প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ৮০০ বছর পর আজ বৃহস্পতি ও শনির যুগলবন্দী, দেখা যাবে খালি চোখেই

সালেহ্ বিপ্লব: [২] বৃহস্পতি ও শনি। দুই গ্রহের দূরত্ব ৪০৩.৩ মিলিয়ন কিলেমিটার। ৮০০ বছর পর আজ গ্রহ দুটি আসছে সবচেয়ে কাছাকাছি। এর আগে ১২২৬ সালের ৪ মার্চ তাদের এই কাছাকাছি আসার ঘটনা ঘটেছিলো। দুই গ্রহের এই ঐতিহাসিক যুগলবন্দী দেখা যাবে পৃথিবীর সব দেশ থেকেই। আনন্দবাজার

[৩] এই মহাজাগতিক ঘটনাকে ‘ক্রিসমাস স্টার ২০২০’ নাম দিয়েছে আমেরিকার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। সংস্থার বিজ্ঞানীদের মতে ‘দু’টি গ্রহ একে অন্যের থেকে এক ডিগ্রির ১০ ভাগের এক ভাগ কাছাকাছি থাকবে। এই সময়

[৪] ৬০ বছর পর অর্থাৎ ২০৮০ সালে আবার এত কাছে আসবে দুই গ্রহ। এরপর আবার এই ঘটনা ঘটবে ২৪০০ সালে। টিবিএস নিউজ

[৫] নাসার বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, ৮০০ বছর আগে এই দুই গ্রহ এক সরলরেখায় এলেও শেষ বার এত কাছে এসেছিল ১৬২৩ সালে। তখন গ্যালিলিও জীবিত। টেলিস্কোপ আবিষ্কারের ১৩ বছর পরেই সেই ঘটনা ঘটেছিল। সেটা ছিলো জুলাই মাস। তখন বর্ষাকাল। তার উপর তখন সূর্যও এই দুই গ্রহের খুব কাছে ছিলো। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে মেঘলা আকাশ থাকায় ততটা স্পষ্ট হয়নি। সূর্য এত কাছে থাকায় খালি চোখে দেখা যায়নি। টেলিস্কোপের বয়স তখন মাত্র ১৩ বছর, আজকের মতো উন্নত টেলিস্কোপ ছিলো না বলে হয়তো সেসময় হতাশ হতে হয়েছিল মহাকাশ বিজ্ঞানীদের।  স্কুপি পোস্ট

[৬]মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের রাইস ইউনিভার্সিটির পদার্থবিদ্যা ও জ্যোতির্বিজ্ঞানের অধ্যাপক প্যাট্রিক হার্টিগান বলেন, ‘এই দুই গ্রহের বিন্যাস অত্যন্ত বিরল। প্রতি ২০ বছর পরপরই এদের মধ্যবর্তী দূরত্ব পালটে যায়। কিন্তু এই যুগলবন্দি অত্যন্ত বিরল। কারণ এই সময় একে অপরের অনেক কাছে চলে আসবে তারা। এমন এক মহাজাগতিক ঘটনা দেখার জন্য বহু বছর অপেক্ষা করতে হয় বিজ্ঞানীদের।’ বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড

[৭] আজ সোমবার দুই গ্রহ এতই কাছে চলে আসবে যে, আবহাওয়া অনুকূল থাকলে খালি চোখেও তা বোঝা যাবে। একজন মানুষ জীবদ্দশায় এক বারই দেখতে পারেন এই ‘গ্রেট কনজাংশন’ বা ‘বিরাট যুগলবন্দি’।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত