শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৩ জানুয়ারী, ২০২৩, ০৯:৫৩ সকাল
আপডেট : ২৩ জানুয়ারী, ২০২৩, ০১:৫৩ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

পেঁয়াজের বহুমাত্রিক উপকারিতা

পেঁয়াজ

হ্যাপি আক্তার: রান্নাঘরে থাকা অতি পরিচিত একটি নাম পেঁয়াজ। যে কোনো রান্নায় পেঁয়াজ ছাড়া চলেই না।  মাছ-মাংস তো দূরের কথা সাধারণ সবজির তরকারিতে দিলে এর মাত্রা বেড়ে যায় কয়েকগুণ। খাওয়ার পাতে কয়েক টুকরো কাঁচা পেঁয়াজ সালাড হিসেবে খাওয়ার অভ্যেস রয়েছে অনেকের। কেউ বা যে কোনও রান্নাতেই পেঁয়াজ দিতে পছন্দ করেন। আবার কারও বা পেঁয়াজ একেবারেই পছন্দ নয়। জানলে অবাক হবেন, পেঁয়াজের বেশ কিছু খাদ্যগুণ রয়েছে। এর স্বাস্থ্য সংক্রান্ত উপকারিতা জানলে হয়তো আপনিও মেনুতে পেঁয়াজ যোগ করবেন। ইন্ডিয়া টাইমস

জেনে নেওয়া পেঁয়াজের বহুমাত্রির উপকারিতার দিকগুলো: 

কোলেস্টেরল কমায়: পেঁয়াজে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং যৌগিক বৈশিষ্ট্য শরীরে ব্যথা বেদনার বিরুদ্ধে লড়াই করে। ট্রাইগ্লিসারাইড কমিয়ে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। এভাবে রান্না করা পেঁয়াজ হৃদরোগের জন্যও উপকারী। এতে উপস্থিত শক্তিশালী অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য উচ্চ রক্তচাপ কমাতে এবং রক্ত জমাট বাঁধা থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করতে পারে।

রক্তচাপ ও চলাচল নিয়ন্ত্রণ : নিয়মিত পেঁয়াজ খেলে রক্ত চলাচল ঠিক থাকে। পেঁয়াজের রসে কোয়ারসেটিন নামক ফ্ল্যাভোনয়েড  অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা উচ্চ রক্তচাপ কমিয়ে হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতেও সাহায্য করে।   

হাড়ের জন্য দুর্দান্ত: পেঁয়াজ ফাইবার এবং প্রাক-বায়োটিকের একটি বড় উৎস, যা অন্ত্রের স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য। প্রাক-বায়োটিক সমৃদ্ধ একটি খাদ্য শরীরকে ক্যালসিয়ামের শোষণ উন্নত করতে সাহায্য করে যা হাড়ের জন্য দুর্দান্ত।

ঘুম ভালো: পেঁয়াজ খেলে বিষণ্নতার সঙ্গে লড়াই করতে সাহায্য করে এবং ঘুমকে ভালো করতে সহায়তা করে। এছাড়া ফোলেটের উপস্থিতি পেটের রোগ নিরাময়ে ও ক্ষুধা বাড়াতে সাহায্য করে।

হজমশক্তি বৃদ্ধি করে: যাদের হজমে সমস্যা রয়েছে তারা প্রতিদিন কাঁচা পেঁয়াজ খেতে পারেন। পেঁয়াজ খাবার হজমের জন্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন এনজাইম বাড়াতে সাহায্য করে। ফলে খাবার দ্রুত হজম হয়।

সংক্রমণ সারায়: পেঁয়াজের মধ্যে কার্মিনেটিভ, অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল, অ্যান্টিসেপ্টিক এবং অ্যান্টিবায়োটিক জাতীয় পদার্থ রয়েছে। তাই শরীরে কোথাও সংক্রমণ হয়ে থাকলে কাঁচা পেঁয়াজ খেতে পারেন, এতে ভালো উপকার মিলবে। এছাড়া পেঁয়াজের রসের সঙ্গে মধু মিশিয়ে খেলে সর্দি, কাশির সমস্যা থাকে না। ঠান্ডা লাগার ফলে গলা ব্যথা, সর্দি-কাশি, জ্বর, অ্যালার্জি বা সামান্য গা ব্যথায় দারুণ কাজ করে।

দাঁতের সংক্রমণ রোধ: দাঁতের সংক্রমণ রোধ করতেও পেঁয়াজ  দারুণ কাজ করে। পেঁয়াজ চিবিয়ে খেলে দাঁতের ফাঁকে লুকিয়ে থাকা জীবাণুগুলো মরে যায় এবং সংক্রমণের সম্ভাবনাও কমে যায়।

চুল পড়া কমায়: চুল পড়া কমানো ও চুল বৃদ্ধিতে পেঁয়াজ খুবই উপকারি। পেঁয়াজের মধ্যে প্রচুর সালফার রয়েছে, যা চুল পড়া রোধ করে। বিশেষ করে চুল ভেঙে যাওয়া রোধ করে এবং প্রাকৃতিকভাবে চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। 

এবার জেনে নেওয়া যাক পেঁয়াজের অপকারিতা:

মুখে দুর্গন্ধ: মানুষের মুখের দুর্গন্ধের অন্যতম কারণ হতে পারে অতিরিক্ত পেঁয়াজ খাওয়া। কাঁচা পেঁয়াজের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া আপনার মুখ ও শ্বাসকে দীর্ঘসময় ধরে দুর্গন্ধযুক্ত করে রাখবে।

অ্যালার্জি ‍ সমস্যা বাড়িয়ে দেয়: পেঁয়াজ অ্যালার্জিযুক্ত ব্যক্তিদের জন্য খাওয়াটা মোটেই নিরাপদ নয়। অ্যালার্জির অন্যতম একটি উৎস হচ্ছে পেঁয়াজ। পেঁয়াজের কারণে যদি অ্যালার্জি হয়, তহলে পেয়াজ খেলে ত্বক এবং চোখে লালভাব, ত্বকের চুলকানি, শ্বাস নিতে অসুবিধা, শরীর জ্বলন ইত্যাদির মতো অ্যালার্জির লক্ষণগুলোর জন্ম দিতে পারে।

এইচএ 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়