প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ফরিদপুরের ঐতিহ্যবাহী বাবুবাড়ি সংরক্ষণের দাবিতে ২১ সংগঠনের মানববন্ধন

হারুন-অর-রশীদ: [২] ফরিদপুরের সালথা উপজেলার বাউষখালী এলাকার ঐতিহ্যবাহী বাবুবাড়ি সংরক্ষণের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে ফরিদপুরের ২১টি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও এলাকাবাসী। ‘বাউষখালী বাবু বাড়ি, সবাই মিলে রা করি’- স্লোগান নিয়ে আজ রবিবার (১৩ জুন) সকাল ১০ টায় সালথা উপজেলা পরিষদের মূল ফটোকের সামনে ২ ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন শেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে জেলা প্রশাসক বরাবর গণস্বাক্ষর যুক্ত একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন সংগঠনগলোর নেতৃবৃন্দ।
[৩] সালথা উপজেলা শান্তি’র আহ্বান, ফরিদপুর সিটি পেজ/ ফরিদপুর লাইভ গ্রুপ, ঘুরি-ফিরি ফরিদপুর গ্রুপ, কানামাছি ভোঁ ভোঁ, সেপটোস ফোর, সদরপুর, ফরিদপুর সাইকিস্টস কমিউনিটি, ওয়েলফেয়ার সোসাইটি, ফরিদপুর, সালথা উপজেলা কনজুমার এসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ, পাবলিক ইউনির্ভাসিটি এসোসিয়েশন অফ সালথা, ফরিদপুর এক্সপ্রেস, ফরিদপুর পরিবার, সালথা প্রেসকাব, প্রভাতের হাসি ফাউন্ডেশন বল্লভদী, সালথা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড, উপজেলা বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, আমরা করবো জয় ফরিদপুর, ঐতিহাসিক স্থাপনা রক্ষা আন্দোলন, বাউষখালী সালথা, উই কেয়ার ফরিদপুর, রেড ক্রিসেন্ট, সালথা, বিশ্বাস পরিবার সংগঠনের পৃথক ব্যানারে মানববন্ধন কর্মসূচিটি অনুষ্ঠিত হয়।[৪] এসময় বক্তব্য রাখেন, বল্লভদী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল ইসলাম। সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন মোঃ হুমায়ন কবির, মোঃ এমদাদুল হাসান, শুভংকর পাল, শেখ আকতার হোসেন, শরিফ খান, কাজী এরশাদ,  এইচ এম আব্দুর রহমান, নির্মল বিশ্বাস, এলিজা, বায়েজিদ, আইনুজ্জামান আকাশ, ইকবাল মাহমুদ ইমন, মোঃ শফিকুল ইসলাম, সঞ্জয় সাহা, ইঞ্জি: শাহিন মোল্যা, মহুয়া ইসলাম, মাহবুব হোসেন, সালাউদ্দিন পিনু প্রমূখ।

[৫] বাউষখালী বাবু বাড়িটিকে সংস্কার ও সংরণ করে বাড়িটি প্রত্নতাত্বিক নিদর্শন, ইতিহাস ও গবেষণার কেন্দ্র এবং সরকারি সম্পদ হিসেবে ঘোষণা করার দাবি জানিয়ে মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বাবুবাড়ি শুধু সালথা উপজেলার নয় সারাদেশের একটি ঐতিহ্য। এ ঐতিহ্য রক্ষার্থে আমরা আজ মাঠে নেমেছি। প্রয়োজনে আরও কঠোর কর্মসূচী দেব। তবুও বাড়িটি রক্ষায় আমরা কাজ করে যাব। উক্ত বাড়িটি সংরক্ষণের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং মাননীয় সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চোধুরীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
[৬] সালথা উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা মোহাম্মাদ হাসিব সরকার বলেন, আমরা সত্যজিৎ সিং এর বাড়িটি রক্ষায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করবো। আমরা ইতিমধ্যে বাড়িটি পরিদর্শন করেছি। নতুন করে বাড়িটি নিয়ে আর যাতে কেউ ষড়যন্ত্র করতে না পারে সে ব্যপারে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে আছি।
[৭] প্রায় দুই শতাব্দীর অধীক কাল ধরে দাঁড়িয়ে থাকা সিংহ পরিবারের বসবাসের ইতিহাস জড়িয়ে আছে এই বাড়িতে। সিংহ পরিবারের গোড়াপত্তন সম্পর্কে কোন তথ্য পাওয়া না গেলেও এই পরিবার শুরু থেকেই অত্র অঞ্চলে বিভিন্ন জনহিতকর কাজ-কর্মে লিপ্ত ছিলেন। সিংহ পরিবারের ঐতিহ্যের শেষ চিহ্ন হিসেবে পুরোনো কারুকার্য খচিত দুটি বিল্ডিং এবং একটি মন্দির এখনো পর্যটন প্রেমীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে।
[৮] উল্লেখ্য, এই সংগঠনগুলো দীর্ঘদিন যাবৎ ফরিদপুরের ইতিহাস-ঐতিহ্য সংরক্ষণের দাবিতে ভূমিকা রেখেছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত