প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সাংবাদিককে কনফ্লিক্ট অফ ইন্টারেস্ট এড়াতেই হবে

নাঈমুল ইসলাম খান: [২] বাংলাদেশে সাংবাদিকতায় সাংবাদিক পরিচয়ের ব্যক্তিটির অনেক ক্ষেত্রে একাধিক প্রবল ব্যক্তিসত্ত্বা থাকে। এই পৃথক ব্যক্তিসত্তা প্রায়শই একের সাথে অপরের স্বার্থের সংঘাত সৃষ্টি করে।

[৩] কোনো কোনো সাংবাদিক আইন পেশার সাথে জড়িত, আইনজীবী সমিতির কর্মকর্তা হন। এইটুকুও কনফ্লিক্ট অফ ইন্টারেস্ট তৈরি করতে পারে। কেউ কেউ এনজিও প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত থাকেন বা কোথাও কনসালটেন্সি করেন। এটাও দোষণীয়।

[৪] অনেক ক্ষেত্রে একজন সাংবাদিক নিজের অথবা স্পাউজের নিজস্ব ব্যবসা থাকে। যার সাথে সরকার বা সরকারের প্রতিষ্ঠান বা বৃহৎ পাবলিক প্রতিষ্ঠানের সম্পর্ক রয়েছে, যা স্পষ্ট স্বার্থের সংঘাত সৃষ্টি করে।

[৫] এমন কনফ্লিক্ট অফ ইন্টারেস্ট বিষয়ে বাংলাদেশে সতর্কতা এবং স্বচ্ছতা নিশ্চিতের প্রয়াস প্রায় অনুপস্থিতই বলা যায়।

[৬] একজন সাংবাদিক হয়তো একটি পরিবেশবাদী সংগঠনের সদস্য বা অ্যাক্টিভিস্ট। অন্য একজন সাংবাদিক হয়তো মানবাধিকার সংগঠনের সক্রিয় কর্মী বা সংগঠক। আরো একজন হয়তো একটি রাজনৈতিক দলের সদস্য। তারা সকলেই এক কথায় এক্টিভিস্ট, তারা সকলেই কনফ্লিক্ট অফ ইন্টারেস্টে জড়িয়ে রয়েছেন।

[৭] অনেকে যুক্তি দেবেন সমাজের প্রতি নাগরিক দায়িত্ববোধ থেকে বিভিন্ন সংগঠনের অ্যাক্টিভিস্ট হলেও রিপোর্টিং করার সময় তিনি নিরপেক্ষভাবেই প্রতিবেদনটি তৈরি করবেন। কিন্তু কেউ কেউ এ ধারণায় আস্থা রাখলেও আরো অনেকে সাংবাদিকের একাধিক সত্তার গ্রহণযোগ্যতা বিরোধী। অনুলিখন: জেরিন আহমেদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত