প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মুশফিকুর রহিম ঘৃণিত একাদশে!

স্পোর্টস ডেস্ক : মুশফিকুর রহিম ক্রিকেটে পারফরম্যান্সের পাশাপাশি তার মার্জিত আচরণের জন্য ভক্তদের কাছে প্রিয়। মাঠে কিংবা মাঠের বাইরে সবখানেই তিনি সবার সঙ্গে মার্জিতভাবে কথা বলেন। খুব কম সময়ই তাকে রাগান্বিত হতে দেখা যায়। তারপরও ক্রিকট্র্যাকার নামক ক্রিকেট বিষয়ক একটি ওয়েবসাইট ক্রিকেটে ঘৃণিত একাদশের তালিকায় মুশফিকুর রহিমের নাম রেখেছে। শুধু তিনি নন, এই একাদশে আরো এমন কয়েকজন ক্রিকেটার আছেন যাদের নাম শুনলে আপনি অবাক হবেন। তাহলে চলুন দেখে নেয়া যাক, কারা আছেন এই একাদশে?

১. সালমান বাট: এই তালিকায় প্রথমে আছে পাকিস্তানি ক্রিকেটার সালমান বাটের নাম। দেশটির সাবেক এই ওপেনার তার পারফরম্যান্সের মাধ্যমে বেশ নাম কুড়িয়েছিলেন। কিন্তু ২০১০ সালে তিনি স্পট-ফিক্সিং কা জড়িয়ে তার অর্জিত সুনাম নষ্ট করেন। স্পট-ফিক্সিং কাÐে জড়ানোর পর তিনি ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হন।

২. জেসি রাইডার: এই তালিকায় থাকা আরেক ক্রিকেটার হলেন নিউজিল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার জেসি রাইডার। তিনি একজন বিগ হিটার ছিলেন। তাকে বিশ্বের সেরা ক্রিকেটারদের সঙ্গে তুলনা করা হতো। সুঠাম দেহের অধিকারী ছিলেন রাইডার। ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের সময় ‘লেট নাইট ড্রিংকিং সেশনে’ জড়ানোর কারণে তিনি বিতর্কিত হন। ড্রিংকিং তথা মদ্যপানের জন্য তার ক্যারিয়ারে বিরুপ প্রভাব পড়ে। ২০১৩ সালে একটি বারে মাতালদের দ্বারা তিনি আক্রমণের শিকার হয়েছিলেন।

৩. রিকি পন্টিং: রিকি পন্টিং একমাত্র ক্রিকেটার যিনি তিনবার বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পেয়েছিলেন। কিন্তু এই একাদশে একাধিক অজি ক্রিকেটারকে দেখলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। কারণ তাদের ‘যেকোনো ম‚ল্যে জিততে হবে’ এই মনোভাব অনেক সময় তাদেরকে নীতি বহির্ভ‚ত কাজ করতে তাড়িত করেছে। অধিনায়ক হিসাবে পন্টিং অনেকবার প্রতিপক্ষ দলের ক্রিকেটার কিংবা ম্যাচের আম্পায়ারদের সঙ্গে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় করেন।

৪. গ্রেগ চ্যাপেল: গ্রেগ চ্যাপেলকে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান বলা হয়। কিন্তু ১৯৮১ সালে তিনি ক্রিকেটে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায় লিখেছিলেন। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে একটি ম্যাচে তিনি তার দলের বোলার ট্রেভর চ্যাপেলকে ইনিংসের শেষ বলটি আন্ডারআর্ম করতে বলেছিলেন। শেষ বলে জিততে নিউজিল্যান্ডের প্রয়োজন ছিল ৭ রান।

৫. মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন: তাকে বিশ্বের সর্বকালের অন্যতম সেরা মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান বলা হয়ে থাকে। এই কিংবদন্তির ২২টি টেস্ট সেঞ্চুরি ও সাতটি ওয়ানডে সেঞ্চুরি রয়েছে। তার আন্তর্জাতিক রান ১৫ হাজারের বেশি। কিন্তু নারীঘটিত কারণে বিতর্কিত ছিলেন সাবেক এই ভারতীয় ক্রিকেটার। অনেক মেয়ের সাথে তার সম্পর্ক ছিল বলে বিভিন্ন খবরে উঠে এসেছে। তাছাড়া ২০০০ সালে ম্যাচ-ফিক্সিং স্ক্যান্ডালের সঙ্গে জড়িত থাকার কারণে তিনি ভক্তদের কাছ জনপ্রিয়তা হারান। ২০১১ সালে তার উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে দেয়া হয়েছিল।

৬. মাইকেল ক্লার্ক: ২০১৫ সালে বিশ্বকাপ জয়ের মাধ্যমে ক্যারিয়ারের ইতি টানেন অস্ট্রেলিয়া দলের সাবেক অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক। এই তালিকায় তার নাম আসার কারণ তিনি মাঠে প্রতিপক্ষ দলের খেলোয়াড়দের সঙ্গে বিরূপ আচরণ করেন।

৭. মুশফিকুর রহিম: এই তালিকায় সবচেয়ে আশ্চর্যজনক নামটি হলো মুশফিকুর রহিম। এই তালিকায় তার নাম থাকার পেছনের কারণ হিসাবে ক্রিকট্র্যাকার উল্লেখ করেছে, মুশফিক অপরিপক্ব ও দৃষ্টিকট‚ উদযাপন করে থাকেন। ২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে যখন ভারত হেরেছিল তখন মুশফিক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন। যেটি নাকি ভারতের ক্রিকেট ফ্যানরা ভালোভাবে নিতে পারেননি। মুশফিক পরে তার সেই পোস্ট ডিলেট করে দিয়েছিলেন।

৮. শ্রীশান্ত: শান্তকুমারান শ্রীশান্ত, যিনি শ্রীশান্ত নামেই বেশি পরিচিত ছিলেন ভারতীয় পেসার। ২০০৭ সালে ভারতের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপজয়ী ও ২০১১ সালে ভারতের বিশ্বকাপজয়ী দলের সদস্য ছিলেন তিনি। ২০১৩ সালে স্পট-ফিক্সিং কাÐে জড়িয়ে পড়েন তিনি।

৯. রবীচন্দ্রন অশ্বিন: ভারতীয় ক্রিকেট দলের স্পিনার রবীচন্দ্রন অশ্বিন এবারের আইপিএলে রাজস্থান রয়্যালসের ব্যাটসম্যান জস বাটলারকে ম্যানকাড আউট করেন। বিষয়টি নিয়ে সারাবিশ্বের ক্রিকেট ফ্যানদের মধ্যে ব্যাপক সমালোচনা হয়। সদ্য সমাপ্ত আইপিএলে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের অধিনায়ক ছিলেন অশ্বিন।

১০. মোহাম্মদ আসিফ: ২০০৬ সালে ড্রাগ টেস্টে পজিটিভ ধরা পড়েন পাকিস্তানের সাবেক এই ক্রিকেটার। ২০১০ সালে স্পট-ফিক্সিং কান্ডে জড়ান তিনি। এই কারণে তার এক বছর জেল হয়। ২০১৫ সালে তার উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হলেও তিনি পরে আর ক্রিকেটে ফিরতে পারেননি।

১১. শেন ওয়ার্ন: অস্ট্রেলিয়ার সাবেক এই স্পিনারের সাবেক অজি অধিনায়ক স্টিভ ওয়াহর সঙ্গে খারাপ সম্পর্ক ছিল। অবৈধ বস্তু ব্যবহারের জন্য ২০০৩ সালে ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন তিনি। এই কারণে তিনি ওই বছর বিশ্বকাপ মিস করেছিলেন। তাছাড়া তার বিরুদ্ধে নারীদের হয়রানি করারও অভিযোগ রয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত