প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১]৭ থেকে ১০ দিনের মধ্যে বাংলাদেশে টিকার মজুদ শেষ হচ্ছে

শিমুল মাহমুদ: [২] দেশে গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত মোট ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে ৮৯ লাখ ২৬ হাজার ৪৬৬ ডোজ। এর মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৫৮ লাখ ১৯ হাজার ৭৫৭ জন। আর দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৩১ লাখ ৬ হাজার ৭০৯ জন। নিবন্ধন করেছেন ৭২ লাখ ৪৮ হাজার ৮২৯ জন।

[৩] সরকারি হিসাব অনুযায়ী, দেশে প্রতিদিন ১ লাখের বেশি ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। এই হারে টিকা প্রদান চললে আগামী ১০ দিনের মধ্যে মজুদ শেষ হয়ে যাবে। দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিনের অপেক্ষায় থাকবে ১৩ লাখ ৪০ হাজার মানুষ।

[৪] এদিকে সেরাম থেকে ভ্যাকসিন রপ্তানি স্থগিত ঘোষণার পর দেশে রাশিয়ার স্পুটনিভ-ফাইভ ও চীনের সিনোফার্মের ভ্যাকসিনের জরুরিভিত্তিতে ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে সরকার।

[৫] সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার প্রথম ডোজ নেয়ার পর যারা দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষায় থাকবেন, তাদের অনেকের ক্ষেত্রে আট সপ্তাহের জায়গায় ১২ সপ্তাহ পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। বাড়তি এই সময়ের মধ্যেই সেরাম থেকে টিকার পর্যাপ্ত জোগান পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী কর্তৃপক্ষ।

[৬] স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, চীনের উপহার হিসেবে  ৫ লাখ ডোজ টিকা আগামী সপ্তাহের মধ্যে দেশে পৌঁছাবে। তবে প্রথমেই গণহারে এই টিকা প্রয়োগ করা হবে না। সুরক্ষার স্বার্থে ওষুধ প্রশাসনের বিশেষজ্ঞ কমিটির সুপারিশে টিকার কার্যকারিতা  ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া যাচাই করতে প্রথমে এক হাজার মানুষের ওপর পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হবে চীনের টিকা।

[৭] এছাড়া অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা গ্রহণকারীদের ক্ষেত্রে ‘দ্বিতীয় ডোজ’ হিসেবে প্রয়োগের কোনো সুযোগ নেই। নতুন করে যারা টিকা নিতে আগ্রহী তাদের ক্ষেত্রে প্রথম ডোজ হিসেবেই প্রয়োগ করা হবে চীন ও রাশিয়ার টিকা।

[৮] স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেমের (এমআইএস) পরিচালক অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, ‘চীনের টিকা প্রথম ডোজ হিসেবেই প্রয়োগ করা হবে। রাজধানীর কিছু হাসপাতালে এগুলো প্রথমে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ হবে। তবে সেই হাসপাতালগুলো এখনও চূড়ান্ত করা হয়নি। এটা নিয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

[৯] স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, বিশেষ বিমানের ব্যবস্থা হলে বেইজিং থেকে যেকোনো দিন দেশে আসবে চীনের সিনোফার্ম উৎপাদিত ‘বিবিআইবিপি-কোরভি’ টিকা। এছাড়া রাশিয়ার টিকা ‘স্পুৎনিক -ফাইভ’ এর ৪০ লাখ ডোজও আসার কথা রয়েছে এ মাসেই।

সর্বাধিক পঠিত