প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মহামারিকবলিত স্থান ত্যাগ ও সেখানে গমন সম্পর্কে ইসলামের দৃষ্টিকোণ

ইসলামি ডেস্ক: ইসলাম ঘোষণা করেছে: ‘লি’কুল্লে দায়িন দাওয়াউন ইল্লাস সাম’ অর্থাৎ আল্লাহপাক প্রত্যেক রোগেরই ওষুধ সৃষ্টি করেছেন, মৃত্যু ব্যতীত। তাই অসুখ হলে চিকিৎসা করার ওপর ইসলাম বিশেষ গুরুত্বারোপ করেছে। খোদ রাসুলুল্লাহ (সা.) রোগ নিরাময়ে অসংখ্য দোয়া শিক্ষা দিয়েছেন এবং পাশাপাশি বিভিন্ন রোগের ওষুধ হিসেবে বহু বস্তুর উল্লেখ করেছেন। মহামারিকে আরবিতে ‘তাউন’ এবং ‘ওবা’ বলা হয়।

মহামারি অর্থে হাদীসে দুটি শব্দই ব্যবহৃত হয়েছে। রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর সময়ে ‘তাউন’ বা ‘ওবা’-এর ঘটনা ঘটে থাকা অস্বাভাবিক নয়। কিন্তু ফারুকী খেলাফত আমলে ‘তাউনে আমওয়াসের বিখ্যাত ঘটনা ঘটেছিল। এ ঘটনা তাউন শব্দের কেবল ব্যাপক পরিচিতিই ঘটায়নি, এমনকি ধর্মীয় দিক থেকে দারুণ বিতর্কেরও সূত্রপাত করেছে।

হাদীস গ্রন্থসমূহের মধ্যে ইমাম আবু জাকারিয়া ইয়াহিয়া ইবনে শরফ নওভি দামেশকি (৬৩১-৬৭৬হি.) সংকলিত ‘রিয়াজুস সালেহীন’ প্রসিদ্ধ হাদীসগ্রন্থ। এতে তাউনে আমওয়াসের ঘটনাটি ১৭৮৯ নং হাদীসে ৩৪৯ নং অনুচ্ছেদ এইভাবে উল্লেখ করেছেন: হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) বর্ণনা করেন যে, হযরত উমর ইবনুল খাত্তাব (রা.) সিরিয়ার উদ্দেশ্যে বের হন, যখন ‘সার্গ’ নামক স্থানে পৌঁছেন, (মদীনা হতে ১৩ মঞ্জিল দূরে সিরিয়া গমনের একটি মঞ্জিল) তখন তার সাথে সাক্ষাৎ করেন সেনাদলগুলোর নেতৃস্থানীয়গণ।

তাদের মধ্যে হযরত আবু উবায়দা ইবনুল র্জারাহ (রা.) এবং তার সঙ্গীগণও ছিলেন, তারা জানান যে, সিরিয়ায় ‘ওবা’ মহামারী দেখা দিয়েছে। হযরত ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, আমাকে উমর (রা.) বললেন, আমার নিকট প্রাথমিক মোহাজেরদের ডেকে আনো। আমি তাদেরকে ডাকলাম এবং তিনি তাদের সাথে পরামর্শ করলেন এবং তারা জানালেন যে, সিরিয়ায় মহামারি দেখা দিয়েছে। এতে তাদের মধ্যে মতভেদ শুরু হয়ে যায়। তাদের মধ্যে কেউ কেউ বললেন, আপনি একটি কাজে বের হয়ে এসেছেন, আমরা মনে করি না, আপনি (যেখান থেকে এসেছেন) সেখানে ফিরে যাবেন। আবার কেউ কেউ বললেন, আপনার সাথে বাকি লোকেরা এবং রসুলুল্লাহ (সা.) এর সাহাবীগণও রয়েছেন, আমরা মনে করি না, এ মহামারিতে আমরা সামনে অগ্রসর হব।

হযরত উমর (রা.) বললেন, তোমার আমার নিকট হতে উঠে চলে যাও। অতঃপর ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, হযরত উমর (রা.) বললেন, আমার কাছে আনসারগণকে ডেকে আনো। আমি তাদেরকে ডাকলাম। হযরত উমর তাদের সাথে পরামর্শ করলেন এবং তারা মোহাজেরদের পথ অনুসরণ করলেন (অর্থাৎ সামনে অগ্রসর হতে) এবং তাদের ন্যায় মতভেদ করলেন। হযরত উমর (রা.) বললেন, তোমরা আমার কাছ থেকে চলে যাও।

অতঃপর ইবনে আব্বাস (রা.)-কে বললেন, মক্কা বিজয়ের সময় মোহাজের কোরেশদের প্রবীণগণ এখানে উপস্থিত আছেন, তাদেরকে আসতে বলো, আমি তাদের ডাকলাম। তাদের কেউ মতভেদ করলেন না। দুইজন বললেন: আমরা মনে করি, সকল লোকসহ আমরা ফিরে যাব এবং এ মহামারির দিকে তাদেরকে ঠেলে দেব না । অতঃপর হযরত উমর (রা.) লোকদের মধ্যে ঘোষণা করলেন: ‘ভোরে আমি প্রত্যাবর্তন করব, তোমরাও তাই করবে’।ইনকিলাব

সর্বাধিক পঠিত