শিরোনাম
◈ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে অনেক খেলা চলছে: ওবায়দুল কাদের ◈ হত্যাচেষ্টার অভিযোগ: থানায় জিডি করলেন চিত্রনায়িকা বুবলি ◈ দাম কমলো সয়াবিন তেলের  ◈ যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী  ◈ সেপ্টেম্বরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪৭৬, নিহতদের এক-পঞ্চমাংশের বেশি পথচারী ◈ ‘অর্থনীতিসহ সার্বিক পরিস্থিতি নাজুক হওয়ায় দেশ এখন দেউলিয়ার পথে’ ◈ বঙ্গোপসাগরে চলতি মাসে ২-১টি লঘুচাপ সৃষ্টি হয়ে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে: আবহাওয়া অধিদপ্তর ◈ প্রেস ক্লাবে তোয়াব খানের দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত ◈ নেতাকর্মীদের পুলিশের সামনে ঠেলে দিয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায় বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী ◈ সব আন্দোলনে নেতৃত্ব দিবেন বেগম খালেদা জিয়া: মির্জা ফখরুল

প্রকাশিত : ০৭ জুলাই, ২০২২, ০১:২৭ রাত
আপডেট : ০৭ জুলাই, ২০২২, ০১:২৭ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ড্রাগনে ভাগ্য বদল 

ড্রাগন ফলের বাগান

সালেহ্ বিপ্লব: দেশ এক সময় শুধু দেশি ফলই চাষ করা হতো।  সময় পাল্টেছে এখন। মানুষ এখন বিদেশি ফল উৎপাদনেও পারদর্শী হয়ে উঠেছেন। সেই ধারাবাহিকতায় ড্রাগন এখন পরিচিত ফল হিসেবে জনপ্রিয়তা পেয়েছে গ্রামবাংলায়। বাসস

কুমিল্লা বরুড়া উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম আগানগর । এই গ্রামে প্রথম ড্রাগন ফলের আবাদ করেন রাকিবুল হাসান। তার বাড়ির পাশেই বাগান। এলাকার প্রথম বাগান হওয়ায় বিভিন্ন গ্রামের মানুষ দেখতে ভিড় জমান। বাগান থেকে কিনে নিয়ে যান তাজা ফল। কেউ কেউ মাঠের পাশেই ফল কেটে খেতে শুরু করেন। সুস্বাদু ও দৃষ্টিনন্দন ফল খেয়ে ক্রেতার মুখে ফুটে ওঠে তৃপ্তির ছাপ। 

রাকিবুল হাসান জানান, কুমিল্লা পল্লী উন্নয়ন একাডেমিতে (বার্ড) কয়েক বছর আগে একটি উদ্যোক্তা প্রশিক্ষণ নেন। তারপর নিজের ছাদে টবে কয়েকটি ড্রাগনের চারা লাগান। দুই বছরে সেখানে ভালো ফল পান। এক পর্যায়ে পরিকল্পনা করেন ড্রাগন নিয়ে বাণিজ্যিকভাবে কিছু করা যায় কিনা। সেই থেকে শুরু। 

এক প্রতিবেশী থেকে ৬০ শতক জমি লিজ নেন। জমি লিজ, বাগানের সরঞ্জাম, চারা লাগানোতে প্রায়ই ৬ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। চারা নাটোর থেকে সংগ্রহ করেছেন। এ ফলের চারার রোগ বালাই তেমন নেই। ২য় বছর থেকে ভালো ভাবে ফল আসা শুরু হয়েছে। দুই দফায় প্রায় তিন লাখ টাকার ফল বিক্রি করেছেন। এই বছরে তার পুঁজি উঠে যাবে বলে আশা করছেন। গ্রামের মানুষকে সাশ্রয়ী মূল্যে পুষ্টিকর ফল খাওয়াতে পারায় আনন্দ আছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। 

বাগান ঘুরে দেখা যায়, একেবারে লতার মতো সবুজের ঘেরে ড্রাগন ধরেছে। প্রায় পাঁচ ফুট উচ্চতার খুঁটিতে পেঁচিয়ে উঠেছে ড্রাগন ফলের গাছ। রাকিবুল জানান, এ ফলে ফরমালিন ও ক্ষতিকারক কীটনাশক ব্যবহার করা হয় না বলে এর চাহিদা বেশি।

উপজেলা কৃষি অফিসার মো. নজরুল ইসলাম বলেন, এলাকার কৃষকদের ড্রাগন চাষে উৎসাহিত করতে মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তারা কৃষকদের পরামর্শ দেন। বাড়ির আঙিনা ও ফেলে রাখা জমিতে এ ফলের চাষ করে তারা লাভবান হচ্ছেন। এছাড়াও এখানকার মাটি ফল চাষাবাদের জন্য বেশি উপযোগী। তিনি আরও বলেন, ড্রাগন ফল দেশের চাহিদা মিটিয়ে অচিরেই বিদেশ রপ্তানি করা যাবে। আমরা সেই সুদিনের অপেক্ষায়।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়