শিরোনাম

প্রকাশিত : ১৪ এপ্রিল, ২০২৪, ০৮:৪৮ রাত
আপডেট : ১৪ এপ্রিল, ২০২৪, ০৮:৪৮ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

তরুণ প্রজন্মই অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে ধারণ করে এগিয়ে যাবে : ঢাবি উপাচার্য

শিমুল চৌধুরী ধ্রুব: [২] তরুণ প্রজন্মই মুক্তিযুদ্ধ, অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে ধারণ করে এগিয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এ এস এম মাকসুদ কামাল। রোববার (১৪ এপ্রিল) মঙ্গল শোভাযাত্রায় অংশ নিয়ে এ কথা বলেন তিনি।

[৩] ঢাবি উপাচার্য বলেন, মঙ্গল শোভাযাত্রা প্রতিবারই আমাদের সামনে নতুন প্রতিপাদ্য নিয়ে উপস্থিত হতে অনুপ্রাণিত করে। আমাদের প্রতিপাদ্য অনুযায়ী, আমরা অন্ধকারকে কাটিয়ে আলোর পথে যাব। এটাই হলো আমাদের প্রতিশ্রুতি। এটাই আমাদের প্রত্যাশা তরুণ প্রজন্মের কাছে। এই তরুণ প্রজন্মই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে ধারণ করে সামনের দিকে এগিয়ে যাবে।

[৪] ঢাক-ঢোল বাদ্যের তালে তালে রাজা-রানি, হাতি, পাখি, বড় মুখোশ, গাজীর পটে আঁকা দুটি চিত্র, বনরুই, চাকা, গন্ধগোকুলের প্রতিকৃতি ও টেপা পুতুল ইত্যাদি নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা থেকে বের হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা।

[৫] ‘আমরা তো তিমির বিনাশী’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের আয়োজনে ১৪৩১ সনের বাংলা নববর্ষের মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় সংগীত পরিবেশনের পরপরই রোববার সকাল সোয়া ৯টায় চারুকলা অনুষদ থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা শুরু হয়। শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা শাহবাগ মোড় হয়ে শিশু পার্কের সামনে দিয়ে ঘুরে আবার শাহবাগ হয়ে ছাত্র-শিক্ষক মিলনায়তনে (টিএসসি) হয়ে চারুকলায় ফিরে মঙ্গল শোভাযাত্রার সমাপনী ঘোষণা করেন।

[৬] এ সময় প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা ও সংস্কৃতিবিষয়ক উপদেষ্টা ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী বলেন, ‘মঙ্গল শোভাযাত্রা সারা বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এই মঙ্গল শোভাযাত্রা শুধু বাংলাদেশের নয়, এটি সাড়া পৃথিবীর সম্পদ। বাঙালির যে অপরিমেয় ঐতিহ্য আছে, সেটি ইউনেস্কো আমাদের স্বীকৃতি দিয়েছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী বাঙালি সংস্কৃতির পৃষ্ঠপোষক। তিনি বাঙালি সংস্কৃতিকে আলাদা মাত্রায় নিয়ে যাওয়ার জন্য কাজ করছেন। নববর্ষ ভাতা চালু করা হয়েছে। যাতে আমরা নববর্ষ উদযাপন করতে পারি।’ সম্পাদনা : কামরুজ্জামান

এসবি২

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়