প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সিটি নির্বাচনে ভোটের দিন পরিবর্তন সংক্রান্ত রিট খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট

এস এম নূর মোহাম্মদ : শুনানি শেষে মঙ্গলবার বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের বেঞ্চ রিটটি খারিজ করে দেন। আদালত বলেছেন, ঢাকার দুই সিটির নির্বাচনী কার্যক্রম এখন যে অবস্থায় আছে, ভোটের তারিখ পেছানোর কোনো সুযোগ নেই।

আদালতে অশোক কুমার বলেন, ভোটের কেন্দ্র স্কুল-কলেজে হয়। আর সরস্বতীপূজাও হয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে। এ কারণে একই দিনে ভোট ও পূজা হলে সাধারণ মানুষের পূজা উদ্যাপন বাধাগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে। সংবিধানের মূলনীতি ধর্ম নিরপেক্ষতা। নির্বাচন কমিশন এখানে বার বার ব্যঘাত ঘটাচ্ছে। এর আগে রংপুরে দূর্গাপূজার সময় নির্বাচন দেয়া হয়েছে। ইসি বার বার ধর্মীয় কাজে বিঘœ সৃষ্টি করছে, ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত করছে। পূজা-পার্বনের মধ্যে নির্বাচন কোন ক্রমেই গ্রহণ যোগ্য নয়।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল নুর উস সাদিক ও নির্বাচন কমিশনের আইনজীবী তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ক্যালেন্ডারে সরস্বতীপূজার ছুটি ২৯ জানুয়ারি। সুপ্রিম কোর্টের ক্যালেন্ডারেও একই কথা বলা হয়েছে। এখন আর ভোটের তারিখ পেছানোর সুযোগ নেই। কেননা, ২ ফেব্রæয়ারি থেকে এসএসসি পরীক্ষা শুরু হবে। রাষ্ট্রের সু-নাগরিক হিসেবে রাষ্ট্রের বিষয়টি আগে দেখতে হবে।

এদিকে আদেশের পর অশোক কুমার ঘোষ বলেন, আমরা সংক্ষুব্ধ, মর্মাহত ও ব্যথিত। আমরা এই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করবো। আর রানা দাশগুপ্ত বলেন, উচ্চতর আদালতে এসেও যদি এদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা আইনানুগ সঠিক বিচারটি না পায়, তখন আমরা ভাবি ভবিষ্যতটা কোথায়? আমরা যাব কোথায়?

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত