শিরোনাম
◈ বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য ভিসা বন্ধ করল আরব আমিরাত ◈ বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সাথে সেনাবাহিনী প্রধানের সাক্ষাৎ ◈ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নরওয়ের রাষ্ট্রদূতের বিদায়ী সাক্ষাত ◈ এ সংঘর্ষ কোনভাবেই কাম্য নয়, দোষীদের বিচারের দাবি করছি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ◈ খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়াতে দলীয় নেতা-কর্মী ও বিত্তবানদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান ◈ ৬ দিন বন্ধের পর ফের চালু ইন্টারনেট ◈ বিএনপির অসংখ্য নেতাকর্মীর নাশকতার ঘটনায় সংশ্লিষ্টতার তথ্য মিলেছে: ডিবির হারুন ◈ চার জেলায় কারফিউ চলবে, অন্যগুলোর সিদ্ধান্ত জেলা প্রশাসনের ◈ চট্টগ্রাম এবং বরিশালে স্বল্প পরিসরে যাত্রীবাহী বাস চলাচল শুরু ◈ বুধবার থেকে খোলা থাকবে অফিস আদালত: জনপ্রশাসনমন্ত্রী 

প্রকাশিত : ১০ জুলাই, ২০২৪, ১২:৫৪ রাত
আপডেট : ১০ জুলাই, ২০২৪, ১২:৫৪ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

আলবার্ট আইনস্টাইন : মন্থর শিক্ষার্থী থেকে গভীর চিন্তাবিদ

বিপ্লব পাল

বিপ্লব পাল : আলবার্ট আইনস্টাইনের নাম শুনলেই আজ আমরা সবাই তাঁর অসাধারণ মেধা ও আবিষ্কারের কথা মনে করি। কিন্তু জানেন কি, তাঁর শিক্ষাজীবন একেবারেই সাধারণ ছিল না। ছোটবেলায় তিনি ছিলেন মন্থর শিক্ষার্থীÑ স্লো লার্নার। তাঁর পিতা-মাতা চিন্তিত ছিলেন যে তাঁদের সন্তান কি আদৌ কিছু করতে পারবে? আইনস্টাইনের জন্ম ১৮৭৯ সালে, উল্ম, জার্মানিতে। ছোটবেলায় তাঁর ভাষা শেখার প্রক্রিয়া বেশ ধীরগতিতে ছিল। ছয় বছর বয়সে তিনি প্রথম কথা বলতে শুরু করেন। এই মন্থরতা দেখে তাঁর পিতা-মাতা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন।

বিদ্যালয় জীবন ও কষ্ট : জার্মান স্কুলে আইনস্টাইন বেশ সমস্যার সম্মুখীন হন। তিনি কঠোর এবং রুটিনমাফিক শিক্ষাব্যবস্থা পছন্দ করতেন না। তাঁর গভীর চিন্তা ও সৃজনশীলতা এই কাঠামোর মধ্যে আটকা পড়ে। আইনস্টাইন বলতেন, বিদ্যালয় ছিল আমার জন্য অত্যন্ত কঠোর এবং বন্দিত্বের মতো। তিনি স্কুলের নিয়মকানুন এবং শৃঙ্খলার প্রতি বিরক্ত ছিলেন। আইনস্টাইন যখন মিউনিখের স্কুলে পড়তেন, একজন শিক্ষক তাঁকে বলেছিলেন, তোমার উপস্থিতি এখানে অবাঞ্ছিত। তুমি স্কুলের নিয়ম ভাঙতে এসেছ। এ ধরনের বক্তব্য তাঁর উপর গভীর প্রভাব ফেলে। 

প্রফেসর ওয়েবারের সঙ্গে বিরোধ : আইনস্টাইনের শিক্ষাজীবনে আরও একটি বড় চ্যালেঞ্জ-প্রফেসর ওয়েবারের সঙ্গে বিরোধ। আইনস্টাইন জুরিখের পলিটেকনিক স্কুলে পড়াকালীন প্রফেসর ওয়েবারের অধীনে কাজ করতেন। কিন্তু তাঁদের মতবিরোধের কারণে আইনস্টাইন প্রয়োজনীয় সুপারিশপত্র পাননি, যা তাঁকে চাকরি পেতে সাহায্য করত। ফলস্বরূপ, টেকনিক্যাল স্কুল থেকে পাস করার পর তিনি ছিলেন একমাত্র শিক্ষার্থী যিনি দুই বছর ধরে কোনো কাজ পাননি।

গভীর চিন্তা ও সাফল্য কিন্তু আইনস্টাইনের সত্যিকারের শক্তি ছিল তাঁর গভীর চিন্তাশক্তি ও সৃজনশীলতা। তিনি প্রথাগত শিক্ষাব্যবস্থায় মানিয়ে নিতে পারেননি, কিন্তু তাঁর চিন্তাশক্তি ও বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিভঙ্গি তাঁকে বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানীতে পরিণত করেছে। আইনস্টাইন নিজে বলেছিলেন, আমি বিশেষ প্রতিভাবান নই। আমি কেবল গভীরভাবে চিন্তা করি। তাঁর তত্ত্বীয় কাজ এবং অন্বেষণ তাঁকে বৈজ্ঞানিক বিশ্বের সর্বোচ্চ সম্মানে ভূষিত করেছে।  যদি আপনার সন্তান মন্থর শিক্ষার্থী হয় বা স্কুল পছন্দ না করে, তবে চিন্তার কোনো কারণ নেই। বরং দেখুন, সে কি গভীর চিন্তাবিদ এবং গভীর শিক্ষার্থী হতে পারে কি না। এটি তাঁদের ভবিষ্যতে সাফল্যের পথে এগিয়ে নিয়ে যাবে। There is no alternative to Deep Learning-Dont worry about slow learning. 07-09-24 https://www.facebook.com/biplabpal

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়