প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ফাহমিদুল হক: কলফাঁস সাংবাদিকতা

ফাহমিদুল হক: কলফাঁস সাংবাদিকতা অত্যন্ত নিম্নমানের সাংবাদিকতা বা বলা যায়, এটা কোনো সাংবাদিকতাই না। গত নির্বাচনের আগে বিরোধীপক্ষের প্রচুর কথোপকথন ফাঁস হয়, ক্ষমতাসীন দল তা কাজে লাগায়। নির্বাচন আগের প্রস্তুতিজনিত তৎপরতাকে (সহিংসতার পরিকল্পনাসহ) ‘ষড়যন্ত্র’ হিসেবে হাজির করতো একাত্তর ও সময় টেলিভিশন। যেকোনো সংবাদের সূত্র থাকতে হয়, সূত্র সংবাদের গ্রহণযোগ্যতাকে প্রতিষ্ঠা করে। কলফাঁস সাংবাদিকতার সূত্র হয়তো কোনো গোয়েন্দা সংস্থা, কিন্তু সেই সূত্রের কথা কখনোই উল্লেখ করা হয় না।

ফলে এ ধরনের রিপোর্টিং কিছুতেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। কলফাঁস সাংবাদিকতা এও কখনো জানাতে পারে না বিরোধীপক্ষকে দমনের জন্য এবং প্রতিবাদী জনতার কয়েকজনকে গুম করার মাধ্যমে সবার জন্য ভীতির পরিবেশ তৈরিতে সরকারের লোকজন সম্প্রতি কী পরিকল্পনা করছে। কলফাঁস সাংবাদিকতায় বিনোদিত হওয়ার আগে খোদ এই সাংবাদিকতা নিয়েই প্রশ্ন তুলুন। নিশ্চিত থাকুন, আপনার ফোনেও আড়ি পাতছে কেউ, যেকোনো সময় আপনারটাও ফাঁস হয়ে যেতে পারে। আপনারও রিসোর্টানন্দ বা সামান্য গঞ্জিকাসেবনও কাল হয়ে উঠতে পারে। আপনার গোপনীয়তার অধিকারের থোড়াই কেয়ার করে কর্তৃত্ববাদ। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত