শিরোনাম
◈ বিএনপি নেতাদের জামিন বিষয়ে আমাদের কিছু করার নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ ‘কিছু ভালো লাগে না’ গ্রুপ দেশের নামে দুর্নাম রটায়: প্রধানমন্ত্রী ◈ বিদেশি ঋণের সুদ পরিশোধে কিছুটা চাপে আছে দেশের অর্থনীতি: অর্থমন্ত্রী ◈ সমালোচনা হবেই, এটা দেখাটা জরুরি না: নান্নু ◈ প্রতিবেশীদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রেখে ‘সামুদ্রিক সম্পদ’ আহরণ করুন: প্রধানমন্ত্রী ◈ ২০০ ইউনিটের বেশি ব্যবহার করলে বিদ্যুতের দাম ৫ শতাংশ বাড়বে, ১ মার্চ থেকে কার্যকর ◈ ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় রাশিয়ার ‘৬০ সেনা নিহত’ ◈ দোষী প্রমাণিত হলে অবহেলাকারী ও চিকিৎসকদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী  ◈ খুলনাকে ৬৫ রানে হারিয়ে প্লে-অফে চট্টগ্রাম ◈ এরশাদ সর্বস্তরে বাংলাভাষা প্রচলনে আইন করেন: জি এম কাদের 

প্রকাশিত : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০২:৫১ রাত
আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০২:৫১ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

মিষ্টি চেহারার, অনিন্দ্যসুন্দর দিতি 

জান্নাতুল ফেরদৌস : বাংলা চলচ্চিত্রে নব্বইয়ের দশকের সাড়া জাগানো নায়িকার নাম পারভীন সুলতানা দিতি। সে সময় অল্প যে কজন নায়িকা একের পর এক ব্যবসা সফল চলচ্চিত্র উপহার দিয়েছেন দিতি তাদের মধ্যে অন্যতম। মিষ্টি চেহারার, অনিন্দ্যসুন্দর দিতি তার চমৎকার অভিনয়ের মাধ্যমে প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র দিয়েই দর্শকের মনে স্থান করে নিয়েছিলেন। তিনি ১৯৬৫ সালের ৩১ মার্চ জন্মগ্রহণ করেন। আল মনসুর প্রথম দিতিকে মানস বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিপরীতে ‘লাইলি মজনু’ নাটকে কাস্ট করেন। ১৯৮৪ সালে ‘নতুন মুখের সন্ধানে’ কার্যক্রমের মাধ্যমে দেশীয় চলচ্চিত্রে তার সম্পৃক্ততা ঘটে। তার অভিনীত মুক্তিপ্রাপ্ত প্রথম চলচ্চিত্র ছিলো ‘আমিই ওস্তাদ’। ছবিটি পরিচালনা করেছিলেন আজমল হুদা মিঠু। 

৩১ বছরের অভিনয় জীবনে দুই শতাধিক ছবিতে কাজ করেছেন তিনি। সিনেমার পাশাপাশি টিভি নাটকেও অভিনয় করেছেন। পরবর্তী সময়ে অভিনয়ের গণ্ডি অতিক্রম করে পাড়ি দিয়েছেন নাটকে, পরিচালনায়, সঙ্গীত আর বিজ্ঞাপনের মডেলিংয়ে। পরিচালনায় অভিষেক ঘটান ছোট পর্দায় নির্মাণের মধ্যদিয়ে। এ ছাড়া রান্নাবিষয়ক অনুষ্ঠানও উপস্থাপনা করেছেন। অভিনয়ের বাইরে মাঝেমধ্যে গান গাইতেও দেখা গেছে তাঁকে। প্রকাশিত হয়েছে তার একক গানের অ্যালবামও। 

সুভাষ দত্ত পরিচালিত স্বামী-স্ত্রী (১৯৮৭) ছবিতে তিনি আলমগীরের স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেন। এই ছবিতে অভিনয় করেই প্রথম বারের মতো শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। পরবর্তী সময়ে তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবির মধ্যে রয়েছে হীরামতি, দুই জীবন, ভাই বন্ধু, স্নেহের প্রতিদান, শেষ উপহার, কাল সকালে, মেঘের কোলে রোদ। দর্শকদের বহু জনপ্রিয় চলচ্চিত্র উপহার দিয়ে গেছেন ঢাকার সিনেমার সোনালি যুগের এ নায়িকা। তার সর্বশেষ সিনেমা ‘যে গল্পে ভালোবাসা নেই’ ও ‘তুখোড়’। ২০১৬ সালের ২০ মার্চ ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে এই জনপ্রিয় অভিনেত্রী শেষ নিঃশ্বাস ত্যগ করেন।

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়