প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডিএনসিসির ৪১ নং ওয়ার্ডে আ.লীগের প্রার্থী সফিকুলের বিরুদ্ধে বিভ্রান্ত ছড়াচ্ছেন বিদ্রোহী প্রার্থী মতিন

সাইদ রিপন: গত ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত পত্রে চূড়ান্তভাবে ঘোষণা মো. সফিকুল ইসলামকে একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেয়া হয়। বর্তমানে সফিকুল ইসলাম বাড্ডা থানা আওয়ামী লীগের সদস্য।

আওয়ামী লীগ অফিস সূত্র জানিয়েছে, এই ওয়ার্ডে প্রাথমিকভাবে ২৮ ডিসেম্বর আঃ মতিন নামক ব্যক্তির নাম ঘেষণা করা হয়। এলাকাবাসীর ব্যাপক প্রতিবাদের মুখে এবং দীর্ঘ দশ বছর সাতারকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান থাকাকালে তার অসামাজিক কার্যকলাপ, মদ্যপান ও দুর্নীতির রিপোর্ট পাওয়ায় তার মনোনয়ন বাতিলপূর্বক তালিকা সংশোধন করে বর্তমান কাউন্সিলর মো. সফিকুল ইসলামকে মনোনয়ন দেয়া হয়। অথচ মতিন এখনও নিজেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী দাবি করে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। ডিএনসিসিতে যুক্ত হওয়া নতুন ওয়ার্ডে নির্বাচিত হওয়ার মাত্র ৯ মাসে ৪১ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর হিসেবে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছেন সফিকুল ইসলাম। তিনি সামাজিক ও ভৌত অবকাঠামোখাতে কিছু পরিবর্তনের সূচনা করায় এলাকাবাসী তাকে পুনঃনির্বাচিত করতে চায়।

তালতলা, সাতারকুল পো: সাতারকুল, পূর্র পদরদিয়া, পশ্চিম পদরদিয়া, দক্ষিণ পুকুর পাড়, উত্তর পাড়া নিয়ে ৪১ নং ওয়ার্ড গঠিত। এই ওয়ার্ডে মোট সাড়ে ১৪ হাজার ভোটার রয়েছে। এ বিষয়ে সফিকুল ইসলাম বলেন, আমার মার্কা ঠেলাগাড়ি। আমাকে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একজন ক্ষুদ্র যোদ্ধা হিসেবে তার প্রতিদান দিতে চাই। আমার মূল ইশতেহার সরকারের সঙ্গে এলাকার উন্নয়ন এগিয়ে নেয়া। আমি গত ৯ মাসে ডেঙ্গু ও মাদকের বিরুদ্ধে সফল হয়েছি। নারীর ক্ষমতায়নে আমি নানা উদ্যোগ নিয়েছি। আমার অসমাপ্ত পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে আরো একবার সুযোগ চাই।

সর্বাধিক পঠিত