শিরোনাম
◈ রাজধানীর বেইলি রোডে আগুন: আটকাপড়াদের উদ্ধার করছে ফায়ার সার্ভিস ◈ ভারত- বাংলাদেশের সম্পর্কের শেকড় অনেক গভীরে:কোলকাতায় নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী ◈ বেইলি রোডে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ১২ ইউনিট ◈ ১৫৭ বিদেশি বন্দিকে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে হাইকোর্টের নির্দেশ ◈ শুক্রবার কমছে সয়াবিন তেলের দাম ◈ বঙ্গবন্ধু জাতিসংঘেরও ১৫ বছর আগে শিশু আইন প্রণয়ন করেন: আইনমন্ত্রী  ◈ বিপিএলের ফাইনাল ম্যাচের সময় চূড়ান্ত করলো বিসিবি ◈ সাবেক স্বামীর দেওয়া আগুনে দগ্ধ চিকিৎসক লতা মারা গেছেন ◈ সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে ঔষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রী প্রদানের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ◈ বিদ্যুতের দাম বাড়ছে ৮.৫০ শতাংশ, ফেব্রুয়ারিতেই কার্যকর

প্রকাশিত : ১৮ নভেম্বর, ২০২৩, ০৭:০৫ বিকাল
আপডেট : ১৮ নভেম্বর, ২০২৩, ০৭:০৫ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ঘূর্ণিঝড় মিধিলিতে উপকূলীয় এলাকায় ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত, ফসলের ক্ষতি

মুরাদ হাসান: [২] ঘূর্ণিঝড়টি দুর্বল হয়ে শুক্রবার বিকালে কলাপাড়ার কাছাকাছি হয়ে পায়রা ও মোংলা অতিক্রম করেছে। এর প্রভাবে বৃহস্পতিবার রাত থেকে টানা বৃষ্টি ও দমকা হাওয়া শুরু হয় এবং চলে শুক্রবার রাত পর্যন্ত। এতে বসতবাড়ি, গাছপালা ও ফসলের ক্ষতি হয়েছে।

[৩] পটুয়াখালী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. নজরুল ইসলাম বলেন, এ বছর জেলায়  ১ লাখ ৯০ হাজার ১১৯ হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে ১০ থেকে ১৫ ভাগ আমন ধান মাটিতে শুয়ে পড়েছে। যা জলমগ্ন ও কাদাতে আছে। যেসব ধান নুয়ে পড়েছে তার অধিকাংশ অপুষ্ট হবে এবং চিটায় পরিণত হবে ফলে উৎপাদনে এর প্রভাব পড়বে। এছাড়া শাকসবজি ও আগাম জাতের তরমুজ চাষাবাদেও ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

[৪] ঝালকাঠিতে ঘূর্ণিঝড় মিধিলির প্রভাবে ঝড়ো বাতাস ও বৃষ্টিতে আমন ধান ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সদ্য অধিকাংশ ধান গাছ মাটিতে শুয়ে পরে পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে। জেলার জাতীয় গ্রিডের ৩৩ কেভির সংযোগস্থল বরিশাল শহরতলীর জাগুয়া এলাকায় পাঁচটি বিশাল আকৃতির চাম্বল গাছ পড়ে। এতে শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত বিদ্যুৎহীন ছিল পুরো জেলা।

[৫] নোয়াখালীর উপকূলীয় অঞ্চলের ২১২টি ঘর সম্পূর্ণ এবং ৯১৩টি ঘর আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে। জেলার উপকূলীয় এলাকা হাতিয়া, সূবর্ণচর, কোম্পানীগঞ্জ, কবিরহাট ও সদর উপজেলার ৩৪টি ইউনিয়নের দ্বীপ ও চরাঞ্চলে এসব ক্ষয়-ক্ষতি হয়।

[৬] ফেনী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, কৃষি অফিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জেলায় মোট আমন আবাদ হয়েছে ৫৯ হাজার ৪১০ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে মিধিলির প্রভাবে জেলায় দুর্যোগ কবলিত হয়েছে ২৮২ হেক্টর জমির আমন ফসল। শীতকালীন সবজি আবাদ হয়েছে ২ হাজার ৩৯২ হেক্টর। দুর্যোগের কবলে পড়েছে ২৩ হেক্টর। সরিষা আবাদ হয়েছে ২০ হেক্টর জমিতে। দুর্যোগ কবলিত হয়েছে ২ হেক্টর জমির সরিষা।

[৭] ভোলা সদর উপজেলায় ১০ ঘর পুরোপুরি ও ২০টি ঘর আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে। ৩ শতাধিক কাঁচা ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। আমন ধানেরও ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে স্থানীয় প্রশাসনের সূত্রে জানা গেছে।

[৮] তথ্য পাঠিয়েছেন আতিকুল আলম, এমরান পাটোয়ারী, বিধান ভৌমিক, ফরহাদ হোসেন, বাবুল মিনা। সম্পাদনা: তারিক আল বান্না

এমএইচ/টিএবি/এনএইচ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়