প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ক্রাইস্টচার্চের সন্ত্রাসী হামলা নিয়ে নির্মিত ছবির সমালোচনায় যোগ দিলেন জ্যাসিন্দা আর্ডেন

লিহান লিমা: [২] নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা নিয়ে নির্মিত হতে যাওয়া ছবি সম্পর্কে দেশটির প্রধানমন্ত্রী জ্যাসিন্দা আর্ডেন বলেছেন, ‘আমার মনে হচ্ছে নিউজিল্যান্ডের জন্য এ কাজটা খুব বেশি তাড়াতাড়ি করা হচ্ছে এবং বিষয়টি কাঁচা।’ বিবিসি

[৩] সোমবার সংবাদ সম্মেলনে আর্ডেন তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন,‘হ্যাঁ, আমি মনে করি ২০১৫ মার্চের ঘটনায় বলার মত কিছু গল্প রয়েছে। কিন্তু সবগুলো গল্পই আমাদের মুসলিম সম্প্রদায়ের। সুতরাং, তাদের ফোকাসে রাখতে হবে। গল্পটিতে আমার কথা বলা হোক তা আমি চাই না।’ এর আগে আর্ডেনের কার্যালয় জানিয়েছে, এই সিনেমার সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই।

[৪]২০১৯ সালের ১৫ই মার্চ ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে নৃশংস হামলা করে সন্ত্রাসী ব্র্যান্টেন টেরেন্ট হত্যা করে কমপক্ষে ৫১ জন মুসলিমকে। এর মধ্যে কয়েকজন বাংলাদেশিও ছিলেন। হেডক্যামেরার সাহায্যে হামলার ঘটনা লাইভে প্রচার করে সে। টেরেন্টকে প্যারোলবিহিন যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। নিউজিল্যান্ডের ইতিহাসে সেই প্রথম এমন শাস্তি ভোগ করছে।

[৫]গত সপ্তাহে হলিউট রিপোর্টার জানায়, হামলার পর আর্ডেন তার সাহসী নেতৃত্ব দিয়ে কিভাবে পরিস্থিতি সামাল দিয়েছেন তাই হবে ছবির বিষয়বস্তু। নিউজিল্যান্ডের অ্যান্ড্রু নিকল সিনেমাটির গল্প লিখছেন এবং পরিচালনা করবেন। হামলার ভাষণে আর্ডেনের বলা ‘দে আর আস’ বাক্যটি নিয়ে ছবির নামকরণের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে।

[৬]মুসলিম সম্প্রদায় এ খবর শুনে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানায়। তারা বলে, এই ছবিতে মুসলিমদের দিকে দৃষ্টি না দিয়ে আর্ডেনের ওপর ফোকাস করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে শ্বেতাঙ্গ ফ্লেভার দেয়ার চেষ্টা চলছে। ক্রাইস্টচার্চের মেয়র লিয়ানি ডালজিয়েল বলেছেন, ‘এই ছবির ক্রুদেরকে শহরে স্বাগত জানানো হবে না।’ ওই হামলায় ভাইকে হারানো আয়া আল উমারি বলেন, ‘যে কথা বলা উচিত, এই ছবিতে তা নেই।’

[৭]ভয়াবহ সমালোচনার মুখে পদত্যাগ করেছেন এর প্রযোজক ফিলিপ্পা ক্যাম্পবেল। এ ছবির সঙ্গে জড়িত থাকার জন্য ক্ষমা চেয়ে তিনি বলেন,‘জনগণের দৃষ্টিভঙ্গি কতটা শক্তিশালী তা আমি বুঝতে পেরেছি। বুঝতে পারছি এই সময়ে ২০১৯ সালের ১৫ই মার্চ নিয়ে ছবি করা কতটা কাঁচা কাজ।’

[১০] ছবিটি বাতিলের আহ্বান জানিয়ে ন্যাশনাল ইসলামিক ইয়ুথ এসোসিয়েশনের আবেদনে স্বাক্ষর করেছেন কমপক্ষে ৬০ হাজার। এই ছবিতে মধ্য-বামপন্থি নেত্রী হিসেবে দেখানোর কথা অস্ট্রেলিয়ার অভিনেত্রী রোজ ব্রায়ানকে। এ ছবি থেকে তাকে সরে যেতে আহ্বান জানানো হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত তিনি সাড়া দেননি।

 

সর্বাধিক পঠিত