প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ১৫ আগস্ট শেখ সেলিম আমেরিকান দূতাবাসে কী করছিলেন, প্রশ্ন জাসদের

সমীরণ রায়: [২] বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জাসদকে জড়িয়ে আওয়ামী লীগ নেতা শেখ সেলিমের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে দলের কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটি। জাসদের প্রশ্ন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শেখ সেলিম তার আপন মামা বঙ্গবন্ধু ও আপন ভাই শেখ মনির লাশ ফেলে রেখে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের সঙ্গে যুক্ত তৎকালীন আমেরিকার দূতাবাসে গিয়ে কী করছিলেন। তা জাতি জানতে চায়।

[৩] বৃহস্পতিবার বিকালে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) দপ্তর সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেনের পাঠানো এক বিবৃতিতে বলা হয়, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জাসদকে যুক্ত করে আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ সেলিমের বক্তব্য রাজনৈতিক দুরভিসন্ধিমূলক মিথ্যাচার। শেখ সেলিম বঙ্গবন্ধুর খুনিগোষ্ঠী এবং খুনিগোষ্ঠীর পাকিস্তানপন্থার রাজনীতির ধারকদের আড়াল করার উদ্দেশ্যেই মিথ্যাচার করে বিভ্রান্তি ছড়ানোর অপপ্রয়াস চালিয়েছেন। জাসদ কখনই ষড়যন্ত্রের রাজনীতি করেনি।

[৪] এতে বলা হয়, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী গোষ্ঠীর সঙ্গে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পূর্বাপর কর্নেল তাহের বা হাসানুল হক ইনু বা জাসদের কোনো পর্যায়ের নেতাকর্মীদের যোগাযোগ ছিল না। জাসদ বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের সুফলভোগীও নয়। কারা খন্দকার মোশতাকসহ বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে, রক্ষা করেছে, পুরস্কৃত করেছে তা প্রকাশিত। খন্দকার মোশতাকের ৮৩ দিনের অবৈধ শাসনকালে কারাবন্দি জাসদ নেতাকর্মীদের মুক্তি দেওয়া হয়নি। বরং ৮৩ দিনেও জাসদের নেতাকর্মীদের ওপর চরম রাষ্ট্রীয় নিপীড়ন-নির্যাতন চালানো হয়েছে।

[৫] এতে আরো বলা হয়, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার এজাহার, এফআইআর, তদন্ত, চার্জশিট, সাক্ষীদের জেরা ও সওয়াল জবাব, চার্জের ওপর আদালতে যুক্তিতর্ক, আদালতের রায় ও রায়ের পর্যবেক্ষণের কোথাও জাসদ বা জাসদের কোনো নেতার নাম পর্যন্ত উচ্চারিত হয়নি। এটাই স্বাভাবিক ও সত্য। শেখ সেলিম বা কেউই মিথ্যাচার করে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে ইতিহাসের সত্য আড়াল করতে পারবে না।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত