প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] জাপানি হান্নান যেন আরেক সাহেদ

অনন্যা আফরিন:[২] কয়েক বছরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে তোলা সেসব ছবিসংবলিত ব্যানার-ফেস্টুন সাঁটিয়ে স্বল্প সময়ে এলাকায় ব্যাপক সাড়া ফেলেন আমিনুল ইসলাম হান্নান ওরফে জাপানি হান্নান।স্থানীয়রা জানান, একজন ভিআইপির কাছের ছোটভাই পরিচয়ে দক্ষিণখান আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের আতঙ্কে রাখতেন তিনি।

[৩] জাপানি হান্নান নিজেকে পরিচয় দিতেন বিভিন্ন ভিআইপিদের আত্মীয় হিসেবে ।পুলিশ ও স্থানীয়রা বলছে, একই সঙ্গে আওয়ামী সৈনিক লীগ, ভিআইপির কাছের লোক এবং মানবাধিকারকর্মী পরিচয় দিলেও সে একজন প্রতারক।

[৪] স্থানীয় সূত্র জানায়, সাবেক মন্ত্রী ও স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের মৃত্যুর পর উপনির্বাচনে এমপি নির্বাচিত হন হাবিব হাসান। এমপির পালাবদলে অনেকটা দুর্বল হয়ে পড়েন জাপানি হান্নান। এতে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা সোহেল রেজার সঙ্গে তার দ্বন্দ্ব প্রকট হয়। যে কারণে সোহেল রেজাকে গুলি করতে যান।দুই বছর আগে ময়লাবাণিজ্য কেন্দ্র করে স্থানীয় সাবেক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেনের এক কর্মীর পায়ে গুলি করেন জাপানি হান্নান।

[৫] ওই ঘটনায় তার বিরুদ্ধে দক্ষিণখান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) হয়। তবে অজ্ঞাত কারণে কারাবরণ করতে হয়নি তাকে।বিমানবন্দর এলাকায় গাড়ি পার্কিংয়ের টয়লেট দখল, জাপান ক্লাবের আড়ালে উত্তরায় মদের বার, মার্কস স্যোশাল এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন নামক এনজিও ব্যবহার করে এলাকায় মাল্টি লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) কোম্পানির নামে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ায় তার বিরুদ্ধে আসে বিভিন্ন অভিযোগ। এলাকার বাড়ি নির্মাণে চাঁদা দিতে হয় তাকে। অবৈধভাবে চলা অটোরিকশা নিয়ন্ত্রণ তার হাতে। এইসব কার্যক্রম  ১০ বছর ধরে নিয়ন্ত্রণ করেন হান্নান।

[৬] দক্ষিণখানের আশকোনা এলাকায় বালু ব্যবসায় চাঁদাবাজিকে কেন্দ্র করে বুধবার দুপুরে স্থানীয় জাপানি হান্নান ও সোহেল রেজা গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। প্রকাশ্য দিবালোকে আবদুর রশিদকে গুলি করে হত্যা করেন জাপানি হান্নান। এ ঘটনায় জাপানি হান্নানসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন। মামলার পর জাপানি হান্নানসহ ৮ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত