প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] পূর্বাচলে দুই শতাধিক নকশা অনুমোদন ২০২৩ সাল থেকে বসবাসের উপযোগী হবে

সুজিৎ নন্দী: [২] পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পে বরাদ্দের প্রায় ২৫ হাজার আবাসিক প্লটের ৯৫ ভাগ প্লটই হস্তান্তর শেষ হয়েছে। ইতোমধ্যে দুই হাজারের ও বেশি নকশা অনুমোদনের অপেক্ষায় বাছাই কমিটিতে জমা আছে। এরই মধ্যে প্রায় দুই শতাধিক নকশা অনুমোদন দেয়া হয়েছে। করোনার কারণে কিছুটা ঝিমিয়ে পরে। আগামী মাস থেকে অনুমোদন শুরু হবে।

[৩] রাজউকের চেয়ারম্যান এবিএম আমিন উল্লাহ নূরী বলেন, একদিকে উন্নয়ন কাজ প্রায় শেষ দিকে। একাধিক বাড়ি তৈরির কাজও চলছে। কয়েকটি ব্রিজ এবং রাস্তা এ বছর ডিসেম্বরে শেষ হবে। আগামী বছরের মধ্যে সকল লেক ও ব্রিজ নির্মাণের কাজ শেষ হবে।

[৪] রাজউক সূত্র জানায়, পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্প এলাকায় দৈনিক ৩৪০ মিলিয়ন লিটার পানি সরবরাহের জন্য এ প্রকল্পের আওতায় ৩২০ কিলোমিটার পাইপলাইন নেটওয়ার্ক স্থাপন, ১৫ টি গভীর নলকূপ স্থাপন, একটি প্রশাসনিক ভবন ও একটি ওয়ার্কশপ নির্মাণ করা হবে।

[৫] এ প্রকল্পের মাধ্যমে জুন ২০২২ এর মধ্যে পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্প এলাকার ১ থেকে ৫ নম্বর সেক্টরে এবং জুন ২০২৫ এর মধ্যে পর্যায়ক্রমে সকল সেক্টরে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করা হবে।

[৬] রাজউকের পরিকল্পনা বিভাগ জানায়, ১৯ নম্বর সেক্টরটি সিবিডি (ব্যবসায়িক ও বাণিজ্যিক অঞ্চল) এলাকা হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছিল। এই এলাকার প্রায় ১০০ একর জমি বরাদ্দ পেয়েছে ‘কনসোর্টিয়াম অব পাওয়ার প্যাক হোল্ডিংস লিমিটেড অ্যান্ড কাজিমা করপোরেশন’। এ প্রতিষ্ঠান তিনটি আইকনিক টাওয়ার নির্মাাণ করবে।

[৭] রাজউক সূত্র জানায়, সংশোধনীর শেষ পর্যায়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ৩টি থেকে আরো বেশি বাড়ানো হয়েছে। হাসপাতাল ও ক্লিনিকের সংখ্যা ২৭টি থেকে ৪৪টি, গবেষণা ও শিক্ষাসংক্রান্ত প্রতিষ্ঠান বা ইনস্টিটিউটের সংখ্যা ৫টি থেকে ২১টি, মাধ্যমিক স্কুল ও কলেজের সংখ্যা ৬টি থেকে ২৮টি করা হয়েছে। তবে নার্সারি ও প্রাইমারি স্কুলের সংখ্যা কমেছে।

[৮] সূত্র জানায়, প্রকল্পটি পাসের পর রাজউক ২০০৪, ২০০৫, ২০০৯ ও ২০১৩ সালে এর নকশা সংশোধন করে। এর পর নকশায় আর কোনো পরিবর্তন আনতে গেলে আদালতের পূর্বানুমতির নির্দেশনা ছিল। পরবর্তিতে ২০১৭ সালে নকশা সংশোধনের উদ্যোগ নেয় রাজউক।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত