প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সাতক্ষীরায় লবণ পানিতে তলিয়ে গেছে শত শত চিংড়ি ঘের

ডেস্ক রিপোর্ট: সাতক্ষীরার আশাশুনির পর এবার শ্যামনগরে জোয়ারের পানিতে উপকূল রক্ষা বাঁধ ভেঙে পাঁচটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। দুদিনের ব্যবধানে তলিয়ে গেছে ৯টি গ্রাম। বাঁধ মেরামতে দুদিন ধরে স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করছেন সহস্রাধিক মানুষ।

বুধবার (৩১ মার্চ) রাতে সুপার মুন পূর্ণিমার জোয়ারের তোড়ে পাঁচ নম্বর পোল্ডারের উপকূল রক্ষা বাঁধের প্রায় ২০০ ফুট ভেঙে যায়। স্রোতের তোড়ে হু হু করে পানি ঢুকে পড়ে লোকালয়ে। প্লাবিত হয় বুড়িগোয়ালীনি ইউনিয়নের পাঁচটি গ্রাম। ভাঙনে লবণ পানিতে তলিয়ে যায় শত শত চিংড়ি ঘের ও পুকুর। পানিবন্দি হয়ে হয়ে পড়েন তিন শতাধিক বাড়ি-ঘরের মানুষ।

অসহায় মানুষ ভীত না হয়ে নিজেদের রক্ষায় সম্মিলিতভাবে ঘুরে দাঁড়ায়। পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহায়তার আশায় না থেকে স্বেচ্ছাশ্রমে ভাঙা অংশ মেরামতে কাজ শুরু করেন এলাকার সহস্রাধিক মানুষ। দুদিন ধরে ভাঙা বাঁধ মেরামতে চলছে জোরেশোরে কাজ।

শ্যামনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউল হক দোলন বলেন, ‘ঘেরের মাছ উঠানোর সময় হয়েছে। সেই মাছ উঠার মুখেই পাঁচ থেকে ছয় হাজার বিঘা জমিতে লবণ পানি ঢুকে মাছের ঘের নষ্ট হয়ে গেছে। আমরা চাই, অনতিবিলম্বে টেকসই বেড়িবাঁধ কার্যকর হোক।।

ইতোমধ্যে স্থানীয় সংসদ সদস্য এসএম জগলুল হায়দারসহ পাউবো’র উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন। এ অবস্থায় বাঁধ মেরামতে সার্বিক সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দেন তারা।

এর আগে গত ৩০ মার্চ দুপুরে পূর্ণিমার জোয়ার আঘাত হানে আশাশুনির দয়ারঘাট বেড়িবাঁধে। প্লাবিত হয় বিস্তীর্ণ এলাকা। ধসে পড়ে প্রায় ৩শ’ কাঁচা ঘরবাড়ি। ভেসে যায় অন্তত সাড়ে ৩শ’ মাছের ঘের। সময়টিভি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত