প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অবক্ষয়ের মৌসুম

বাসব রায় : আগে অধিকাংশ বাবা-মায়েরা সন্তানদের প্রতি দায়িত্ব পালনে যথেষ্ট উদাসীন ছিলেন, তখন এমনটাই ছিলো? হয়তো সন্তানের সংখ্যা বেশি হওয়া একটি কারণ ছিলো বা পরিবেশটাই এমন ছিলো। কিন্তু তাই বলে তখনকার সন্তানরা বাবা-মা বা গুরুজনদের প্রতি সম্মান এবং শ্রদ্ধা জানাতে কুণ্ঠাবোধ করেনি এতোটুকুও। অভিভাবকদের ভয় করেই চলতো তখনকার প্রজন্ম।

বর্তমানে পিতা-মাতারা প্রয়োজন এবং সামর্থ্যরে তুলনায় অনেক বেশি আদর-যতœ করছেন ছেলেমেয়েদের কিসে তাদের স্বাছন্দ্যবোধ হবে, পড়ালেখা এবং মেধার উন্নয়নে যা যা করা দরকার তার সবটাই নিখুঁতভাবে করা হচ্ছে? কতো সহজেই কতো দ্রæত বদলে গেছে অনেক কিছু। বাবা-মায়েদের এখন একটাই কাজ সন্তানদের মানুষের মতো মানুষ করা এবং এ কারণটার জন্যই বাবা-মায়েরা পৃথিবীর সবকিছুই ভুলে যেতে বসেছেন।

অপরদিকে এসব বিদগ্ধ অভিভাবকরা এটাও নিশ্চিত এসব সন্তানরা কখনই বাবা-মায়ের দেখাশোনা করবে না। শুধুমাত্র সন্তানদের ভালো থাকার বা রাখার উদ্দেশ্যেই এতো ত্যাগ, এতো শ্রম। পক্ষান্তরে এতো কিছুর পরেও অভিভাবকদের প্রতি তেমন কোনো শ্রদ্ধাবোধ বা ভালোবাসা কোনোটাই নেই এ নতুন প্রজন্মের। কেমন যেন পাল্টে গেছে সবটাই।
হতভাগ্য বাবা-মায়েরা সন্তানের মঙ্গল প্রার্থনায় নিজেদের সেরাটা উৎসর্গ করে যাচ্ছেন সবসময়ই। নিজেদের স্বার্থের প্রত্যাশা বেমালুম ভুলে গেছেন বাবা-মায়েরা। একটা অলিখিত চুক্তির মতো অভিভাবকরা তাদের ঘাড়েই বর্তিয়েছেন সমস্ত দায়ভার গোপন যন্ত্রণা গোপনেই রেখে। ধর্মীয় সঠিক মূল্যবোধের যারপরনাই অভাব চারদিকে। নৈতিকতা বর্জিত চরিত্রের গর্বিত প্রজন্ম গড্ডলিকাপ্রবাহে গা এলিয়ে দিয়ে বিতর্কিত নেশার জগতে পোক্ত আসন পেতে রয়েছে। একজন ছোটখাটো অভিভাবক হিসেবে ধারণা করা যেতে পারে সার্বিক বিবেচনায় আগামীর প্রজন্ম যে রসাতলে ডুবতে বসেছে তা এখন ‘কথার কথা’ হয়ে আর নেই।

সামাজিক অস্থিরতা, রাজনৈতিক অস্থিরতা এবং পারিবারিক অসহিষ্ণুতা অসুস্থ করে তুলেছে বর্তমান সময়কে। ভালো ভাবনা বা শুদ্ধ চেতনার ভীষণ অভাব এখন। পুরোপুরি একটা অবক্ষয়ে ভরা মৌসুম চলছে অবলীলায়। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত