প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কাকন রেজা: মূল সমস্যা পরীমনি, আর সব ডালপালা!

কাকন রেজা: প্রজেক্ট ‘পরীমনি’ সফল। শুধু সফল না হিট। ভুল বলিনি নিশ্চিত। কারণ হাল্কা-পাতলা থেকে ভারী-পায়াভারি সবাই মেতে আছেন পরীমনি নিয়ে। জানি, প্রজেক্ট বলা নিয়ে আপত্তি করবেন। না, আমার অভিযান বলতে আপত্তি আছে। একজন অভিনয় শিল্পীর বাড়িতে অভিযান হয় না। হতো, যদি তার বাড়ি থেকে মদ উদ্ধার না হয়ে, কালাশনিকভ রাইফেল হতো। নিদেনপক্ষে কাঁঠালপাতা খাওয়া ধর্মান্ধদের হাতে বানানো বিস্ফোরক। যার রিমোট নষ্ট থাকে, চেষ্টা করেও ‘কাম’ ঘটানো যায় না।

সেলিব্রেটিদের লাইফ স্টাইল জানা আছে প্রায় কমবেশি সবারই। তাদের কেউ কেউ হয়তো, ব্যক্তি জীবনের সেলিব্রেশন থেকে দূরে থাকেন। কিন্তু অনেকেই বলিউড, হলিউডের সাথে টেক্কা দিতে চান। সে সেলিব্রেটি, নায়িকা কিংবা গায়িকা অথবা নারীবাদী কিংবা বুদ্ধিজীবী যাই হোক না কেন। হ্যাঁ, হালের সময়ে বুদ্ধিজীবীরাও সেলিব্রেটি হয়। হয় না? তাদের মদ খেতে হয়, পার্টি করতে হয়, ডিনারে যেতে হয় এবং খাদের কিনারেও। পরীমনি যেমন গিয়েছেন।

ছোট পর্দার এক অভিনয় শিল্পী বললেন, মৌ-পিয়াসাদের মডেল অভিনেত্রী বলতে তার শরম লাগে। না, লাগতেই পারে। পরীমনিরে বলতেও শরম লাগে? প্রশ্নটা পিয়াসা-মৌ’র সময় যারা তুলেছিলেন সবার জন্যই। সুযোগ পেলে সবাই তাদের চেহারা দেখিয়ে দেয়। আবার ‘মাইনকা চিপায়’ পড়লে সব উল্টে যায়। মনে আছে শহীদ মিনারে জুতা পায়ে ওঠা নিয়ে এক অভিনেত্রীর পল্টিবাজি। গোল্ডফিস মেমোরি হলে তো মুশকিল। আর নারীবাদীদের কথা, থাক, বললাম না। যেদিন লিখছি সেদিন করোনায় মারা গেছেন ২৬৪ জন। ময়নসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ব্যানার লাগিয়ে দিয়েছে কোভিড ওয়ার্ড আর আইসিইউতে শয্যা খালি নেই। হাসপাতালে হচ্ছে না, ফিল্ড হাসপাতালেও। চিন্তা করা হচ্ছে হোটেলকে হাসপাতালে রূপান্তরিত করার। গোদের উপর বিষফোঁড়ার মতন দেখা দিয়েছে ডেঙ্গু। স্বাস্থ্য ব্যবস্থা পর্যুদস্ত।

আর লকডাউন। এ নিয়ে বলার কিছু নেই। মানুষতো আর গরু-ছাগল নয়, খেদিয়ে ঘরে তোলা সম্ভব। না, বাংলাদেশের লোকজনকে দোষ দিয়ে লাভ নেই, সারাবিশ্বের কোথাও লকডাউন সম্পূর্ণ সফল হয়নি। মানুষকে ঘরে আটকে রাখা সম্ভব নয়, সে হোক জরা কিংবা যুদ্ধতে। মানুষের কথা বলাকেও সেভাবে রুদ্ধ করা সম্ভব নয়। এসব চেষ্টা সাধারণত সফল হয় না, হয়নি। আর লকডাউনের সফলতা লাটে ওঠেছে শ্রমিকদের ঢাকা ফেরার মরণপন চেষ্টার ছবিতে। গণমাধ্যমে যে ছবি এসেছে, তাতে বোঝা গেছে শ্রমিকদের ফেরানো নিয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো পরিকল্পনা ছিলো না। স্রেফ তাদের লকডাউন মাথায় নিয়ে ফিরতে বলাটা ছিলো অপরিকল্পিত। মহামারীর এই পিক টাইমে এমন ফেরার মাশুল সময় কীভাবে দেবে সেটাই দেখার বিষয়।

সমস্যার অন্ত নেই। নানা সমস্যা মাথায় নিয়ে আমাদের চলতে হচ্ছে। যে সমস্যা দেশের আপামর সাধারণ মানুষের সমস্যা। ‘পরীমনি’ প্রজেক্ট নিশ্চিত সেই সাধারণ মানুষের সমস্যা নয়। কারণ সাধারনের চিন্তা ভাত খাবার, মদপানের নয়। তাদের ভাত জোটাতেই জানের বারোটা বাজে, মদের চিন্তা কখন করবে। তাও আবার বিদেশী ব্র্যান্ডের দামি মদ। চোলাই হলে না হয় কথা ছিলো। এই সমস্যা সেই লোকদের যারা টাকার অংকে বিশাল কিন্তু সংখ্যার অংকে নগণ্য। এই নগণ্যদের জন্য আজকে অগণ্যদের ভুগতে হচ্ছে। দৃষ্টি সরে যাচ্ছে মূল সমস্যা থেকে। আর আমাদের হাল্কা-পাতলা, ভারি-পায়াভারি সবাই মেতে আছেন সেই মূলটা ছেড়ে ডালপালা নিয়ে। বলিহারি। লেখক : সাংবাদিক ও কলামিস্ট

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত