প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মহিউদ্দিন আহমেদ: মিডিয়াওয়াচ ‘বস্তুনিষ্ঠ’ সাংবাদিকতা এবং এনটিভি স্টাইল

মহিউদ্দিন আহমেদ: করোনাকালে আমাদের এমন দুঃসময়েও আমাদের গণমাধ্যমে প্রায়ই আমোদের উপাদান পাওয়া যায়। তা যারা আমাদের গণমাধ্যমকে মনোযোগ দিয়ে খেয়াল করেন, তারা তার বেশুমার উদাহরণ পাবেন। সোমবার, ৫ জুলাই ২০২১ সালের দুপুর ২টার এনটিভির খবর দেখতে গিয়ে এমন আমোদজনক একটি উদাহরণ দেখলাম। গত কয়েকদিন ধরে এনটিভির জন্মবার্ষিকীর উদ্যাপন চলছে। উদ্যাপন মানে আত্মবন্দনা, যা আমাদের টিভি চ্যানেলগুলোর জন্য অতি ‘কমন’ একটি বিষয়। কোন কোন বিশিষ্ট ব্যক্তি সেই বিশেষ চ্যানেলকে বাংলাদেশের ‘সৎ ও বস্তুনিষ্ঠ’ সাংবাদিকতার উজ্জ্বল উদাহরণ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন, সেই বিশিষ্ট ব্যক্তির ছবিসহ এনটিভির জন্য তার ‘কালারফুল’ বর্ণনার প্রচার। গত কয়েকদিন এনটিভির জন্য ঢাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিদের বন্দনার পর এখন দেশের কিছু পৌরসভার মেয়র এবং উপজেলা চেয়ারম্যানদের বন্দনা চলছে।

৫ জুলাই দুপুরের খবরের ওপর শফিক শাহীনের যে দীর্ঘ প্রতিবেদনটি প্রচারিত হলো, তা মূলত ছিলো স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের সাফল্যের ওপর। এই প্রতিবেদনে বাংলাদেশের বিশেষ অর্জন, বাংলাদেশের নোবেল পুরস্কার প্রাপ্তিও উল্লেখ করা হলো। কিন্তু সারপ্রাইজ অ্যান্ড মোর সারপ্রাইজ, নোবেল পুরস্কারটি কে পেয়েছিলেন তার নাম গন্ধ নেই। কয়েক সেকেন্ডের জন্য ড. ইউনূসের ছবি দেখানো হলো, কিন্তু নো নেইম অব ড. ইউনূস! তো এমনটি যে শুধু এনটিভি করেছে, তা নয়। আমাদের টিভি চ্যানেলগুলোর স্টার সাংবাদিক যেমন- চ্যানেল আইয়ের শাইখ সিরাজ, চ্যানেল এটিএন এর মুন্নী সাহা বা চ্যানেল ৭১’এর ফারজানা রূপাকে জিজ্ঞাসা করলে তারাও হয়তো বলবে, কই, নাতো, ড. ইউনূস যে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন, তা তারা জানেন না তো! সাংবাদিকতার বস্তুনিষ্ঠতা, বাংলাদেশি স্টাইল! লেখক : সাবেক রাষ্ট্রদূত। ফেসবুক থেকে

 

সর্বাধিক পঠিত