং দুর্ভাবনা করছেন এবং ডাক্তার-নার্সরা তাদের কাজ নিয়ে এতই ব্যস্ত যে অন্য কিছু নিয়ে চিন্তাভাবনা করার সময়ই পাচ্ছেন না। সবচেয়ে কঠিন দায়িত্ব এখন রাষ্ট্রনেতাদের, সবার কথা শুনে তাদের এমন একটি সিদ্ধান্ত নিতে হবে যেটি সবকিছুকে সমানভাবে গুরুত্ব দেয়।

[৪] করোনাভাইরাস শুরু হওয়ার পর পৃথিবীর সব দেশেই তার জিনোম সিকোয়েন্সিং শুরু করেছে, ঠিক কেন জানি না আমরা পিছিয়ে ছিলাম। এখন আমাদের দেশে সেটা শুরু হয়েছে। আশা করছি শুধু যে সিকোয়েন্সিং হবে তা নয়, সেই তথ্য বিশ্লেষণ করে এই রোগটির গতিপ্রকৃতির অনেক তথ্য বের করা যাবে। কোভিড-১৯ এর সেরকম কোনো চিকিৎসা নেই, তারপরও সংবাদপত্রে দুটো চিকিৎসার কথা গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশিত হচ্ছে। একটি হচ্ছে আরোগ্য হয়ে যাওয়া রোগীদের রক্ত থেকে প্লাজমা নিয়ে তার অ্যান্টিবডি দিয়ে চিকিৎসা। অন্যটি হলো রেমডেসিভির নামে একটি ওষুধ যার ফলাফল শুধু আলাপ-আলোচনায় নয় মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। এই দুটোই এখন আমাদের দেশে পাওয়া সম্ভব হয়েছে।

[৫] লকডাউনের বিভিন্ন পর্যায়ে কখন কী সিদ্ধান্ত নিতে হবে সেটি আগে থেকে সিমুলেশান করে জেনে নিলে পুরো কাজটি অনেক বিজ্ঞানসম্মত হয়। যে বিষয়টি সম্পর্কে আমরা কিছু জানি না সেটি নিয়ে আমাদের এক ধরনের আতঙ্ক থাকে, বিষয়টি জেনে গেলে আতঙ্ক দূর হয়ে যায়। যত বড় দুর্যোগই হোক বাস্তবমুখী হয়ে সেটার মুখোমুখি হওয়াটাও তখন অনেক সহজ হয়ে যায়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত