শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৩ জুন, ২০২২, ০৪:২১ দুপুর
আপডেট : ২৩ জুন, ২০২২, ০৪:২১ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ক্যান্সারের বিরুদ্ধে কার্যকর এন্টিবডির বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হচ্ছে

সালেহ্ বিপ্লব: শুধু ক্যান্সার নয়, আরো কিছু রোগের বিরুদ্ধে কার্যকর এই এন্টিবডি। প্রায় দুই দশক আগে এটি উদ্ভাবিত হলেও সম্প্রতি নতুন করে সাফল্যের বার্তা নিয়ে এসেছেন উদ্যোক্তারা। মেডিক্যালএক্সপ্রেসডটকম

ফার্মাসিউটিক্যাল গ্রুপ দাইচি সানকিও এবং অ্যাস্ট্রাজেনেকা যৌথভাবে একটি অ্যান্টিবডি উদ্ভাবন করেছে। সম্প্রতি এর  ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সম্পন্ন হয়েছে। কদিন আগে আমেরিকান সোসাইটি অব ক্লিনিক্যাল অনকোলজির বার্ষিক অনুষ্ঠানে এই ট্রায়ালের ফলাফল শীর্ষ ক্যান্সার বিশেষজ্ঞদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে। 

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কেমোথেরাপির সাথে ব্যবহার করার জন্য নতুন অ্যান্টিবডি চিকিৎসা শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে স্তন ক্যান্সারের রোগীদের চিকিৎসায় অ্যান্টিবডি হিসাবে এনহার্টু  ব্যবহারের অনুমোদন দেয়া হয়েছে,  প্রচুর পরিমাণে এইচইআর-২ প্রোটিনের সমন্বয়ে এই অ্যান্টিবডি তৈরি। 

কম পরিমাণে অ্যান্টিবডিও রোগীদের ক্ষেত্রে ভালো কাজ করে, এতে উপকৃত হয়েছেন এমন লোকের সংখ্যা বাড়ছে।
ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ উইলিয়াম জাকোট বলেন, অ্যান্টিবডি একটি ক্যান্সার কোষের পৃষ্ঠের উপর আটকে থাকে, যেখানে রিসেপ্টর কাজ করে না, অ্যান্টিবডি সেই রিসেপ্টরগুলো হজম করে পুনরায় উৎপাদন করে এবং কেমোথেরাপি সক্রিয় করে।

দক্ষিণ ফ্রান্সের মন্টপেলিয়ারের ক্যান্সার ইনস্টিটিউটের প্রফেসর জাকোট বলেন, ‘কেমোথেরাপি দিয়ে বেঁচে থাকার ক্ষেত্রে আমরা কয়েক দশক ধরে এমন অগ্রগতি দেখিনি।’

তিনি বলেন, যদিও অ্যান্টিবডি থেরাপি প্রযুক্তির একটি জটিল উৎপাদন প্রক্রিয়া রয়েছে, তা সত্ত্বেও এটি সেলুলার থেরাপি প্রযুক্তি ব্যবহার করে চিকিৎসার চেয়ে সহজ।

জাকোট বলেন, অ্যান্টিবডিগুলো ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য বিভিন্ন উপায়ে ব্যবহার করা যেতে পারে। এ গুলো ক্যান্সার কোষ তৈরি বা ইমিউন সিস্টেম নিয়ন্ত্রণ করতে পারে এমন প্রোটিনগুলো ধ্বংস করে।

ফরাসি বায়োটেক ফার্ম ইনঅথারেস কাজ করছে লিউকেমিয়া নিয়ে। এই ক্যান্সারের চিকিৎসায় তাদের উদ্ভাবিত অ্যান্টিবডি এখন ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রথম পর্যায়ে। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান পিয়েরে লাইরায়ে একথা জানান।

তিনি বলেন, কোম্পানির অ্যান্টিবডি ক্যান্সার কোষ ধ্বংসে ‘গাইডেড মিসাইলের’ মতো কাজ করবে। এটির লক্ষ্য হবে কোষের একটি রিসেপ্টর যা আয়রনকে ক্যান্সার কোষে প্রবেশ করতে দেয়। অ্যান্টিবডি তখন একটি বিষ নিঃসরণ করবে যাতে এটি ধ্বংস হয়।

১৯৭৫ সালে বিজ্ঞানী জর্জেস কোহলার এবং সিজার মাইলেস্টাইন ল্যাবরেটরিতে অ্যান্টিবডি উৎপাদন পদ্ধতি উদ্ভাবন করেন। এই আবিস্কারের জন্য তারা ১৯৮৪ সালে চিকিৎসা বিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। এর পর থেকে কয়েক ডজন সিন্থেটিক অ্যান্টিবডি তৈরি করা হয়েছে।

কিছু অ্যান্টিবডি চিকিৎসায় প্রতিরোধমূলকভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে, যেমন অ্যাস্ট্রাজেনেকার ইভুসহেল্ড কোভিড-১৯ এর প্রতিরোধমূলক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। ব্রিটিশ কোম্পানি জিএসকে’র জেভুডি ব্যবহার করা হয় কোভিডের চিকিৎসায়। প্রদাহজনিত রোগের চিকিৎসার জন্যও অ্যান্টিবডি তৈরি করা হচ্ছে, যা এই রোগের নিরাময় ঘটাবে।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়