প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] চৌগাছায় নৌকার প্রার্থীকে বিজয় করতে ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগ

বাবুল আক্তার: [২] যশোরের চৌগাছা পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে বিজয় করতে সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নূর-উদ্দীন আল মামুন হিমেলের পক্ষে প্রচার প্রচারণায় সরব রয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগের সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা।

[৩] ঘুরে দেখা গেছে পৌরসভার প্রতিটি ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের প্রচারণায় মুখরিত হচ্ছে। রাস্তা, গলি সবখানে ছেয়ে গেছে পোস্টারে । তবে নৌকা প্রতীকের কর্মীদের মাঝে উচ্ছ্বাল উদ্দীপনা দেখা গেলেও বিএনপি মনোনীত প্রার্থীর ধানের শীষ প্রতিকের কিছু পোস্টার ও মাইকিং ছাড়া নেতা কর্মীদের দেখা যাচ্ছে না।

[৪] নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী কার্যালয়ে রয়েছে দলের নেতা-কর্মীদের ভিড়। উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ই ব্যবহার করা হচ্ছে নির্বাচনী অফিস হিসেবে। এখান থেকেই পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় প্রার্থীর প্রচারণা পরিচালিত হচ্ছে।

[৫] চৌগাছা পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী নূরউদ্দীন আল-মামুন হিমেলকে পুনরায় জেতাতে ক্ষমতাসীন দলের নেতা কর্মীদের এই মিলনমেলা। নির্বাচনী প্রচারণায় দলীয় নেতা-কর্মীদের উপস্থিতিতে নূর উদ্দীন আল মামুন হিমেল যেন অনেকটাই ভারমুক্ত রয়েছেন।

[৬] আওয়ামী লীগের এক নেতা বলেন, প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাই শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে নৌকার বিজয়ের কোনো বিকল্প নেই। এজন্য সকল ভেদাভেদ ভুলে আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম হাবিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধুরীসহ উপজেলার সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করছেন।

[৭] ৪র্থ ধাপে আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি রোববার চৌগাছা পৌরসভা নির্বাচনে ইভিএম ভোট গ্রহণ করা হবে। মেয়র পদে চার জন প্রার্থী রয়েছেন। অন্য তিনজন হলেন, বিএপির আব্দুল হালিম চঞ্চল (ধানের শীষ), স্বতন্ত্র প্রার্থী মাস্টার কামাল আহমেদ (জগ), এবং শিহাব উদ্দীন (হাতপাখা)।

[৮] উন্নয়নের স্বার্থে দলমত-নির্বিশেষে সবাই নৌকা প্রতীকে ভোট দেবেন বলে আশা করছেন আওয়ামী লীগের নেতারা। তবে তার প্রতিদ্বন্দ্বী তিন প্রার্থী সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন। উপজেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয়ই নির্বাচনী কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

[৯] মুঠোফোনে বিএনপির প্রার্থী আব্দুল হালিম অভিযোগ করে বলেন, ‘ধানের শীষ প্রতীকের পোস্টার ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে। ভোটের দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই শঙ্কিত হচ্ছি। তার পরেও ‘উন্নয়ন বঞ্চিত পৌরবাসি ধানের শীষে ভোট দেওয়ার জন্য মুখিয়ে আছেন। তারা নির্বিঘ্নে ভোটকেন্দ্রে যেতে পারলে ধানের শীষের জয় হবেই’।

[১০] স্বতন্ত্র প্রার্থী মাস্টার কামাল আহমেদের জগ প্রতীকের কোনো নির্বাচনী ক্যাম্প না থাকলেও প্রচার প্রচারণায় সরব রয়েছে তিনি। অবাদ সুষ্ঠ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে তিনি নিশ্চিত বিজয় লাভ করবেন।

[১১] নৌকা প্রতীকের প্রার্থী নুর উদ্দীন আল-মামুন হিমেল বলেন, ভোটাররা এখন অনেক সচেতন। সবাই উন্নয়ন চান। সংসদ ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানও আওয়ামী লীগে। উন্নয়নের জন্য ক্ষমতার চেইন দরকার। ভোটাররা সেই বিবেচনায় দলমত-নির্বিশেষে উন্নয়নের প্রতিক নৌকায় ভোট দেবেন বলে তিনি আশা করছেন।

[১২] এ সম্পর্কে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা জেলার সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা হুমায়ন আহমেদ বলেন, এই উপজেলায় প্রথম ইভিএমে ভোট হবে। যে কারণে আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি মগ ভোটিং (ভোট প্রদান প্রদর্শনী) আয়োজন করা হবে। তিনি আরও বলেন, নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর করতে এবং ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে যেয়ে ভোট দিতে উৎসাহ দেওয়ার জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সম্পাদনা: সারোয়ার জাহান

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত