শিরোনাম
◈ সৌদিতে কোরবানি ঈদের সম্ভাব্য তারিখ ঘোষণা ◈ শ্রম আইন লঙ্ঘনের সাজাপ্রাপ্ত মামলায় স্থায়ী জামিন চাইবেন ড. ইউনূস ◈ ছুটি শেষে ঢাকায় ফিরছে কর্মজীবী মানুষ ◈ স্বাস্থ্যখাতে নতুন অশনি সংকেত অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স: স্বাস্থ্যমন্ত্রী  ◈ কৃষি খাতে ১০ শতাংশ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যে তিন  বছরে সাড়ে ৩৮ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ ◈ বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬.১ শতাংশ: এডিবি ◈ বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে বিজিপির ১৪ সদস্য ◈ সিলেটে বিদ্যুৎকেন্দ্রের আগুন নিয়ন্ত্রণে, ৭০ হাজার গ্রাহক বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন ◈ ৬০ লাখ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলার তালিকা প্রকাশ করুন: মির্জা ফখরুলকে ওবায়দুল কাদের ◈ পাল্টা হামলার বিরুদ্ধে ইসরায়েলকে ইরানের কঠোর হুঁশিয়ারি 

প্রকাশিত : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০৬:৫৫ বিকাল
আপডেট : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০১:২৫ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ত্রানহার সন্ধানে-আধুনিক যুগের বনলতা সেনের সন্ধানে

রাশিদ: [২] বাংলাদেশ স্বাধীন হবার দেড় বছর পরে পূর্ব-জার্মান সরকারের স্কলারশিপ নিয়ে লেখক প্রফেসর শফিকুর রহমান সে দেশের লাইপজিগ শহরে যান। সেখানে জার্মান ভাষা শেখার সময় তার সঙ্গে বাস্তব জীবনের বনলতা সেনের পরিচয় হয়। তবে এই বনলতা সেন বাংলাদেশের নন। তিনি মার্কিন সৈন্যদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত ভিয়েতনাম সেনাবাহিনীর একজন জেনারেলের মেয়ে, নাম ‘ত্রানহা’। 

[৩] একবছর ভাষা শেখার শেষে মেডিকেল পড়ার জন্য বনলতা সেন চলে যান সে দেশের উত্তরে, আর লেখককে যেতে হয় সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার জন্য দেশের দক্ষিণে। তাদের সবেমাত্র শুরু হওয়া রোমান্সের সেখানেই পরিসমাপ্তি ঘটার কথা। কিন্তু বিভিন্ন অসম্ভাব্য ঘটনার মাধ্যমে শিক্ষা বছর শুরু হবার আগে তাদের ইউনিভার্সিটি বদলে যায়। দু’জনই চলে আসেন একই ইউনিভার্সিটিতে। বিদেশিদের সঙ্গে মেলামেশার ব্যাপারে ভিয়েতনামি শিক্ষার্থীদের ওপরে তাদের দেশের সরকারের কঠোর নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও দুজনের লাইপজিগের পরিচয় অন্তরঙ্গতায় পরিণত হয়। কিন্তু ডিগ্রি শেষের পরে সম্ভাব্য এক বছরের ইন্টার্নি করার আগেই বনলতা সেন হঠাৎ করে দেশে ফিরে যান। যাবার আগে তিনি লেখককে একটি চিঠির মাধ্যমে তাকে ভুলে যেতে বলেন। পরিপূর্ণ না হওয়া প্রথম ভালোবাসা সুপ্ত হয়ে থাকতে পারে, কিন্তু কখনোই মরে যায় না। তাই তিরিশ বছর পরে লেখক বনলতা সেনকে খুঁজতে শুরু করেন। 

[৪] ভিয়েতনামের ন’কোটি লোকের মধ্যে একজন মানুষকে কি খুঁজে পাওয়া সম্ভব? সম্ভাব্যতা তত্ত্ব (Probability Theory) ব্যবহার করে, তিনটি মহাদেশের তিনটি দেশে খুঁজে, তিন বছরের মাথায় লেখক তার বনলতা সেনকে ভিয়েতনামের ছোট্ট একটি শহরে খুঁজে পান। কিন্তু বনলতা সেন নাম পরিবর্তন করেছেন কেন, আর কেনইবা তিনি তখনও একা? বাস্তব জীবনের এই ঘটনাগুলো এমনই অদ্ভুত যে যুক্তরাষ্ট্রের একটি ফাউন্ডেশন লেখককে এই উপন্যাসটি লেখার জন্য একটি অনুদান দিয়েছে।

[৫] প্রফেসর শফিকুর রহমান জন্ম ১৯৫৩, বরিশালের পিরোজপুর শহরে। খুলনার ভিক্টোরিয়া স্কুল এবং পরে সেন্ট জোসেফস স্কুলে ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত পড়েছেন। ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজ থেকে মেট্রিক এবং ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষায় যশোর বোর্ডের বিজ্ঞান বিভাগে প্রথম স্থান অধিকার করেন। ঢাকা ইউনিভার্সিটির পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে কিছুদিন পড়াশোনা করে জার্মানি চলে যান। তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞানে জার্মানির হালে ইউনিভার্সিটি থেকে স্নাতক এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নর্থওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। 

[৬] প্রফেসর শফিকুর রহমান যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়ায় বসবাস করছেন। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের এলিগেনি কলেজের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে ইমেরিটাস প্রফেসর। সেখানে ডিপার্টমেন্ট হেড এবং সায়েন্স ডিভিশনের কারিকুলামের প্রধান হিসেবেও কাজ করেছেন।Argonne National Laboratory, Carnegie Mellon University Ges Cornell National Supercomputer Center-এ গবেষণা করেছেন। পদার্থবিজ্ঞান ছাড়াও বিভিন্ন বিষয়ে তার অনেক নিবন্ধ প্রকাশ পেয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত সংবাদ সংস্থা চইঝ-এর আয়োজিত পাঁচ ঘণ্টার ডকুমেন্টারি ফিল্ম Asian Americans-এর উপরে একটি প্যানেল আলোচনায় নেতৃত্ব দেন। 

[৭] প্রেসিডেন্ট বাইডেনের অধীনে মার্কিন পররাষ্ট্রনীতির উপর ভয়েস অফ আমেরিকা এবং বাংলাদেশের আরটিভি আয়োজিত একটি টকশোতে প্যানেলিস্ট ছিলেন। এই উপন্যাসটি জার্মানিতে তার স্নাতক পড়ার সময়ের স্মৃতিকথার উপর ভিত্তি করে লেখা। কী ভাগ্য আমার, ভদ্রলোক আমার বাসায় এলেন, ‘ত্রানহার সন্ধানে-আধুনিক যুগের বনলতা সেনের সন্ধানে’ উনার বিশেষ এই বইটি উপহার স্মারক হিসাবে দিয়ে গেলেন। কৃতজ্ঞতা লেখক, গবেষক ও শিক্ষককে। অনেক ভালো থাকবেন। সম্পাদনা: ইকবাল খান

আর/আইকে/আইএফ

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়