প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মিজানুর রহমান মিলন: ধর্ষণ করার মূল অস্ত্র বিনষ্ট হয়ে গেলে হবে সবচেয়ে উপযুক্ত শাস্তি

মিজানুর রহমান মিলন: গণমাধ্যমে প্রকাশিত হিসেব অনুযায়ী দেশে অন্তত প্রতিদিন ৩ জন নারী ধর্ষণের শিকার হচ্ছেন। প্রতিটি ধর্ষণই ভয়ংকর, কিন্তু নোয়াখালির বেগমগঞ্জে ধর্ষণের ঘটনা ভয়ংকরের মাত্রাকেও ছাড়িয়ে গেছে। দেশে এতো সমস্যার মধ্যেও মেয়েরা অন্তত নিশ্চিন্তে চলাফেরা করতে পারতো, অফিস থেকে নিরাপদে ফিরতো, স্কুল, কলেজ, ভার্সিটিতে অবাধে যাতায়াত করতে পারতো, কিন্তু অবস্থা এখন এমনই যে ঘরের মধ্যে গৃহবধূরাও আর নিরাপদ নয়। শুধু তাই নয়, গৃহবধূকে গণধর্ষণ করে সেই ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে আপলোড করার মতো দুঃসাহসও দেখাচ্ছে।

সামাজিক মাধ্যমে আপলোড না করলে হয়তো সেই ভয়ংকর ও বীভৎস ঘটনা সম্পর্কে কেউই জানতে পারতো না। তাহলে দেশে এতো এতো ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া, প্রিন্ট মিডিয়া ও বিভিন্ন নিউজ পোর্টালের ভূমিকা কী? সব মাধ্যমের চেয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যে সবচেয়ে শক্তিশালী এই নিয়ে আর সন্দেহের অবকাশ রইলো না। দেশে এই অবস্থার সৃষ্টি একদিনে বা কিছু দিনে হয়নি। শুধু ‘বদলে যাও, বদলে দাও’ স্লোগান দিয়ে এই সমস্যার সমাধান হবে না। এভাবে কেউ বদলায় না। এই সমস্যার সমাধানের জন্য আইনের শাসন স্থাপন জরুরি, আইনের শাসনের দৃষ্টান্ত জরুরি। প্রয়োজনে এই জন্য নতুন আইন তৈরি করতে হবে। শাস্তির উদ্দেশ্য হওয়া উচিত দুটি লক্ষ্যকে কেন্দ্র করে। [১] দৃষ্টান্ত স্থাপন যাতে কোনো অপরাধী পার না পায় এবং অন্যরা অপরাধ করতে উৎসাহিত না হয়। আর [২] অপরাধীকে সংশোধনের সুযোগ। এই জন্য যারা ধর্ষণের সঙ্গে যুক্ত, ধর্ষণ ক্রিয়ায় জড়িত তাদের খোজা করার বিকল্প কিছু আছে বলে মনে করি না। ধর্ষকদের ধর্ষণ করার মূল যে অস্ত্র সেটা বিনষ্ট হয়ে গেলে মৃত্যুদণ্ডের চেয়ে এটাই হবে সবচেয়ে উপযুক্ত শাস্তি। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত