প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আওয়ামী লীগকেই চান শীর্ষ ব্যবসায়ীরা

বাংলাদেশ জার্নাল  :  দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ীরা আবার আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় দেখতে চায়। দেশের বাণিজ্য খাতের সমস্যা নিরসন ও ব্যবসার পরিবেশ তৈরিতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের উদ্যোগ দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি বাড়িয়েছে। তাই প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার প্রতি সংহতি জানিয়েছে শীর্ষ ব্যবসায়ীদের সংগঠন এফবিসিসিআই।

বুধবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ব্যবসায়ীদের সমাবেশে ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) নেতারা এসব কথা বলেন। ‘শান্তি ও সমৃদ্ধির পথে বাংলাদেশ’ শীর্ষক ব্যবসায়ী সম্মেলন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি ছিলেন। সারা দেশ থেকে প্রায় আড়াই হাজার ব্যবসায়ী নেতারা অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ‘আমরা চাই, সরকারের ধারাবাহিকতা। যে নেতৃত্ব আমাদের বিদ্যুৎ ও জ্বালানি দিতে পারবে, ব্যবসায়িক পরিবেশ দিতে পারবে আমরা সেই নেতৃত্ব চাই। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ ২৬তম অর্থনৈতিক সদস্য দেশে পরিণত হবে। যে নেতৃত্ব ডেল্টা প্ল্যান দিতে পারে, বিদ্যুৎ-জ্বালানির নিশ্চয়তা দিতে পারে আমরা সে নেতৃত্ব চাই।’

‘দেশের বেসরকারি খাতের বিকাশমান অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখার স্বার্থে বর্তমান সরকারের ধারাবাহিকতা প্রয়োজন। আমরা সেই নেতৃত্ব চাই যার কাছে ভিশন আছে, সাহস আছে, সহযোগিতা আছে। যার দরজা সব সময়ের জন্য খোলা। যে কোনো সমস্যা শ্রমিকের সমস্যা মালিকের সমস্যা, শিল্পের সমস্যা, ব্যবসার সমস্যা সব সমস্যই যিনি সমাধান দেন।’

শফিউল ইসলাম আরো বলেন, ‘দেশ পরিচালনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষতা আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে স্বীকৃত। আপনি কোনো রক্তচক্ষুকে ভয় পান না। আপনার অভিজ্ঞতা, সাহস, দেশপ্রেম দিয়ে সব বাধা দূর করেন সেটা আমরা আপনার বিভিন্ন কাজেই দেখতে পাই। আমরা এমন নেতৃত্বই চাই।’

সালমান এফ রহমান বলেন, ‘সরকার গত ১০ বছর দেশের অনেক উন্নয়ন করেছে। দেশে যে ব্যবসায়িক পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে এ পরিবেশ যেন বজায় থাকে সে কারণেই আমরা শেখ হাসিনা সরকারকে আবার ক্ষমতায় দেখতে চাই। ব্যাংক খাত নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে, কিন্তু দেখবেন অ্যাকশন নেয়া হচ্ছে কিনা। অ্যাকশন তো নেয়া হচ্ছে।’

বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘গত ১০ বছরে গার্মেন্টস সেক্টরে অনেক উন্নতি হয়েছে। ২০০৯ সালে বর্তমান সরকার যখন ক্ষমতায় আসে তখন আমাদের রপ্তানি ছিল ১২ বিলিয়ন ডলার। এখন সেটা ৩১ বিলিয়ন ডলার। আমাদের এ সেক্টরে ৪৪ লাখ শ্রমিক কাজ করে সেই শ্রমিকদের কীভাবে বেতন বাড়াতে হবে, কি করতে হবে সব নির্দেশনা আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেন। আমরা যখনই ওনার কাছে যাই সকালে, রাতে, দুপুরে সব সময় ওনাকে পাই ওনার দরজা আমাদের জন্য সব সময় খোলা থাকে।’

ঢাকা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি আবুল কাশেম আহমেদ বলেন, ‘এমন ভিশনারি লিডার আমাদের প্রয়োজন। শেখ হাসিনার নেতৃত্ব ৩০ ডিসেম্বর বিজয় হবে।’

এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি মাহবুবুর রহমান, ‘বাংলাদেশ এখন গর্বিত বাংলাদেশ। এখন আগের মতো সেই অভাব অভিযোগ, দুর্ভিক্ষ নেই। যুগোপযোগী জ্বালানি নীতির জন্য লোডশেডিং নেই বললেই চলে। ব্যবসায়িক পরিবেশ পেয়েছি আমরা। এটা প্রমাণিত যে বর্তমান সরকারই আগামীতেই সরকার গঠন করবে।’

আব্দুল মুক্তাদির বলেন, ‘এ দেশেটি ভৌগোলিক কারণেই পরিচালনা করা কঠিন। কারণ আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, চীন ও মায়ানমার। আমরা খুবই ভাগ্যবান যে শেখ হাসিনার মতো এমন একজন দক্ষ প্রধানমন্ত্রী পেয়েছি। যে কারণে আমরা ব্যবসা ক্ষেত্রে সবাই সফল হচ্ছি। এমার এমন দক্ষ নেতৃত্ব আগামীতে অবশ্যই চাই।’

সম্মেলনের শুরুতে বর্তমান সরকারের নানা সাফল্য এবং চলমান উন্নয়ন প্রকল্পগুলো নিয়ে একটি ভিডিও প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানে এফবিসিসিআই সভাপতির নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় এবং সারা দেশ থেকে আসা ব্যবসায়ী নেতারা প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সরকারের প্রতি সমর্থন এবং সংহতি প্রকাশ করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত